হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে বাগজোড় গ্রামে মোবারক মিয়া নামের কথিত জ্বীনের বাদশার আর্বিভাব

হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে বাগজোড় গ্রামে মোবারক মিয়া নামের কথিত জ্বীনের বাদশার আর্বিভাব

lokaloy24.com

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে উপজেলার বাগজোড় গ্রামে মোবারক মিয়া নামের কথিত জ্বীনের বাদশার আর্বিভাব হয়েছে। সে সহজ সরল মানুষকে ধোকা দিয়ে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সে তাবিজ, কবজ ও পানি তেল পড়ার নামে গত ৫ বছর ধরে এ ব্যবসার সাথে জড়িত থাকলেও তার বিরুদ্ধে অজ্ঞাত কারণে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। প্রতি শনি ও মঙ্গলবার জ্বীনের মাধ্যমে সওয়ালের নাম করে হাদিয়া নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। তার হাদিয়ার রকমভেদও রয়েছে। সে কোনো কোনো রোগীর নিকট থেকে ৫শ থেকে ২০হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিচ্ছে।
এক সময়ে রাজমিস্ত্রির কাজ করলেও গত ৫ বছর যাবত এ ব্যবসা করে লাখ লাখ টাকার মালিক হয়ে গেছে এবং সাধারণ মানুষকে প্রতারিত করছে। খবর নিয়ে জানা গেছে, ইসলামি শিক্ষায় তার নূন্যতম যোগ্যতাও নেই। সরেজমিনে তার সাথে আলাপ কালে সে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই স্বীকার করে বলেন, তিনি উমেদনগর কওমী মাদ্রাসায় ২য় শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করেছেন। আরবি ছিপারাও শেষ করতে পারেননি।

lokaloy24.com

৫ বছর আগে কোনো এক লোকের কাছ থেকে একটি তাবিজের বই সংগ্রহ করে তিনি হাত দেখা থেকে শুরু করে ঠুকঠাক তাবিজ ও পানিপড়ার মাধ্যমে তার ব্যবসা খোলে বসেন। গত ৫ বছরে তার ব্যবসার ডালপালা বেড়েছে। এখন প্রতিদিন তিনি রোগী দেখেন। আজ সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, তার টেবিলের উপর সাজানোর রয়েছে বিভিন্ন গাছের চাল, জড়, হরিণের চামড়া। টেবিলের নিচে ওষধী বোতল। যার অধিকাংশই অপরিচ্ছন্ন। তার কাছে রাসানিক মিশ্রিত ক্যামিকেলর বোতল ও রয়েছে। যেগুলো ব্যবহারে মানুষের ক্ষতি সাধন হতে পারে।

lokaloy24.com

এক কথায় বলতে গেলে তিনি জ্বীনের মাধ্যমে জওয়া সওয়ালের পাশাপাশি এখন কবিরাজির চিকিৎসাও খোলে বসেছেন। জওয়াব সওয়ালের সময় তিনি নিজের ইচ্ছেমতো কাগজে হাবিজাবি লেখেন। এসব লিখা আসলে কি, সাধারণ মানুষতো দুরের কথা কোনো আলেমও বুঝবে না।
প্রতারণার শিকার এক ভুক্তভোগী দম্পতি জানান, তারা কয়েক মাস আগে ছেলে সন্তান না থাকায় তার কাছে গেলে প্রথম রোগী হিসেবে ৫৩০ টাকা নেয়া হয়। এক সপ্তাহ পর মঙ্গলবার যাবার কথা বললে সে ২০ হাজার টাকা দিতে বলে এবং কথা মতো টাকাও দেন এক বছরের ভেতর বাচ্চা হবে বলে জানায়। কিন্তু অদ্যাবদি তার কোনো সন্তান হয়নি।
এ বিষয়ে ভুক্তভোগী লোকজন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এ বিষয়ে ওই এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত এসআই সামছু ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি তার জানা ছিলো না। খবর নিয়ে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com