বাহুবলে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ২ কিলারের স্বীকারোক্তি

বাহুবলে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ২ কিলারের স্বীকারোক্তি

বাহুবলে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ২ কিলারের স্বীকারোক্তি
বাহুবলে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ২ কিলারের স্বীকারোক্তি

নিজস্ব প্রতিনিধি, হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জের বাহুবলে গাড়ি চালকের লাশ উদ্ধারের ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই)। সেই সাথে দুই কিলারকে আটক করা হয়েছে।

আটক কিলাররা হচ্ছে, ঢাকার হাজারীবাগ এলাকার মো. শামীম ফকির (৪০) ও বরিশালের উজিরপুর এলাকার সালাউদ্দিন মীর মিলন (২৯)।

বুধবার (২২ মে)  বিকেলে সালাউদ্দিন মীর মিলন হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান আলম প্রধানের আদালতে ১৬৪ ধারায় হত্যার দায় স্বীকার করে।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ২৮ মে বাহুবল থানা পুলিশ মোশারফের লাশ অজ্ঞাত হিসেবে উদ্ধার করে। এ বিষয়ে স্থানীয় পত্র-পত্রিকায় খবর প্রকাশ হয় এবং শোশ্যাল মিডিয়ায় বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে। ভিক্টিম মোশারফ এর পরিবার মরদেহ দেখতে পেয়ে বাহুবল থানায় এসে লাশ সনাক্ত করে নিয়ে যায়। পরে গাড়ীর মালিক কামাল আহমেদ বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামীদের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি থানা পুলিশ তদন্তের পর রহস্য উদঘাটন করতে না পারায় পরে হবিগঞ্জ জেলা পিবিআই এর পরিদর্শক মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম এই মামলার তদন্ত শুরু করেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত ও গাড়ীতে রক্ষিত একটি কেস স্লিপের সূত্র ধরে আসামীদের সনাক্ত করতে সক্ষম হন। পরে বিভিন্ন কৌশল ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে দুই কিলারকে আটক করতে সক্ষম হন।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ পিবিআইর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিয়া কুতুবুর রহমান চৌধুরী  বুধবার বিকেলে সাংবাদিকদের জানান, এটি একটি চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড । হবিগঞ্জ পিবিআই বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত ও কৌশল ব্যবহার করে ঘটনার রহস্য উদঘাটন করে এবং আসামীদেরকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com