বাড়িতে টাকা পাঠাই না, উল্টো মা-ই আমাকে হাতখরচ দেয়: নরেন্দ্র মোদী

বাড়িতে টাকা পাঠাই না, উল্টো মা-ই আমাকে হাতখরচ দেয়: নরেন্দ্র মোদী

বাড়িতে টাকা পাঠাই না, উল্টো মা-ই আমাকে হাতখরচ দেয়: নরেন্দ্র মোদী
বাড়িতে টাকা পাঠাই না, উল্টো মা-ই আমাকে হাতখরচ দেয়: নরেন্দ্র মোদী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- রাজনৈতিক আলোচনা নয়, রাজনীতির বাইরে সম্পূর্ণ অন্য পরিসরে গিয়ে অক্ষয় কুমারের সঙ্গে কথা বললেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনেই দীর্ঘসময় ধরে অক্ষয়ের সঙ্গে এই কথোপকথন চলে নরেন্দ্র নোদীর। এই কথাবার্তায় উঠে আসে নরেন্দ্র মোদীর জীবনের নানান কথা। সাক্ষাত্কারের টুকরো টুকরো কিছু ভিডিও টুইটারে শেয়ার করেছেন অক্ষয়।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথায় কথায় অক্ষয় তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, মানুষের খুব কম করে হলেও দিনে ৭ ঘণ্টা ঘুমোনো উচিত, সেখানে তিনি নাকি দিনে মাত্র ৩ থেকে সাড়ে ৩ ঘণ্টা ঘুমোন, এটা কীভাবে সম্ভব?

উত্তরে নরেন্দ্র মোদী জানান, এটা তাঁর দীর্ঘদিনের অভ্যাস। তাঁর এই কম ঘুমোনোটা নিয়ে তাঁর চিকিত্‍সক থেকে শুরু করে পরিচিত মহলের অনেকেই চিন্তিত। সকলেই তাঁকে একটু বেশি ঘুমনোর পরামর্শ দেন। এমনকি তাঁর বন্ধু তথা প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামাও তাঁকে এনিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

তবে তিনি চিরকালই কম সময়ই ঘুমিয়ে আসছেন, এতে তাঁর যে কাজে কোনও ক্লান্তি আসে, এমনটাও নয়। তাই এনিয়ে চিন্তার কিছুই নেই। প্রথম জীবনে তিনি যে কষ্ট করে জীবন চালিয়েছেন, সেখান থেকেই হয়ত এই অভ্যাসটা তাঁর মধ্যে চলে এসেছে বলে মনে করেন নরেন্দ্র মোদী। কিছুটা মজা করে মোদী বলেন, কাজ থেকে অবসর নেওয়ার পরই কীভাবে বেশি ঘুমোনো যায় সেই চেষ্টা করবেন বলে জানান তিনি।

পরিবারের জন্য, মায়ের জন্য তিনি টাকা পাঠান? একথা প্রসঙ্গে হাসতে হাসতে মোদী বলেন, না বরং বাড়ি গেলে মা-ই এখনও আগের মতোই আমার হাতে ১০০ টাকা ধরিয়ে দেন। MLA- হওয়ার আগে তাঁর কোনও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টই ছিল না, কখনও প্রয়োজনও হয়নি বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তাঁর অ্যাকাউন্টে জমানো ২১ লক্ষ টাকা তাঁর এক কর্মীর বাচ্চার পড়াশোনার জন্য দিয়ে দিয়েছিলেন বলেও খোলসা করেন তিনি।

পাশাপাশি মোদী জানান, ”অনেক ছোট থেকেই আমি পরিবার থেকে বিছিন্ন হয়ে জীবন চালিয়েছি। তারপর এখন যখন আমি আমার মাকে আমার সঙ্গে সময় কাটাকে বলি, উনি নিজের গ্রামেই থাকতে চান। তাছাড়া মাকে খুব বেশি সময় দিতেও পারিন না আমি।”

তিনি কীভাবে ‘রাগ’ নিয়ন্ত্রণ করেন? এ প্রশ্নের জবাবে নরেন্দ্র মোদী বলেন, তিনি সব সময় না রেগে যাওয়ারই চেষ্টা করেন। তাঁর কথায়, ”রাগ সবসময় নেতিবাচক শক্তি তৈরি করে। আমি সবসময় কঠোর ও শৃঙ্খলা পরায়ণ থাকার চেষ্টা করি, কিন্তু কখনওই রাগে যাই না। আর এটা আমি অভ্যাস করেছি। আগে যখনই কোনও ঘটনায় আমি রেগে যেতাম, তখন গোটা ঘটনাটা আমি কাগজ-পেন নিয়ে লিখতাম এবং সেটা না পরে ছিঁড়ে ফেলতাম। তাতেও যদি রাগ না কমতো তাহলে আবার লিখতাম ও ছিঁড়ে ফেলতাম। এভাবেই রাগকে নিয়ন্ত্রণ করার অভ্যাস করেছি।

প্রধানমন্ত্রীর কথায়, কোনও বৈঠক চলার সময় রেগে যাওয়ার অর্থ নিজে এবং সবাইকে সেই কাজের থেকে বিচ্যুত করা।”

এছাড়াও বাজারের চলতি ওষুধপত্রের থেকেও আয়ুর্বেদিক চিকিত্‍সাতেই তাঁর সবচেয়ে বেশি বিশ্বাস বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

লোকসভা নির্বাচনের উত্তাপে এখন ফুটছে গোটা ভারত। প্রচার কাজে দেশের নানা প্রান্তে ছুটে বেড়াচ্ছেন মোদী। নির্বাচনী উত্তাপের আবহে এই সাক্ষাত্কারে যে মুডে দেখা গেল মোদীকে, যে ভাবে প্রাণ খুলে হাসতে দেখা গেল তাঁকে, যেন এক অন্য মোদীকে দেখছে গোটা ভারতবাসী! অক্ষয় কুমারকে মজাচ্ছলে বেশ কিছু কথা বলতেও শোনা গিয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com