প্রমাণ মিলেছে দুর্নীতির তবু আসামিরা নির্দোষ!

প্রমাণ মিলেছে দুর্নীতির তবু আসামিরা নির্দোষ!

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে যন্ত্রপাতি মেরামতের জন্য ২০১৩-১৪ অর্থবছরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ দেওয়া হয় এক কোটি টাকা। ওই টাকা দিয়ে আগের অর্থবছরে সাত হাজার ৫০০ টাকায় ক্রয় করা একটি বেবি স্ক্যানার মেশিনের তিনটি যন্ত্রাংশ মেরামত বাবদ বিল দেওয়া হয় চার লাখ ১১ হাজার ৯০০ টাকা। পাঁচ লাখ ৯৪ হাজার টাকার একটি কার্ডিয়াক মনিটরের তিনটি যন্ত্রাংশ পরিবর্তনের বিল ছয় লাখ ৬৮ হাজার ৫০০ টাকা এবং ছয় লাখ ৫৯ হাজার টাকায় কেনা একটি ফটোথেরাপি মেশিনের দুটি যন্ত্রাংশ পরিবর্তনের বিল দেওয়া হয় ছয় লাখ ৪০০ টাকা। এ ছাড়া ২২টি যন্ত্রপাতি মেরামত কিংবা পরিবর্তন না করেই বিল দেখানো হয় ৭৪ লাখ ৯৮ হাজার টাকা। এসব বিল তুলে নেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ব্লেয়ার এভিয়েশন। এর মালিক মোকছেদুল ইসলাম। তিনি স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটার অধিকাংশ কাজ পাওয়া ঠিকাদার মোতাজ্জেরুল ইসলাম মিঠুর বড় ভাই।
দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) তৎকালীন সহকারী পরিচালক আমিরুল ইসলাম তদন্ত করেও এ দুর্নীতির তথ্যপ্রমাণ পান। এর পর তিনি ২০১৫ সালের ২৫ আগস্ট মোকছেদুল ইসলামসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দিনাজপুরের কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন।
আমিরুল ইসলামের অভিযোগপত্রে দেখা যায়, দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তকালে তিনি সরকারি যন্ত্রপাতি মেরামতকারী প্রতিষ্ঠান নিমিউর প্রকৌশলী আবুল হোসেনকে দিয়ে মেরামত করা যন্ত্রপাতি যাচাই-বাছাই করান। তার দেওয়া তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে যন্ত্রপাতি মেরামতে দুর্নীতির প্রমাণ মেলে। এরপরই আমিরুল ইসলাম মামলা করেন। তবে শেষ পর্যন্ত আমিরুল ইসলামের করা মামলাটি আর রাখেনি দুদক। ২০১৯ সালে দুর্নীতির মামলা থেকে অব্যাহতি পান মিঠুর ভাই মোকছেদুল।
দুদক সূত্র জানায়, আমিরুল ইসলামের মামলাটি পরে অধিকতর তদন্তের জন্য প্রথমে উপপরিচালক বেনজির আহমেদকে এবং পরে উপপরিচালক মোশারফ হোসেন মৃধাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। দীর্ঘ ছয় বছর পর ২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর তিনি একটি প্রতিবেদন দেন। এতে তিনি মেরামতকাজে কোনো দুর্নীতি ও আসামিদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের ঘটনা প্রমাণ হয়নি বলে উল্লেখ করেন। তার প্রতিবেদনের শেষে লেখা হয়েছে, ‘অনিয়ম পরিলক্ষিত হলেও আত্মসাতের অসৎ উদ্দেশ্য/আত্মসাতের ঘটনা পরিলক্ষিত হয়নি।’
দিনাজপুরের ঘটনার অর্থবছরেই (২০১৩-১৪) রংপুর সিভিল সার্জন অফিসের আওতায় সাত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যন্ত্রপাতি ক্রয়ের দরপত্র আহ্বান করা হয়। ওই দরপত্রে কাজ পায় মোকছেদুল ইসলামের আরেক প্রতিষ্ঠান কিউসোর্স। দরপত্রের কার্যাদেশ দেওয়া হয় ২০১৬ সালের ২৯ মে। পরদিন ৩০ মে সাত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জার্মানি, ব্রাজিল, কোরিয়া, ইউএসএ, তাইওয়ান, পোল্যান্ড, চীন ও জাপান- এই আটটি দেশের তৈরি যন্ত্রপাতি সরবরাহ দেখিয়ে মন্ত্রণালয় থেকে ২৪ কোটি ৮৮ লাখ ৯৯০ টাকা উত্তোলন করা হয়।
দুদকের সহকারী পরিচালক আমিরুল ইসলামের অনুসন্ধান প্রতিবেদনে বলা হয়, যন্ত্রপাতি সরবরাহ না করেই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে বিল প্রদান করা হয়েছে। কারণ, ২০১৬ সালের ২৯ মে কার্যাদেশ পাওয়ার পরদিন আটটি দেশের যন্ত্রপাতি আমদানি করে তা হাসপাতালে সরবরাহ করা সম্ভব নয়। এ ছাড়া তিনি অনুসন্ধানকালে সরবরাহকৃত যন্ত্রপাতির আমদানি-সংক্রান্ত কোনো রেকর্ডপত্রও পাননি বলে উল্লেখ করেন।
আমিরুল ইসলাম তদন্ত প্রতিবেদনে লিখেছেন, পরিদর্শনকালে অধিকাংশ মূল্যবান যন্ত্রপাতির গায়ে প্রস্তুতকারী দেশের খোদাই করা মনোগ্রাম পাওয়া যায়নি। পৃথক স্টিকারে প্রস্তুতকারী দেশের নাম যন্ত্রপাতির গায়ে আঠা দিয়ে লাগিয়ে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি বাজারদরের চেয়ে ১০ থেকে ১২ গুণ মূল্যে যন্ত্রপাতি সরবরাহ করা হয়েছে বলে ধারণা করে পরিদর্শন দল।
তদন্ত কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম চাকরি থেকে অবসরে চলে গেছেন। তিনি সমকালকে বলেন, দিনাজপুর ও রংপুরের হাসপাতালগুলোতে যন্ত্রপাতি কেনাকাটা ও মেরামত-সংক্রান্ত বিষয়গুলোর তদন্ত ও অনুসন্ধানে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যায়। এরপরই আমাকে রংপুর থেকে রাজশাহী বদলি করা হয়। পরে জানতে পেরেছি, অধিকতর তদন্ত করে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যায়নি।
আমিরুল ইসলাম বলেন, দিনাজপুরে সাত হাজার ৫০০ টাকায় ক্রয় করা একটি বেবি স্ক্যানার মেশিনের তিনটি যন্ত্রাংশ মেরামত বাবদ চার লাখ ১১ হাজার ৯০০ টাকা বিল দেখানো হয়। তার প্রমাণসহ মামলা করেছিলাম। রংপুরে কার্যাদেশ পাওয়ার পরদিন কীভাবে জার্মানি, ব্রাজিল, কোরিয়া, ইউএসএ, তাইওয়ান, পোল্যান্ড, চীন ও জাপান থেকে যন্ত্রপাতি আনা সম্ভব? এটিরও প্রমাণসহ মামলার সুপারিশ করেছি। কিন্তু পরে এই দুর্নীতিও নাকি প্রমাণ হয়নি।
এসব বিষয়ে জানতে ঠিকাদার মোকছেদুল ইসলামকে ফোন করা হলে তার ফোন নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। অন্য কোনোভাবেও যোগাযোগ স্থাপন করতে না পারায় এসব বিষয়ে তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটায় দুর্নীতির অভিযোগ এলেই প্রথম নাম আসবে ঠিকাদার মোতাজ্জেরুল ইসলাম মিঠুর। মহাজোট সরকারের টানা পাঁচ বছর তিনিই ছিলেন স্বাস্থ্য খাতের একচেটিয়া নিয়ন্ত্রক। সরকারি হাসপাতালে যন্ত্রপাতি কেনাকাটা থেকে শুরু করে কর্মকর্তা-কর্মচারী বদলি, পদায়ন ও পদোন্নতি সবকিছুই ছিল তার নিয়ন্ত্রণে। স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটার ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ কাজ পেত তার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কেনাকাটায় শত শত কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে যখন দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে, তখন তিনি হয় বিদেশে অবস্থান করেন অথবা অভিযোগ ওঠার পরপরই বিদেশ চলে যান। পরে ‘উচ্চ পর্যায়ে ম্যানেজ’ করে দেশে ফেরেন।
স্বাস্থ্য খাতের কয়েকজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ভাইয়ের নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান থাকলেও নিয়ন্ত্রক ছিলেন মিঠুই। তার ভাই স্বাস্থ্য খাতে পরিচিতও নন। মূলত ভাইসহ অন্য স্বজনের নামে প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে বছরের পর বছর অনৈতিক বাণিজ্য চালিয়ে গেছেন আলোচিত এই ঠিকাদার।
যেভাবে মিঠু ও তার ভাইয়ের অব্যাহতি :দুদকের কাগজপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, ২০১১-১২ অর্থবছরে ঠিকাদার মোতাজ্জেরুল ইসলাম মিঠুর বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত ৫০ কোটি ১৫ লাখ ৫১ হাজার ২৩৪ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ তদন্তে নামে দুদক। এ জন্য ২০১৩ সালের ২ ডিসেম্বর মিঠু ও তার স্বজনের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের হিসাব চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়। চিঠি পাওয়ার সাত কর্মদিবসের মধ্যে তাকে দুদকে সম্পদের হিসাব জমা দিতে বলা হয়। কিন্তু ২০১৫ সালের ২৬ জানুয়ারি মিঠুর পক্ষে তার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান লেক্সিকোন মার্চেন্ডাইজের এক কর্মকর্তা দুদকের চিঠি গ্রহণ করেন। অভিযোগকারী দুদকের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ সিরাজুল হক এ-সংক্রান্ত তদন্ত প্রতিবেদনে বলেন, হাইকোর্টের রিটের কারণে অনুসন্ধান কার্যক্রম স্থগিত থাকায় চিঠি পৌঁছাতে এ বিলম্ব হয়।
দুদক পরে মিঠু ও তার কর্মচারীর সাক্ষ্য গ্রহণ করে। এরপর জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ বিস্তারিত অনুসন্ধান করে দুর্নীতির প্রমাণ না পাওয়ার কথা উল্লেখ করে অনুসন্ধান কার্যক্রম সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। ২০১৭ সালের ১৯ ডিসেম্বর মিঠুকে অব্যাহতি দিয়ে মামলায় ‘চূড়ান্ত রিপোর্ট সত্য’ (এফআরটি) দাখিল করে দুদক। ২৮ ডিসেম্বর দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ সিরাজুল হক ওই এফআরটি আদালতে দাখিল করে মিঠুকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করেন। এর পর মিঠু মামলা থেকে অব্যাহতি পান।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুদকের এক কর্মকর্তা বলেন, সুনির্দিষ্ট অঙ্ক দিয়ে অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান শুরু করার পর যে প্রক্রিয়ায় আসামিকে অব্যাহিত দেওয়া হয়েছে, তা সন্দেহজনক। এর মধ্য দিয়ে প্রমাণ হয়, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানটি আইনের যথাযথ প্রয়োগ করছে না।
জানা যায়, ২০১৬ সালের ১১ সেপ্টেম্বর দুদকের (বি:অনু: ও তদন্ত-১ শাখা) উপপরিচালক ঋত্বিক সাহা স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে ঠিকাদার মিঠুর দুর্নীতি তদন্তে পৃথক সাতটি টিমের কাছ থেকে দুই সদস্যের একটি টিমের কাছে ন্যস্ত করা হয়। উপপরিচালক মো. ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী এ টিমের দলনেতা এবং সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ সিরাজুল হক সদস্য। এ টিমের তদারককারী কর্মকর্তা হিসেবে দুদক পরিচালক এ কে এম জায়েদ হোসেন খানকে নিয়োগ করা হয়।
ওই চিঠিতে ঠিকাদার মিঠুর মালিকানাধীন লেক্সিকোন মার্চেন্ডাইজ ও টেকনোক্র্যাট নামে দুটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সিন্ডিকেটভুক্ত ব্যক্তিদের নামে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে স্বাস্থ্য সেক্টরে বিভিন্ন সরবরাহ ও উন্নয়নমূলক কাজে একক আধিপত্য বিস্তার করে নামমাত্র কাজ করে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ এবং অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ করা হয়।
দুদকের দুই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সমকালকে বলেন, কমিটির কাছে নথি হস্তান্তরের পর মিঠুর দুর্নীতির বিরুদ্ধে অনুসন্ধানের বিষয়ে আর কিছু জানা যায়নি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে কমিটির সদস্য মোহাম্মদ সিরাজুল হক সমকালকে বলেন, তিনি ওই কমিটিতে এখন আর নেই। সুতরাং তিনি বিষয়টি সম্পর্কে কিছু জানেন না।
টিমের দলনেতা উপপরিচালক ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী সমকালকে বলেন, অনেক আগের ঘটনা হওয়ায় বিষয়টি তিনি মনে করতে পারছেন না।
সার্বিক বিষয়ে জানতে ঠিকাদার মোতাজ্জেরুল ইসলাম মিঠুকে ফোন করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। একটি সূত্র জানিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে মিঠু যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। এ কারণে তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।
দায়মুক্তির নেপথ্যে :দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ার পরও কীভাবে ঠিকাদার মিঠু ও তার ভাই একের পর এক দায়মুক্তি পেলেন- এমন প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে সমকালের অনুসন্ধানে কাজী শফিকুল আলম নামের দুদকের সাবেক এক পরিচালকের নাম উঠে এসেছে। ঠিকাদার মিঠুর সঙ্গে তার সখ্য স্বাস্থ্য খাতে বহুল আলোচিত। রাজধানীর বনানী ডিওএইচএসে ঠিকাদার মিঠুর স্ত্রীর নামে কেনা ফ্ল্যাটে শফিকুল আলম কয়েক বছর বসবাসও করেছেন। তার স্ত্রী তামান্না শান্তনুর দাখিল করা আয়কর রিটার্ন ফাইলে বসবাসের ঠিকানা হিসেবে ফ্ল্যাটটির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। সমকালের হাতে এ-সংক্রান্ত প্রমাণ আছে।
অভিযোগ আছে, মিঠু ও শফিকুল মিলে স্বজনদের নামে ব্যবসায়িক সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছিলেন। নিজেদের স্বজনদের নামে কয়েকটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানও করেন। এ কারণে মিঠু কিংবা তার ভাইয়ের নামে স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটায় কোটি কোটি টাকার দুর্নীতির কোনো অভিযোগ বা মামলা টেকেনি।
ঠিকাদার মিঠুর স্ত্রীর নামে কেনা বনানীর ফ্ল্যাটে বসবাসের কথা স্বীকার করেছেন কাজী শফিকুল আলম। তবে তিনি দাবি করেন, তার ভাই ফ্ল্যাটটি ভাড়া নিয়েছিলেন। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনার সৃষ্টি হলে তিনি ফ্ল্যাটটি ছেড়ে দেন।
অভিযুক্ত ব্যক্তির ফ্ল্যাটে থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে দুদকের সাবেক এই পরিচালক বলেন, ওই ঠিকাদারের কোনো ফাইল আমার কাছে ছিল না। এ ছাড়া তাকে অন্যায়ভাবে কোনো সুবিধা দেওয়ার বিষয়টি প্রমাণ হলে আমি অপরাধী। দুদকে চাকরি করার কারণে এ ধরনের অভিযোগ এসেছে। কিন্তু বিষয়টি কেউ প্রমাণ করতে পারেনি। দুদকে কাজ করার সময় আমি একক সিদ্ধান্ত নেওয়ার কেউ ছিলাম না। আমার ওপরে কমিশনার, চেয়ারম্যানসহ আরও অনেক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছিলেন। সুতরাং এটি আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ সমকালকে বলেন, তদন্তে যদি কোনো সমস্যা থাকে কিংবা কোনো বিষয় পরিসমাপ্তি হয়েছে, কিন্তু পরে নতুন করে তথ্য এলে ফের তা অনুসন্ধানের সুযোগ রয়েছে। দুর্নীতি দমন কমিশনের বিধি অনুযায়ী সেটি করার সুযোগ রয়েছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com