সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের
বাহুবলে হত্যা মামলার আসামীর বাড়িঘরে বাদি পক্ষের ভাংচুর-অগ্নিসংযোগ লুটপাট

বাহুবলে হত্যা মামলার আসামীর বাড়িঘরে বাদি পক্ষের ভাংচুর-অগ্নিসংযোগ লুটপাট

বাহুবল (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি : হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলার মিরেরপাড়া গ্রামে হত্যা মামলার আসামিদের বাড়ি-ঘরে হামলা-ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দায়র করা মামলার অগ্রগতি না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন বাদিনী। গত ৯ আগস্ট মামলা দায়র হলেও তদন্তকারী দারোগার ভুমিকা নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করে বাদিনী লুৎফা আক্তার জানান, পুলিশের নমনীয়তায় প্রভাবশালী আসামীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তিনি মামলার কথা উল্লেখ করে বলেন, আসামি পক্ষের মিল্লাদ হোসেন ফারহান কর্তৃক মিথ্যা মামলায় আসামি হয়ে পুলিশী হয়রানির ভয়ে তার পিতার বাড়ির লোকজন নিরাপদে চলে যান।

এ সুযোগে প্রতিপক্ষের শাহ ফয়জুল কবির, শাহ জাকির হোসেন তোহেল ও শাহ মিজানুল কবির সহ তাদের সহযোগীরা গত ১ আগস্ট হত্যা মামলার আসামীদের বাড়ি-ঘরে তান্ডব চালিয়ে ভাংচুর, অগ্নিসংযোগের পর নগদ টাকা, স্বর্নলংকারসহ কয়েক লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
এব্যাপারে গত ৯ আগস্ট লুৎফা আক্তার বাদি হয়ে শাহ ফয়জুল কবিরকে প্রধান আসামি করে হবিগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের অভিযোগ এনে ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ২০/২৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

আদালত মামলাটি এফআইআর গন্যে রুজু করে তদন্তের জন্য বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দেন। মামলাটি তদন্ত করছেন থানার এসআই অলক বড়ুয়া । তিনি জানান, মামলার বিষয়ে গভীরভাবে তদন্ত কার্যক্রম চলছে।

উল্লেখ্য, গত ১২ জুন উপজেলার মিরেরপাড়া গ্রামের মৃত শাহ মুজাম্মিল হোসেন ময়না মিয়ার পুত্র ফয়সল মিয়া (৩০) জায়গা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নিহত হন। পরবর্তীতে একই গ্রামের খুর্শেদ আলীর পুত্র মোতাহির মিয়া ও মোশাহিদ মিয়া সহ তাদের লোকজনকে হত্যা মামলায় আসামি করা হলে তারা বাড়ি ঘর ছেড়ে নিরাপদে চলে যান। এ সুযোগে হত্যা মামলার বাদি পক্ষের লোকজন আসামিদের বাড়িতে নারীদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ভাংচুর-অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট চালায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com