পূর্বাচলে বাণিজ্যমেলার পর্দা উঠবে ১ জানুয়ারি

পূর্বাচলে বাণিজ্যমেলার পর্দা উঠবে ১ জানুয়ারি

http://lokaloy24.com/

নতুন বছরের প্রথম দিন পূর্বাচলের বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে (বিবিসিএফইসি) শুরু হবে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৬তম আসর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেলা আয়োজনের অনুমতি দিয়েছেন। মাসব্যাপী এ মেলা উদ্বোধনের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সঙ্গে মেলায় অংশ নিতে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার পথে রয়েছে। এ জন্য সেখানে চলছে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সূত্র রোববার জানায়, মেলায় দর্শনার্থীদের যাতায়াতের জন্য রাজধানীর কুড়িল ফ্লাইওভার থেকে মেলা প্রাঙ্গণ পর্যন্ত বিআরসিটিসি বাসের ব্যবস্থা করা হবে। পাশাপাশি ডিসেম্বর মাসের মধ্যে পূর্বাচলের রাস্তা সংস্কার করে চলাচলের উপযোগী করা হবে।

ইপিবি সচিব ও মেলার পরিচালক ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী বলেন, দেশে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হওয়ায় বিবিসিএফইসিতে বাণিজ্য মেলা আয়োজনে ১৩ সেপ্টেম্বর ইপিবিকে চিঠি দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি ১ জানুয়ারি থেকে মেলা আয়োজনের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর সারসংক্ষেপ পাঠানো হলে তিনি অনুমতি দেন। আমাদের টেন্ডার প্রক্রিয়া চলছে। মেলায় অংশগ্রহণে ইচ্ছুক প্রতিষ্ঠানগুলো আবেদন করেছে। যাচাই-বাছাই করে অনুমোদন দেয়া হবে। এজন্য সব ধরনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করা হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী মেলা যেভাবে হয়, এবার বিবিসিএফইসিতে সেভাবে হবে।

তিনি আরও বলেন, কুড়িল ফ্লাইওভারের নিচ থেকে মেলা পর্যন্ত শাটল সার্ভিস চালু করার জন্য ইতোমধ্যে বিআরটিসিকে ৩০টি বাস চেয়ে চিঠি দিয়েছি। এখানে ন্যূনতম একটা ভাড়া থাকবে। পাশাপাশি পূর্বাচলের রাস্তা সংস্কার করে চলাচলের উপযোগী করা হবে। রাস্তা তৈরিতে সেনাবাহিনীর প্রকল্প পরিচালক বাণিজ্য সচিবের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন। সেখানে বলা হয়েছে, ডিসেম্বরের মধ্যে ১০ কিলোমিটার রাস্তা দুই লেন করে উভয়পাশে চার লেন ক্লিয়ার থাকবে। এখনই অনেক জায়গায় প্রধানসড়ক দিয়ে চলাচল করা যাচ্ছে। যদি প্রধানমন্ত্রী সরাসরি যান তাহলে এ সড়ক দ্রুতই তৈরি হয়ে যাবে।

ইপিবি সূত্র জানায়, এবারের বাণিজ্যমেলায় ভেতর ও বাইরে প্রায় তিনশ স্টল থাকবে। মেলা কেন্দ্রের ভেতরে মানুষ চলাচলের জন্য অধিক জায়গা ফাঁকা রাখা হবে। আর কেন্দ্রের বাইরে এক পাশে স্টল ও আরেক পাশে সৌন্দর্যের জন্য ফাঁকা রাখা হবে। মেলা কেন্দ্রের ভেতরে স্ক্রিন দিয়ে অন্যান্য দেশের মতো ছোট ছোট স্টল সীমানা দেয়া হবে। তবে ভেতরে প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের মতো করে প্রয়োজন অনুযায়ী ডেকোরেশন করবে। এখন পর্যন্ত মেলা কেন্দ্রের লেআউটে কিছুটা কারেকশন করা হয়েছে। তাই ভেতরে-বাইরে মিলে তিনশ স্টল থাকবে। ভেতরে ২৪টি প্রিমিয়াম স্টল আছে এরই মধ্যে ২২টি বরাদ্দ হয়েছে।

সূত্র জানায়, নতুন মেলা কেন্দ্রে বৃহৎ পরিসরে পার্কিং সুবিধা রয়েছে। তবে মেলার শৃঙ্খলার স্বার্থে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য কেন্দ্রের পাশেই রাজউকের পানির প্ল্যান্ট ভাড়া নেওয়া হয়েছে। সেখানেই এক হাজার গাড়ি পার্কিং হবে। দোতলা পার্কিং বিল্ডিংয়ের মোট পার্কিং স্পেস সাত হাজার ৯১২ বর্গমিটার। যেখানে ৫০০টি গাড়ি রাখা যাবে। আর এক্সিবিশন বিল্ডিংয়ের সামনের খোলা জায়গায় আরও এক হাজার গাড়ি পার্কিং করার সুযোগ রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com