ফুটফুটে সেই শিশুকে টয়লেটে ফেলে যাওয়ার চিত্র ধরা পড়ল সিসিটিভিতে

ফুটফুটে সেই শিশুকে টয়লেটে ফেলে যাওয়ার চিত্র ধরা পড়ল সিসিটিভিতে

ফুটফুটে সেই শিশুকে টয়লেটে ফেলে যাওয়ার চিত্র ধরা পড়ল সিসিটিভিতে
ফুটফুটে সেই শিশুকে টয়লেটে ফেলে যাওয়ার চিত্র ধরা পড়ল সিসিটিভিতে

ঢাকা- মঙ্গলবার ঢাকা শিশু হাসপাতালের টয়লেট থেকে উদ্ধার হওয়া ফুটফুটে কন্যা শিশুটিকে দুই নারী ফেলে গিয়েছিলেন। এর মধ্যে একজন ছিলেন বোরকা পরা। হাসপাতালের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ যাচাই করে এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে হন্তদন্ত হয়ে ঢাকা শিশু হাসপাতালে ঢুকছেন দুই নারী। এক নারীর হাতে দেখা যায় কাপড়ের পুটুলি সদৃশ কিছু। তিনি শৌচাগারে ঢুকে দ্রুত বেড়িয়ে যান। ঢোকার সময় হাতে যে পুটুলি দেখা যাচ্ছিল ছিল, সেটি বের হবার সময় ছিল না। অন্যজন ছিলেন বোরকা পরা। ধারণা করা হচ্ছে এই দুজনই ফেলে যায় শিশুটিকে।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. জহিরুল ইসলাম লিটন বলেন, ‘দেখে মনে হয়েছে শিশুটি একটু ভালো ফ্যামিলির। কারণ তার কালার, জন্মের পর যে ওয়েট (ওজন), বিল্ডআপ। এগুলো অনেক স্ট্যান্ডার্ড।’

ঢাকা শিশু হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. ফরিদ আহমেদ বলছিলেন, ‘বাচ্চাটি সুন্দর করে দুধ খাচ্ছে, প্রস্রাব-পায়খানা করছে। বমি করছে না বা কোনো ধরনের ইনফেকশনের প্রমাণ মেলেনি। বাচ্চাটা খুবই ভালো আছে।’

তবে যে বিষয়টি শিশু হাসপাতালের চিকিৎসকদের কাছে রহস্য মনে হচ্ছে তা হলো তার বয়স। অবৈধ সন্তান মনে করে সাধারণত জন্মের পর পরই শিশুদের ফেলা যাওয়ার রেকর্ড বেশি পাওয়া যায়। এ ক্ষেত্রে মেয়ে শিশুটির বয়স কমপক্ষে পাঁচ থেকে সাত দিন।

শিশু হাসপাতালের অপর সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. আবু তায়েব বলেন, ‘এমনও হতে পারে, মা জানে না। অন্যজন এনে ফেলে দিয়েছে— এমনটাও তো হতে পারে। দুইটাই হতে পারে।’

ডা. মো. আবু তায়েব বলেন, ‘আমরা গতকাল যেটা দেখছি, দুইটা মহিলা একসঙ্গে আসছিল। একজন বোরকা পরা, তারা দুজন খুব তাড়াতাড়ি ভেতরে ঢুকল, পরে স্বাভাবিকভাবে আরামসে বের হয়ে আসল। হাতে যেটা দেখার মতো ছিল, সেটা পরে বের হওয়ার সময় আর ছিল না।’

এদিকে মঙ্গলবার ঢাকা শিশু হাসপাতালের বাথরুমে ফেলে যাওয়া শিশুটির দায়িত্ব নিতে দেশ-বিদেশ থেকে পুলিশের কাছে ফোনে ও সামাজিক মাধ্যমে হাজারো আবেদন আসছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। অনেকে হাসপাতালে লিখিত আবেদনও জানিয়েছেন। তবে পুলিশ চাইছে, তার আসল মায়ের পরিচয় খুঁজে পেতে।

এজন্য ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ফেসবুক পাতায় শিশুটির প্রকৃত অভিভাবকের সন্ধান চেয়ে একটি পোস্ট দেওয়া হয়েছে।

পোস্টে বলা হয়েছে, তেজগাঁও বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকারের নির্দেশে শেরে বাংলানগর থানা পুলিশের তত্ত্বাবধানে নবজাতকটিকে শিশু হাসপাতালের একটি কেবিনে চিকিৎসকের সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রাখা হয়েছে। শিশুটিকে প্রকৃত অভিভাবকের কাছে ফিরিয়ে দিতে শিশু হাসপাতাল ও আশপাশের এলাকার সিসিটিভি ক্যামেরা ফুটেজ পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি ম্যানুয়াল পদ্ধতিতেও চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

ওই ফেসবুক পোস্টে বলা হয়, ‘এই নিষ্পাপ শিশুটি ফিরে পাক তার মা-বাবাকে। মা-বাবার কোল আলোকিত করে বেড়ে উঠুক আসল পরিচয়ে।’

নবজাতকটির মা-বাবা কিংবা পরিচিত জনকে কেউ চিনে থাকলে বা তাদের সম্পর্কে কোনো তথ্য জানা থাকলে শেরে বাংলানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মোবাইল নম্বরে (০১৭১৩৩৯৮৩৩৫) অথবা তেজগাঁও জোনের সহকারী কমিশনারের নম্বরে ০১৭১৩৩৭৩১৭৮ যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে পুলিশ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com