বানিয়াচঙ্গে নার্সারী ছাত্র তানভীরের মৃত্যু: আপোষে দফারফার চেষ্টা

বানিয়াচঙ্গে নার্সারী ছাত্র তানভীরের মৃত্যু: আপোষে দফারফার চেষ্টা

বানিয়াচঙ্গে নার্সারী ছাত্র তানভীরের মৃত্যু: আপোষে দফারফার চেষ্টা
বানিয়াচঙ্গে নার্সারী ছাত্র তানভীরের মৃত্যু: আপোষে দফারফার চেষ্টা

বানিয়াচং (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে এ এইচ কিন্ডার গার্টেনের নার্সারীর ছাত্র শাহরিয়ার তানভীর (৭) মাইক্রো চাপায় মারা যাওয়ার ঘটনাটি দফারফার চেষ্টা চলছে। টাকার বিনিময়ে যাতে করে বিষয়টি নিস্পত্তি করা হয় এ জন্য একটি মহল কাজ করছে।

যেখানে শিশুটির রক্তের দাগ এখনো শুকায়নি সেখানে ঘাতক চালককে বাঁচানোর খবর চাউর হলে সচেতন মহলসহ অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এ এইচ কিন্ডার গার্টেনের শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসী চান ঘাতক চালকের কঠিন শাস্তি।

এ ব্যাপারে বানিয়াচং তুষার স্মৃতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক শেখ আবুল মনসুর তুহিন জানান, শিশু তানভীর আমার সন্তানতুল্য। এত নির্মমভাবে তাকে মাইক্রোতে পিসে মারা হলো, সেই বিষয়টি যদি দফারফার মাধ্যমে শেষ করা হয় তাহলে ভবিষ্যতে এহেন ঘটনা আরো ঘটতে পারে। সুতরাং আমি চাই দেশের বিদ্যমান আইনে যেন ঘাতক চালকের সর্বোচ্ছ শাস্তি নিশ্চিত করা হয়। নিহত তানভীরের মামা শেখ বাবুল মিয়া জানান, বিষয়টি আপোষের মাধ্যমে নিস্পত্তির কথা বলে সময় কালক্ষেপন করা হচ্ছে। আর বিলম্ব নয় দ্রুত মামলা দায়ের করা হবে।

নিহত তানভীরের গর্ভধারিণী মাতা সেবিনা আক্তার জানান, আমি নির্বাক ও অসুস্থ। এলাকার গ্রাম্য মাতব্বররা চাচ্ছেন আপোষ-মীমাংসা করতে। কিন্তু আমি চাই আমার সন্তানের হত্যাকারী চালকের ফাঁসি। এ ব্যাপারে বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ রঞ্জন কুমার সামন্ত জানান, এখনো মামলা দায়ের করা হয়নি। পোস্টমর্ডেমের রিপোর্ট আসুক, আমাদের পক্ষ থেকে দায়ী চালকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ৩০ অক্টোবর ২০১৯ বানিয়াচং উপজেলা সদরের ৫/৬নং বাজারের সংলগ্ন এ এইচএম কিন্ডার গার্টেনের নার্সারীর ছাত্র শাহরিয়ার তানভীর (৭) বিদ্যালয় ছুটি হলে বাড়ি যাচ্ছিল। এ সময় দ্রুতগামী একটি মাইক্রো চাপাদিলে বাম্পারের সাথে শার্টলেগে আটকে যায় শিশু তানভীর। সাথে সাথে উপস্থিত লোকজন চালককে মাইক্রো থামাতে অনুরোধ করলে সাদ্দাম (চালক) কোন কর্ণপাত করেনি।

প্রায় ৩শতাধিক ফুট দূরে গিয়ে সড়কের ডিভাইডারের সাথে ধাক্কা লেগে তানভীর বাম্পার থেকে ছিটকে পড়ে যায়। এতে তার মাথায় প্রচন্ড আঘাত লাগে এবং রক্তক্ষরণ হয়। সাথে সাথে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঘাতককে গ্রেফতারের দাবিতে ৩১ অক্টোবর গরীব হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন সড়কে এক মানববন্ধন করেন সহপাঠী শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসী। মানববন্ধন থেকে অতিদ্রুত চালককে গ্রেফতারের দাবি করলে ৭দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও চালক গ্রেফতার হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com