বরফ জলে জীবিকার লড়াই

বরফ জলে জীবিকার লড়াই

http://lokaloy24.com

বরফ জল। শীতের ভোর। হাঁড়কাপা শীতে জীবিকার তাগিদ। পাথর তুলতে এই বরফ ‍গলা জলে নেমে পড়েন শতশত দলবাধা শ্রমিক। যেমন পাথরের শরীর, শীত স্পর্শ করে না। পেটের ক্ষুধা আর পরিবারের মৌলিকা চাহিদা পূরণ করতে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পানকৌড়ি পাখির মতো ডুবে ডুবে তুলে পাথর। সন্ধ্যায় হাঁড়ভাঙ্গা খাটুনি শেষে উত্তোলিত পাথর মহাজনের কাছে বিক্রি বাজার সদায় করে অন্ন জুটে পরিবারের মুখে। এ যেন বরফ জলে জীবিকার লড়াই। এ চিত্র দেশের উত্তরের সীমান্ত প্রবাহিত নদী মহানন্দার।

দেড়লাখ জনগোষ্ঠীর মধ্যে প্রায় অর্ধ-লক্ষাধিক পাথর শ্রমিক। এ পাথর উত্তোলিত হচ্ছে নদী থেকে। দু’সীমান্তে বুক চিরে প্রবাহিত নদী মহানন্দায় হাজারো শ্রমিকের জীবিকার বিশাল ভান্ডার। কেউ কেউ ভাগ্যদেবতাও মনে করে মহানন্দাকে। প্রতিদিন লাথ লাখ সিএফটি নুড়ি পাথর তোলা হচ্ছে এ নদী থেকে। ভোর সকালে বরফগলা ঠান্ডা পানিতেই শ্রমিকরা দলবেধে হাওয়ায় ফুলানো গাড়ির টিউব, লোহার খাটাল (চালুনী) ও লোহার রড নিয়ে নেমে পড়ছেন নদীতে। দিনভর চলে পাথর উত্তোলন। সেই পাথর ভাসানো টিউবের ঢাকিতে করে নদীর কিনারে এনে সেখান থেকে দু’কাঁধে ভরে তীরে স্তূপ করে।

সন্ধ্যায় মহাজনের কাছে বিক্রি করা টাকায় জোটে তাদের পরিবারের আহার। দিন শেষে প্রতিদিন মজুরি হিসেবে মিলে ৫০০-৭০০  টাকা। আর উপার্জনের অন্য কোনো ব্যবস্থা না থাকায় প্রতিদিন শীতকে উপেক্ষা করে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বরফ গলা পানিতে নেমে নুড়ি পাথর কুড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন তারা। গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় শফিউর রহমান, নুর ইসলাম ও আব্দুল করিমের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, সকাল ৮টায় নদীতে নেমেছেন। পানি খুব ঠান্ডা। কিছু করার নেই, বাইরে কাজ নেই।

কথা হয় পাথর শ্রমিক সরকার পাড়া গ্রামের রেজাউল ইসলামের সঙ্গে। তিনি বলেন, ভাই এই মহানন্দা নদী আমাদের বাঁচিয়ে রাখছে ভাই। আমার দুই মেয়ে এক মেয়ে। সকালে নদীর পানি বরফের মতো ঠান্ডা। কাজ না করলে খাব কী। একই কথার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বুড়িমুটকী গ্রামের সফিকুল ইসলাম নামে আরেক শ্রমিক জানান, ঘরে স্ত্রীসহ চার মেয়ে। সন্তানের ভরণ-পোষণ চলে এই পাথর জীবিকার ওপর। দিনভর দলের সঙ্গে বরফগলা ঠান্ডা পানিতে পাথর তুলে সন্ধ্যায় পারিশ্রমিক নিয়ে পরিবারের অন্ন বস্ত্র শিক্ষাসহ যাবতীয় মৌলিক চাহিদা পূরণ করার চেষ্টা করেন।

এতো ঠান্ডা পানিতে কাজ করছেন, পরে অসুখ ধরে না প্রশ্ন করলে মোতালেব আর রবিউল বলেন, ‘হ্যাঁ ভাই, সর্দি-জ্বর তো হচে। কয়দিন জ্বরে ছিনু। কাম না করে উপায় নাই। অনেক সময় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)এর বাঁধার সম্মুখীন হতে হয় তাদের। কখনো কখনো বন্ধ হয়ে যায় পাথর উত্তোলনের কাজ। এতে কমে যায় রুজি-রোজগার। তবুও প্রাত্যহিক ঝুঁকি নিয়েই পাথর তুলতে নেমে যায় নদীর বরফগলা জলে।’

নদী মহানন্দার পাথর শ্রমিক ছাড়াও এ নদীর তীরে পাথর নেটিং, শোটিং ও ক্রাশিং এর কাজ করছে শতশত নারী পাথর শ্রমিক। তেঁতুলিয়া থেকে বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার নদীর তীরসহ সড়কের উভয় পার্শ্বে চলে পাথর লোড-আনলোড, নেটিং, শোটিং ও ক্রাশিংয়ের কাজ। এসব কাজে জড়িত শতশত নারী-পুরুষ পাথর শ্রমিক। তারাও ভোর সকালে ঘরের গৃহস্থালির কাজ সেরে হিম-কুয়াশার ভেতরেই ঘর থেকে বের হয়ে যান কাজের উদ্দেশে। ভোর সকালে যখন কুয়াশা ঢাকা চারপাশ, কনকনে শীতে হাত অবশ হয়ে আসে। কিন্তু সেই অবশ করা ঠান্ডাও হার মানে এসব কর্মজীবী বীর শ্রমিকদের কাছে। অটোভ্যান ও অটোরিকশা ও কেউ সাইকেল চালিয়ে যোগ দেন কাজে। সকাল থেকে সন্ধ্যা।

দিন শেষে এসব শ্রমিকরা মহাজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে বাজার করে ঘরে ফিরে পরিবারের সদস্যদের মুখে হাসি ফুটাতে। কথা হয় ক্র্যাশিং মেশিনে পাথর ভাঙা কাজে নিয়োজিত জরিনা খাতুনের সাথে। তিনি বলেন, ‘ফজরের আজান শুনে ঘুম থেকে উঠতে হয়। তারপর তাড়াহুড়ো করে নিজের ও দুই সন্তানের জন্য রান্না করতে হয়। সন্তানদের কোনো দিন খাইয়ে কোনো দিন না খাইয়ে বেরিয়ে পড়তে হয় তাকে। দেরি করে কাজে পৌঁছালে মহাজনের গালি শুনতে হয়। কোনো কোনো দিন দেরি করার কারণে কাজেই নেওয়া হয় না।’

চোখের পানি ফেলে মাগুড়া গ্রামের শেফালি আক্তার বলেন, ‘বছর ছয়েক আগে স্বামী ছেড়ে আরেকটি বিয়ে করেছি। ঘরে দুই মেয়ে। ওদের তো বড় করতে হবে, লেখাপড়া ও বিয়ে দিতে হবে। তাই শীতকে শীত মনে না করে পাথরভাঙ্গা মেশিনে কাজ করে সংসার চালাচ্ছি।’

এরকম শতশত আমেনা, রহিমা, জরিনার মতো নারী কাজ করছে জীবিকা ও সংসারের তাগিদে। এদের সঙ্গে নানা বয়সী পুরুষ শ্রমিকরাও। সমতালে সম্প্রীতির বন্ধনে শীতকে তুচ্ছ মনে করে কাজ করে যাচ্ছে। জীবনের বেঁচে থাকার লড়াইয়ে। জীবনযুদ্ধে এসব অসহায় মানুষগুলো ঝুঁকি নিয়ে দিনভর যুদ্ধ করে স্বপ্ন দেখে সুন্দর আগামীর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com