সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
পুলিশ পরিচয়ে একের পর এক কাশ্মীরি তরুণকে তুলে নেওয়া হচ্ছে!

পুলিশ পরিচয়ে একের পর এক কাশ্মীরি তরুণকে তুলে নেওয়া হচ্ছে!

পুলিশ পরিচয়ে একের পর এক কাশ্মীরি তরুণকে তুলে নেওয়া হচ্ছে!
পুলিশ পরিচয়ে একের পর এক কাশ্মীরি তরুণকে তুলে নেওয়া হচ্ছে!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন এলাকা থেকে এ পর্যন্ত অন্তত ৪১০০ জনকে গ্রেপ্তার বা আটক করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। ৬০৮ জনের বিরুদ্ধে বিতর্কিত জন নিরাপত্তা আইনে মামলা দেওয়া হয়েছে।

আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে জানা যায়, আটকদের প্রায় সকলকেই উপত্যকার বাইরে উত্তর প্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের জেলে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

স্থানীয় এক পুলিশ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানানো হয়, ধারাবাহিক এই গ্রেপ্তারি অভিযান এখনো চলছে। আটকের সংখ্যা আরও বাড়বে।

তিনি জানান, গ্রেপ্তার হওয়ারা মূলত তরুণ। রাজনৈতিক নেতা, হুরিয়ত নেতা, বিভিন্ন নাগরিক ও ব্যবসায়িক সংগঠনের নেতা— প্রশাসন যাদের ‘বিপজ্জনক’ মনে করেছেন, তাদেরই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সরকারিভাবে আটকের সংখ্যা জানানো না হলেও প্রশাসনিক সূত্রে খবর, আটকের প্রকৃত সংখ্যা ৪১০০ এর অনেক বেশি। বিভিন্ন থানার লক-আপ ভরে যাওয়ার পরে অনেককে নিরাপত্তা বাহিনীর শিবিরগুলোতে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, যাদের সংখ্যা পত্রিকাটিতে জানাতে পারেনি ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

বন্দীদের সঙ্গে কাউকে দেখা করতে দেওয়াও হচ্ছে না। অনেক পরিবারই জানে না নিরাপত্তা বাহিনী তুলে নিয়ে যাওয়ার পরে তাদের সন্তানরা কোথায় আছে।

প্রশাসনের মুখপাত্র প্রিন্সিপাল সচিব রোহিত কনসাল অবশ্য এই গ্রেপ্তার অভিযানকে গুরুত্ব দিতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘‘আটক করা হচ্ছে, ছেড়ে দেওয়াও হচ্ছে। থানা পর্যায়ে এমন প্রক্রিয়া চলছেই।’’

৫ আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের মাধ্যমে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেওয়া হয়। এর মাধ্যমে অঞ্চলটি কার্যত পুরোপুরি দখলে নিয়ে নিল ভারত। ইতিহাসের সবচেয়ে কঠোর সামরিক পরিস্থিতি জারি করা হয়েছে সেখানে। মোবাইল নেটওয়ার্ক, ইন্টারনেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এ কারণে উপত্যকার বাইরের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলতে লম্বা পথ পাড়ি দিয়ে প্রশাসনের ঠিক করা টেলিফোন বুথের সামনে লাইন দিচ্ছেন উদ্বিগ্ন কাশ্মীরিরা। দোকান-পাট, বাজার, এমনকি ওষুধের দোকানও বন্ধ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com