পাখির ‘স্বর্গরাজ্যে’ স্বাগতম

পাখির ‘স্বর্গরাজ্যে’ স্বাগতম

পাখির ‘স্বর্গরাজ্যে’ স্বাগতম
পাখির ‘স্বর্গরাজ্যে’ স্বাগতম

লোকালয় ডেস্কঃ প্রায় ১০০ বিঘা আয়তনের ঝাউবন, ঘন বাঁশঝাড়, জঙ্গল আর কয়েক শ বিঘা আয়তনের ডঙর বিল অর্ধশত প্রজাতির পাখির নিরাপদ আশ্রয়।

গ্রামের নাম আকন্দপাড়া। নিজের খেতে লাঙল দিয়ে চাষ করছিলেন প্রশান্ত ঘোষ। লাঙলের আশপাশে ওড়াউড়ি করছিল বক, শালিক, ঘুঘুসহ নানা জাতের পাখি। শুধু কি তাই, এই গ্রামের বিলে, রাস্তার ধারে, পুকুরপাড়ে, বসতবাড়ির গাছের ডালে ডালে পাখি আর পাখি। কলরবে মুখর গ্রাম। পাখিগুলোকে সন্তানের মতো আগলে রাখেন গ্রামের বাসিন্দারা। পাখি আর মানুষে দারুণ সখ্য।

বগুড়ার গাবতলী উপজেলার নেপালতলী ইউনিয়নের এই গ্রামেশত বছর ধরে চলছে পাখি ও মানুষের এই মিতালি। এখানে গড়ে উঠেছে ‘আকন্দপাড়া-ডঙর বিল নিরাপদ অভয়াশ্রম’। প্রায় ১০০ বিঘা আয়তনের ঝাউবন, ঘন বাঁশঝাড়, গাছগাছালির জঙ্গল আর পাশের কয়েক শ বিঘা আয়তনের ডঙর বিল প্রায় অর্ধশত প্রজাতির পাখির নিরাপদ আশ্রয়। এক স্বর্গরাজ্য। শীতের মৌসুমে এই অভয়াশ্রমে আসে হরেক প্রজাতির পরিযায়ী পাখি।

এই পাখির রাজ্যে সবাইকে স্বাগত। তবে কোনোভাবেই পাখিকে উপদ্রব করা চলবে না। শিকার নিষিদ্ধ। চলবে না বন্দুক, ইয়ারগান ও ফাঁদ বহন করা। পাখিশিকারিদের ঠেকাতে এখানে আছে ৫০ সদস্যের কমিটি। পাখি রক্ষা ও শিকারিদের প্রতিরোধে চলছে সাইনবোর্ড ও পোস্টার টানানো। আয়োজন করা হয় পাখিবিষয়ক সচেতনতামূলক সভা ও সমাবেশ। গ্রামের বাসিন্দাদের উদ্বুদ্ধ করেন বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের দর্শন বিভাগের শিক্ষক মো. ফজলে বারী। তিনি আকন্দপাড়া-ডঙর বিল, পাশের জয়ভোগা জঙ্গলে ‘পাখির ভিটা’ অভয়াশ্রম গড়াসহ গোটা গাবতলী উপজেলাকে পাখির অভয়াশ্রম এবং বন্য প্রাণী রক্ষায় প্রায় দেড় যুগ ধরে সামাজিক আন্দোলন করছেন।

গত রোববার সকালে আকন্দপাড়ায় পাখির অভয়াশ্রমে গিয়ে দেখা গেছে, আকন্দপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছন থেকে দক্ষিণপাড়া পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার দীর্ঘ বাঁশঝাড় ও ঝাউবন। এই বাঁশঝাড় ও গাছের ডালপালা, লতাপাতা ও ঝাউ জঙ্গলে বাসা বেঁধেছে হরেক প্রজাতির পাখি।

গ্রামবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, খুব ভোরে পাখিরা জেগে ওঠে। কিচিরমিচির করে। এক স্বর্গীয় পরিবেশের সৃষ্টি হয়। পাখিগুলো ডানা মেলে ওড়ে। পোকামাকড়সহ খাদ্যের খোঁজে মাটিতে নামে। উড়ে যায় বিলে। সন্ধ্যার আগে আগে ঝাঁকে ঝাঁকে পাখি ফিরে আসে নীড়ে। যুগ যুগ ধরে তাঁরা পরম মমতায় এসব পাখির দেখভাল করে আসছেন। কিন্তু এরপরও শিকারিরা বন্দুক, ইয়ারগান, ফাঁদ পেতে পাখি হত্যা করতেন। ২০১৫ সালে পাশের গ্রামের কলেজশিক্ষক ফজলে বারী আকন্দপাড়া-ডঙর বিল পাখিদের নিরাপদ অভয়াশ্রম ঘোষণা করেন। শিকারিদের ঠেকাতে গঠন করেন আকন্দপাড়া-ডঙর বিল বন্য প্রাণী সংরক্ষণ কমিটি। গ্রামে শিকারি এলে প্রথমে তাঁদের বুঝিয়ে বলা হয়। এতে কাজ না হলে প্রশাসনকে খবর দেন কমিটির সদস্যরা। এখন শিকারিরা আকন্দপাড়ায় পা মাড়ান না।

আকন্দপাড়া গ্রামের ৭০ বছর বয়সী সম্বরণ ঘোষ বলেন, লোকালয় ঘেঁষে বাঁশঝাড় ও জঙ্গলে পাখি বাসা তৈরি করে। শত বছর ধরে এখানে পাখি বসবাস করছে। একসময় শত প্রজাতির পাখি ছিল। এখনো অর্ধশত প্রজাতির পাখির দেখা মেলে এখানে।

গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি সন্তোষ কুমার বিশ্বাস বলেন, এই গ্রামে প্রায় ৩০০ পরিবারের বাস। বংশপরম্পরায় মানুষে ও পাখিতে সখ্য। পাখির বিষ্ঠা ছড়ায় লোকালয়ে। তবে কেউ তাতে বিরক্ত হয় না। পাখির দেখভাল করে। নিজেরা কেউ পাখিকে বিরক্ত করে না।

গ্রামের গৃহবধূ কান্তি রানী বলেন, ‘বাড়ির পাশে বাঁশঝাড়ে কয়েক হাজার বক, সারসসহ হরেক প্রজাতির পাখির বাস। ক্ষুধা পেলে অনেক পাখি উঠানে আসছে। চাল, খুদ, ভাত খায়। অন্য রকম এক মায়া পড়েছে পাখির ওপর। ওরাও আমার সন্তানের মতোই আপন।’

আকন্দপাড়া বন্য প্রাণী সংরক্ষণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও স্কুলশিক্ষক সুবীর কুমার ঘোষ বলেন, কোনো পাখি অসুস্থ হলে চিকিৎসা ও খাবার দিয়ে পরিচর্যা করেন।

অভয়াশ্রমে যত পাখি
আকন্দপাড়া-ডঙর বিল অভয়াশ্রমে ঠিক কত ধরনের এবং কতগুলো পাখি রয়েছে, তার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান জানা নেই গ্রামবাসীর। তবে তাঁদের দাবি, এখানে ৫০ থেকে ৬০ প্রজাতির পাখি রয়েছে। সরেজমিনে দেখে এবং স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এখানে আবাস গড়েছে হাজার হাজার সাদা বক, কানি বক, জাঠা বক, পানকৌড়ি ও বালিহাঁস। আছে ঘুঘু, ডাহুক, দোয়েল, কোঁড়া, টিয়া, শ্যামা, বাদুড়, সারস, কোকিল, বউ কথা কও, টুনটুনি, চিল, ভুবন চিল, শালিক, হুতোম প্যাঁচা, লক্ষ্মীপ্যাঁচা, নিমপ্যাঁচা, দেশি টিয়া, কালো তিতির, কালো ফিঙে, মাছরাঙা, চড়ুই, চখাচখি, সিপাহি বুলবুল, চাতক, দাঁড়কাক, দাগি নাটাবটের, ধলা মানিকজোড়, পাতাঠুঁটি ও রাজধনেশ, পাতা সরালি, বড় বসন্ত বাউরি, বাবুই, মদনটাক, বাংলা নীলকান্ত, সবুজ সুইচোরা, চন্দনা।

পাখিপ্রেমী ফজলে বারী বলেন, ‘গাবতলীর আকন্দপাড়া-ডঙর বিলের পারে জয়ভোগা গ্রামে শৈশব কেটেছে। ২০০৯ সালে লক্ষ করি জয়ভোগা পাখি ভিটায় পাখির আকাল। ডঙর বিল থেকে পাখিরা অন্য দলের সঙ্গে আকন্দপাড়ায় আবাস গড়েছে। আকন্দপাড়ায় তখন শিকারিদের উৎপাতে পাখিরা অতিষ্ঠ। ডঙর বিলে ফাঁদ আর বন্দুক দিয়ে পাখি নিধন হতো। এসব পাখি প্রকাশ্যে বিক্রি হতো হাটবাজারে। এরপর প্রতিরোধ গড়ে তুলি।’

ইউএনও মো. মনিরুজ্জামান বলেন, পাখির সঙ্গে এমন বন্ধুত্বপূর্ণ সহাবস্থানের মধ্য দিয়ে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন আকন্দপাড়া গ্রামের লোকজন। পাখি রক্ষায় প্রশাসন সব সময় তাঁদের পাশে আছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com