পীরগঞ্জে ট্রেনের টিকিট দালালরা সক্রিয়

পীরগঞ্জে ট্রেনের টিকিট দালালরা সক্রিয়

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ রেলষ্টেশনে সক্রিয় হয়ে উঠেছে ট্রেনের টিকিট দালালদের সিন্ডিকেটের চক্রে কাউন্টারে ও অনলাইনে টিকিট না মিললেও নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে আড়াই গুন চড়া দামে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট পাওয়া যাচ্ছে কালোবাজারিদের কাছ থেকে। ৫শ টাকার টিকিট ১২শ টাকায় কিনতে হচ্ছে যাত্রীদের। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন ঢাকাগামী রেলযাত্রীরা। ক্ষোভ দেখা দিয়েছে রেলযাত্রীসহ সাধারণ মানুষের মাঝেও।

যাত্রীদের অভিযোগ, ষ্টেশন মাষ্টারের সহযোগীতায় সব টিকিট হাতিয়ে নিচ্ছে চক্রটি। তবে অভিযোগ বিষয়ে মতামত জানতে ষ্টেশন গিয়েও মাষ্টার মুক্তার হোসেন কে পাওয়া যায়নি। জানা যায়, পঞ্চগড়-ঠাকুরগাঁও-পীরগঞ্জ-দিনাজপুর হয়ে ঢাকা রেল রুটে প্রতিদিন তিনটি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করে। পঞ্চগড় থেকে ছেড়ে আসা দ্রুতজান এক্সপ্রেস সকাল ৯ টা ১৮ মিনিটে, পঞ্চগড় এক্সপ্রেস দুপুর ১.৩৫ মিনিটে একতা এক্সপ্রেস রাত ১০টা ১৮ মিনিটে পীরগঞ্জ রেল ষ্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। পীরগঞ্জ, রাণীশংকৈল ও হরিপুর উপজেলার যাত্রীরা এ ষ্টেশন থেকেই ট্রেনে উঠা নামা করে। এ তিনটি উপজেলার যাত্রীদের জন্য এ ষ্টেশনে পঞ্চগড় এক্সপ্রেসের ২৪টি, দ্রুতযানের ১২টি এবং একতা’র ২২টি আসন বরাদ্দ রয়েছে। তবে এখন করোনা কালীন সময়ে বরাদ্দের অর্ধেক আসনে যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে। এ ষ্টেশনে ঢাকাগামী আন্তনগর ট্রেনগুলির জন্য যে পরিমান আসন বরাদ্দ রয়েছে তা প্রয়োজনের তুলানায় অতি নগন্য। রেল ভ্রমন নিরাপদ ও আরাম দায়ক হওয়ার কারণে এ ষ্টেশনে ট্রেনের টিকিট পেতে যাত্রীরা প্রতিনিয়ত হুমড়ি খেয়ে পড়েন। কিন্তু সাধারণ কোন যাত্রীই ষ্টেশন কাউন্টার থেকে ঢাকা যাওয়ার নির্ধারিত আসনের টিকিট পান না। টিকিট নিতে গেলেই কাউন্টার থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় টিকিট নেই। তবে বাড়তি টাকা দিতে চাইলে টিকিট কালো বাজারীদের মাধ্যমে পাওয়া যায়। এ ক্ষেত্রে ৫’শ টাকার টিকিটের জন্য যাত্রীদের গুনতে হয় এক হাজার থেকে ১২’শ টাকা। অভিযোগ রয়েছে, ষ্টেশন মাষ্টার মুক্তারুল ইসলাম ভ্রমনের চার দিন আগেই কাউন্টারের সব টিকিট কালোবাজারে দুই থেকে আড়াই’শ টাকা অধিক মুল্যে বিক্রি করে দেন। কালোবাজারিরা কাউন্টারের ঐ সব টিকিট যাত্রীদের নিকট বিক্রি করেন চড়া দামে। কর্তৃপক্ষের সহায়তায় ষ্টেশন চত্বরেই প্রকাশ্যে উচ্চ মুল্যে টিকিট বিক্রি এসব টিকিট করা হয়। যেন দেখার কেউ নেই। জগথা মহল্লার বাবুল নামে এক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, তার বোন-ভগ্নিপতি ৬ জুন ট্রেনে ঢাকায় যাবেন। তিনটা টিকিট সংগ্রহের জন্য তিনি চার দিন অগে থেকেই ষ্টেশনে যোগাযোগ করেন। কিন্তু কাউন্টার থেকে কোন টিকিট পাননি। পরে কালোবাজরিদের কাছ থেকে ৫’শ টাকার টিকিট ১২’শ টাকা করে কিনতে বাধ্য হন। ১২’শ টাকা করে কেনা তার তিনটি টিকিটের মধ্যে দুইটিই পীরগঞ্জ ষ্টেশন কাউন্টার থেকে ইস্যু করা। অপরটি অন লাইনে সংগৃহিত। নিজামউদ্দীন নামে এক যাত্রী জানান, ট্রেনের টিকিট কাটার জন্য ষ্টেশন কাউন্টারে অনেকবার গেছি। একবারও টিকিট পাইনি।
সঞ্জয় রায় নামে অরেক জন জানান, কালোবাজারিরা একটি টিকিট চড়া দামে একাধিক যাত্রীর কাছে বিক্রি করছেন। এতে ট্রেনে বসার আসন নিয়ে ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে অনেককে। যা মরার উপর খাড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে। শুধু বাবুল, নিজামউদ্দীন বা সঞ্জয়াই নয়, তার মত অসংখ্য রেল যাত্রীর অভিযোগ ষ্টেশন কাউন্টারে টিকিট পাওয়া যায়ন না। কালোবাজারে অধিক টাকায় ঠিকই পাওয়া যায়। পীরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নসরতে খোদা রানা জানান, ষ্টেশন কাউন্টারে যাত্রীরা ঢাকার কোন টিকিটই পায় না। চড়া দামে কালোবাজারে কিনতে হয়। মানুষ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। কতিপয় দুর্নীতি বাজের কারণে সুমান নষ্ট হচ্ছে রেলের। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ বিষয়ে ষ্টেশন মাষ্টার মুক্তার হোসেন মতামত জানতে বুধবার দুপুরে ষ্টেশনে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com