সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
বাহুবলের ভিটেহারা সাংবাদিক পরিবারকে বাড়ি করে দেওয়ার ঘোষনা দিলেন ইউএনও

বাহুবলের ভিটেহারা সাংবাদিক পরিবারকে বাড়ি করে দেওয়ার ঘোষনা দিলেন ইউএনও

বাহুবলের ভিটেহারা সাংবাদিক পরিবারকে বাড়ি করে দেওয়ার ঘোষনা দিলেন ইউএনও
বাহুবলের ভিটেহারা সাংবাদিক পরিবারকে বাড়ি করে দেওয়ার ঘোষনা দিলেন ইউএনও

সিদ্দিকুর রহমান মাসুম, বাহুবল প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার ভিটেহারা মরহুম সাংবাদিক এটিএম তামিমের পরিবারকে বাড়ী তৈরি করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বাহুবল উপজেলা নির্বাহী অফিসার জসিম উদ্দিন।

বুধবার (৪ জুলাই) বিকালে মরহুমের স্ত্রী দুই অবুঝ সন্তানদের নিয়ে হাজির হয়েছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মরহুমের স্ত্রীকে একটি বিধবা ভাতার কার্ড মঞ্জুর করেন। এবং একটি সরকারী জায়গা লিজ নিয়ে একটি বাড়ী তৈরি করার ঘোষনাও দেন তিনি। তাৎক্ষনিক স্থানীয় ইউপি সদস্য শামীম আহম্মদকে একটি খাস জমি বের করে তথ্য দেওয়ার জন্যও অনুরোধ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাহুবল প্রেসক্লাব সভাপতি সৈয়দ আব্দুল মান্নান, সাধারন সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান মাসুম, প্রকাশনা সম্পাদক কাদির চৌধুরী বাকুল, নির্বাহী সদস্য মামুন চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন, মিরপুর ইউপি সদস্য শামীম আহমদ, ইউডিসি সদস্য সাকিবুল হাসান ফারুক প্রমূখ।

২০১৫ সালের ৩ আগষ্ট ডায়বেটিসে আক্রান্ত হয়ে ৩৩ বছর বয়সী তরুন সাংবাদিক এটিএম তামিম না ফেরার দেশে চলে যান তিনি। তিনি উপজেলার সদর ইউনিয়নের জাঙ্গালিয়া গ্রামের বাসিন্দা। মৃত্যকালে তিনি দেড় বছরে সাদ নামের একটি শিশু সন্তান ও স্ত্রীর গর্ভে একটি সন্তান রেখে যান। গর্ভে থাকা সন্তানের বয়স এখন প্রায় সাড়ে তিন বছর।

মরহুমের চিকিৎসার খরছ মেটাতে তার শেষ সম্ভল ভিটেটুকুও বিক্রি করে দিতে হয়েছিল। পরে তার স্ত্রী চলে যায় তার বাবার বাড়ী একই উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের দওপাড়া গ্রামে।

তার বাবার বাড়ির লোকজনও অসচ্ছল। নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা। অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটছে তাদের। অবুঝ দুই শিশু সন্তানের পড়া লেখা তো দূরের কথা তাদের মুখে এক মুঠো ভাত তুলে দিতেও হিমশিম খাচ্ছে মরহুমের স্ত্রী।

একটি বাড়ি ও পেট ভরে দু মুঠো ভাত সন্তানদের মুখে তুলে দিতে তিনি সমাজের বিত্তবানদের কাছে অনুরোধ করে তিনি বলেন, আমার স্বামী সমাজের উপকারে অনেক লিখেছেন দেখেছি, কিন্তু আজ এত দিন হয়ে গেল আমার স্বামীর এতিম দুই সন্তানকে নিয়ে কেউ লিখলনা। এসময় তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে ইউএনও প্রশংসা করে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্য চান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com