পুলিশ রেবেকার সংসার ফিরিয়ে দিয়েছে

পুলিশ রেবেকার সংসার ফিরিয়ে দিয়েছে

বরগুনা: রেবেকার বাড়ি বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলার কাঁঠালতলি গ্রামে। দাম্পত্য কলহের জের ধরে স্বামীর সঙ্গে তাঁর বিচ্ছেদ ঘটে। স্বামীর ঘর ছেড়ে চলে যান বাবার বাড়ি। কিন্তু এর দু-এক দিন পরেই বুঝতে পারেন, তিনি অন্তঃসত্ত্বা। দিশেহারা হয়ে পড়েন এই নারী। উপায় খুঁজতে থাকেন। জানতে পারেন জেলা পুলিশের বিশেষ উদ্যোগের কথা। ‘জাগরণী’ নামের এই উদ্যোগ অসহায়, নির্যাতনের শিকার নারীর পাশে দাঁড়ায়, নারীকে সহায়তা দেয়।

রেবেকা যান জেলা পুলিশ সদর দপ্তরে। নিজের অসহায়ত্বের কথা জানান কর্মকর্তাদের। তাঁরা দুই পক্ষকে নিয়ে বসেন, সালিস করেন। স্বামীর সঙ্গে রেবেকার বিরোধ মিটে যায়। রেবেকা এখন স্বামীর সঙ্গেই আছেন।

পুলিশ বলছে, দেশের যেসব জেলায় নারী নির্যাতনের ঘটনা বেশি, দক্ষিণের জেলা বরগুনা সেগুলোর অন্যতম। আবার এই জেলাতেই আছে নির্যাতনের শিকার নারীদের সহায়তা দানের পুলিশের বিশেষ উদ্যোগ ‘জাগরণী: নারী সহায়তা কেন্দ্র’।

জেলা পুলিশ সুপার বিজয় বসাক প্রথম আলোকে বলেন, নির্যাতনের শিকার যেসব নারী এখানে এসেছেন, তাঁরা সুফল পেয়েছেন।

জাগরণী প্রতিষ্ঠিত হয়েছে জেলা পুলিশের উদ্যোগে। পুলিশ কর্মকর্তারা বলেছেন, মামলা পরিচালনার সামর্থ্য নেই অথবা মামলায় আগ্রহী নন এমন দরিদ্র, অসহায় ও নির্যাতনের শিকার নারীদের ভোগান্তি কমাতে পুলিশি সেবার মধ্য দিয়ে বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দাম্পত্য সমস্যা, পারিবারিক সমস্যা, ইভ টিজিং ও বখাটেদের উৎপাত, স্ত্রী-সন্তান বা বাবা-মায়ের খোঁজখবর না রাখা, খোরপোশ না দেওয়া—এসব বিষয় নিয়ে কাজ করছে ‘জাগরণী: নারী সহায়তা কেন্দ্র’।

বিজয় বসাক বলেন, ‘আত্মসম্মানের ভয়ে, লোকলজ্জায় অনেকে নির্যাতিত হয়েও মুখ খুলতে চান না। অনেকে থানায় পুলিশের কাছে অভিযোগ করতে চান না। তাঁদের কথা মাথায় রেখেই আমাদের এই উদ্যোগ। নারীবান্ধব পরিবেশে গোপনে ও নিরাপদে একজন নারী অভিযোগ, কষ্টের কথা এই কেন্দ্রে এসে বলতে পারেন।’

২০১৬ সালের ১২ নভেম্বর জেলা পুলিশের কার্যালয়ে ‘জাগরণী: নারী সহায়তা কেন্দ্র’ উদ্বোধন করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ মো. হাছানুজ্জামান এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. জুলফিকার আলী খান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মো. হাছানুজ্জামান বলেছিলেন, উদ্যোগটি সঠিকভাবে পরিচালিত হলে নারী নির্যাতনের হার কমে আসবে। কমবে মামলার জটও।

জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত ২৩৭টি পারিবারিক নির্যাতন, ১১টি যৌতুক, ১৯টি ইভ টিজিং, ২২টি বাল্যবিবাহের অভিযোগসহ প্রায় ৩০০ অভিযোগের কার্যকর সমাধান করেছে এই কেন্দ্র। পাশাপাশি ৮টি অভিযোগ নিয়মিত মামলা হিসেবে দায়ের করা হয়েছে। ১১টি অভিযোগ আইনি সহায়তা দিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে ২৩টি অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য প্রক্রিয়াধীন আছে।

বরগুনা জেলা পুলিশের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের অধীনে এ সহায়তা কেন্দ্রের দায়িত্ব আছেন একজন নারী উপপরিদর্শক (এসআই)। আছে পাঁচ সদস্যের অভিযোগ গ্রহণ কমিটি। এ ছাড়া স্থানীয় সমাজসেবক, উন্নয়নকর্মী, আইনজীবী, গণমাধ্যমকর্মী, নারীনেত্রীসহ ২৫ সদস্যের একটি স্বেচ্ছাসেবক দল এই কেন্দ্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত।

কেন্দ্রের ব্যাপারে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের বরগুনা জেলা শাখার সভাপতি নাজমা বেগম প্রথম আলোকে বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাধ্যমে ব্যতিক্রমী এ নারী সহায়তা কেন্দ্র নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধের পাশাপাশি নারীর নিরাপত্তায় নতুন এক মাত্রা যোগ করেছে। সারা দেশে এমন উদ্যোগ গ্রহণ করা হলে নারী নির্যাতন কমবে।

বরগুনা পুলিশের এই উদ্যোগ পুলিশ প্রশাসনের সর্বোচ্চ মহল থেকে স্বীকৃতি পেয়েছে। জাগরণী: নারী সহায়তা কেন্দ্রের সমন্বয়কারী এসআই জান্নাতুল ফেরদৌসী ২০১৭ সালে বাংলাদেশ উইমেন পুলিশ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন।

বরগুনা সদর উপজেলার দক্ষিণ মনসাতলী গ্রামের আলেয়ার স্বামী নেশাগ্রস্ত ছিলেন। স্বামীর নির্যাতনে অসুস্থ হয়ে পড়েন আলেয়া। তাঁর স্বজনেরা অভিযোগ করেন নারী সহায়তা কেন্দ্রে। কেন্দ্রের পক্ষ থেকে আলেয়া ও তাঁর স্বামীকে ডেকে পাঠানো হয়। শাসন-বারণ-পরামর্শে স্বামী সুস্থ হয়ে ওঠেন। নিজের ভুলও বুঝতে পারেন। আলেয়া বলেন, ‘জাগরণী সহায়তা কেন্দ্র না থাকলে আমার সংসার ভেঙে যেত। নেশাগ্রস্ত স্বামীর নির্যাতনে হয়তো আমি মারাই যেতাম।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com