পাঁচতলা থেকে ফেলে নবজাতক হত্যা: ভুল ছবি প্রকাশে অতিষ্ঠ এক তরুণীর জীবন

পাঁচতলা থেকে ফেলে নবজাতক হত্যা: ভুল ছবি প্রকাশে অতিষ্ঠ এক তরুণীর জীবন

পাঁচতলা থেকে ফেলে নবজাতক হত্যা: ভুল ছবি প্রকাশে অতিষ্ঠ এক তরুণীর জীবন
পাঁচতলা থেকে ফেলে নবজাতক হত্যা: ভুল ছবি প্রকাশে অতিষ্ঠ এক তরুণীর জীবন

লোকালয় ডেস্কঃ গত ২৫ মে রাজধানীর মিরপুরে নিজের সদ্যোজাত সন্তানকে পাঁচতলা থেকে নিচে ফেলে হত্যা করেন এক কিশোরী মা। রূপনগর আবাসিক এলাকার ১০ নম্বর রোডের ১৮ নম্বর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের দেয়া তথ্য মতে, দূরসম্পর্কের এক চাচার সাথে অনৈতিক মেলামেশার ফলে অনাকাঙ্খিতভাবে বাচ্চাটির জন্ম হয়। ফলে লোক লজ্জার ভয়ে সবার চোখের আড়ালে প্রসবের পর বাচ্চাটিকে বাথরুমের ভেন্টিলেটর দিয়ে বাইরে ফেলে দেন মা।

ঘটনার পর ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ অভিযুক্ত কিশোরী মাকে আটক করে। আটক অবস্থায় তিনি নিজের অপরাধ স্বীকার করেন। পরে ওই মাকে পুলিশ নিজেদের হেফাজতে চিকিৎসা দিয়েছে।

কিশোরী মায়ের পরিচয় প্রকাশ না করার স্বার্থে বেশিরভাগ সংবাদমাধ্যম তাদের প্রতিবেদনে তার ছদ্মনাম ব্যবহার করে ‘জান্নাতুন নেছা’। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। সেই মামলায় জান্নাতুন নেসার মা, মায়ের দ্বিতীয় স্বামী এবং স্বামীর ছোট ভাইকে আসামি করা হয়েছে।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে ‘সংগৃহীত’ সূত্রে ‘জান্নাতুন নেছার ছবি’ বলে একজন তরুণীর ছবি প্রকাশ করে। কোথাও ছবিটিতে চেহারা ‘ব্লার’ (ঝাপসা) করা হয়েছে। আবার কোথাও করা হয়নি।

কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, ওই ছবিটি নিজের সন্তান হত্যাকারী কিশোরী মায়ের নয়। এটি শ্রাবন্তী অনন্যা নামে এক তরুণীর ছবি। আর এ ঘটনায় শ্রাবন্তী অনন্যা নামে ওই তরুণী রাজধানীর খিলক্ষেত থানায় ও ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ডিভিশনের সাইবার ক্রাইম ইউনিট কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এছাড়া এ ঘটনায় “মিথ্যা ছবি প্রচার এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই” ক্যাপশন দিয়ে গত মঙ্গলবার রাতে ফেসবুক লাইভে আসেন শ্রাবন্তি আক্তার। জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিটি তার। কিন্তু ঘটনার সাথে জড়িত জান্নাতুন নিছা তিনি নন। আর ঘটনার আসামিকে পুলিশ আটক রেখেছে। কিন্তু শ্রাবন্তি মুক্ত।

শ্রাবন্তী অনন্যা লাইভে এসে মিরপুরের সেদিনের ঘটনার বিবরণ দিয়ে জানান, ওই ঘটনায় কয়েকটি অনলাইন পোর্টালের প্রতিবেদনে ভুলভাবে তার একটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে সন্তান হত্যাকারী কিশোরী মা হিসেবে।

এই তরুণী বলেন, “আমি দেখেছি কিছু অনলাইন নিউজে আমার ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। নিউজ ঠিক আছে। কিন্তু ছবিটা আমার ব্যবহার করা হয়েছে। এতে আমি সামাজিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ও মানসিকভাবে আহত হয়েছি। কালকে থেকে আমার ঘুম নেই, খাওয়া নেই। কেন আমি একটা মিথ্যা অপবাদ নিয়ে সমাজে চলবো?”

শ্রাবন্তী জানান, তার ঘনিষ্ঠজনদের পরামর্শে খিলক্ষেত থানায় এ বিষয়ে একটি জিডি করেছেন। লাইভে সেই জিডির কপিও দেখান তিনি।

উদ্বিগ্ন এই তরুণী আরও বলেন, “সবাই তো আর নাম জিজ্ঞাসা করবে না। সবাই ছবিটাই দেখবে। আমি রাস্তায় বের হলে মানুষ বলবে, এই মেয়েটাই তার সন্তানকে মেরে ফেলেছে। আমি কেন এই অপবাদ নিয়ে সারাজীবন চলবো। এজন্য আমি জিডি করেছি। আমি এর বিচার চাই। সবার কাছে অনুরোধ করছি আপনারা যারা ছবিটি বা এ সংক্রান্ত নিউজ শেয়ার করেছেন তারা সেটি ডিলিট করে দেন।”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com