পুলিশের সব দাবি-দাওয়াই মেনে নিলেন প্রধানমন্ত্রী

পুলিশের সব দাবি-দাওয়াই মেনে নিলেন প্রধানমন্ত্রী

পুলিশের সব দাবি-দাওয়াই মেনে নিলেন প্রধানমন্ত্রী
পুলিশের সব দাবি-দাওয়াই মেনে নিলেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা- পুলিশ সপ্তাহের অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের দাবি-দাওয়া মনযোগ দিয়ে শুনলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় পুলিশ সদস্যদের জন্য বিভিন্ন ভাতা, ক্রীড়া কমপ্লেক্স স্থাপন, আলাদা মেডিক্যাল কোরসহ উত্থাপিত সব দাবি পূরণে ইতিবাচক আশ্বাসও দিয়েছেন তিনি।

সোমবার থেকে শুরু হওয়া পুলিশ সপ্তাহ আগামী বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত চলবে। এদিন সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স মাঠে বর্ণাঢ্য বার্ষিক পুলিশ প্যারেডের মধ্য দিয়ে পুলিশ সপ্তাহের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই উদ্বোধনী শেষে রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত কল্যাণসভা দুপুর দেড়টায় শুরু হয়ে আড়াইটায় শেষ হয়। এই সভায় প্রধানমন্ত্রীর সামনে পুলিশ সদস্যরা তাদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া তুলে ধরেন। সভায় পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

কল্যাণসভায় উপস্থিত কর্মকর্তারা জানান, পুলিশ সদস্যদের উত্থাপিত সব দাবিই মেনে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুধু আজীবন রেশন দেওয়ার বিষয়টি সক্রিয়ভাবে বিবেচনায় রাখবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

দাবিগুলোর বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএমপির একজন উপকমিশনার বলেন, পুলিশের জন্য আলাদা মেডিকেল কলেজের বিষয়টি জোরালো ভূমিকা পেয়েছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, পুলিশের আলাদা একটি মেডিকেল কলেজ করা হবে। এটি নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। পুলিশের জন্য স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়ন করতে হবে। এজন্য ঢাকার পাশাপাশি বিভাগীয় পর্যায়ে কিভাবে চিকিৎসা সেবাটা পুলিশ ও পুলিশ পরিবারের সদস্যরা হাতের নাগালে সাশ্রয়ীভাবে পেতে পারেন, সে চিন্তাও করা হয়েছে। প্রথম অবস্থায় বিভাগীয় পর্যায়ে অন্তত একটি করে হাসপাতাল নির্মাণের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। পরবর্তী সময়ে প্রয়োজনে বিভাগীয় পর্যায়েও পুলিশ মেডিকেল কলেজের শাখা খোলা হবে। এ ব্যাপারে সরকার চিন্তা করছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আশা করি, আমাদের এ দাবি শিগগিরই পূরণ হবে।

অন্যান্য দাবির ব্যাপারে পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন, যানবাহন, রেশন, ঝুঁকি ভাতা, আবাসন, নিজস্ব থানা ভবন রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব দাবি শুনেছেন এবং পর্যায়ক্রমে তা পূরণের আশ্বাস দিয়েছেন। এরই মধ্যে বসুন্ধরায় বিশাল এলাকাজুড়ে এসআই থেকে শুরু করে ঊর্ধ্বতন পুলিশ সদস্যদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা গড়ে উঠছে। আরও আবাসনের ব্যবস্থা করার জন্য কাজ করা হচ্ছে। থানার নিজস্ব ভবন নির্মাণকাজ এগিয়ে যাচ্ছে। জনসংখ্যার সঙ্গে তাল মিলিয়ে সেবা বাড়াতে নতুন নতুন থানা উদ্বোধন করা হচ্ছে।

ডিআইজি পদমর্যাদার একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণের আগে ও পরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রেখে ভোটের মাধ্যমে সরকারের অগ্রযাত্রাকে ত্বরান্বিত করতে শুরুতেই প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা পুলিশ সদস্যদের ধন্যবাদ দেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন পুলিশের কাজ হচ্ছে নিরপত্তা সঠিকভাবে বজায় রেখে জনগণের সেবায় এগিয়ে আসা।

এর আগে, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্যারেড গ্রাউন্ডে উপস্থিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, জঙ্গি দমনে বাংলাদেশের পুলিশ এখন রোলমডেল। সন্ত্রাস দমন, জঙ্গি নির্মূল ও মাদক নিয়ন্ত্রণে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান তিনি।

পুলিশের হাতে যেন কোনো নিরীহ মানুষ হয়রানির শিকার না হন, সেদিকে খেয়াল রাখার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে। পুলিশের প্রত্যেক সদস্যের ওপর অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে পালনের মাধ্যমে জনগণের আস্থা অর্জন করে আপনারা জনবান্ধব পুলিশে পরিণত হবেন— এটাই আমার প্রত্যাশা।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com