পদত্যাগ করছেন মুহিউদ্দীন ইয়াসিন, মালয়েশিয়ার নতুন প্রাধানমন্ত্রী কে?

পদত্যাগ করছেন মুহিউদ্দীন ইয়াসিন, মালয়েশিয়ার নতুন প্রাধানমন্ত্রী কে?

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক:

জনগণের চাওয়া ও রাজনৈতিক দলের চাপে অবশেষে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মালয়েশিয়ার প্রাধানমন্ত্রী তান সেরি মুহিউদ্দিন ইয়াছিন।

২০২০ সালে মালয়েশিয়ার পার্লামেন্ট সদস্যদের ভোটে সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করেন মুহিউদ্দিন ইয়াসিন। ১৭ মাসের ক্ষমতায় থাকার পরে ব্যর্থতার অভিযোগ নিয়ে এ পদত্যাগের সিদ্ধান্ত।

ঘনিষ্ঠ সূত্রে বরাতে বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানায়, রোববার সকাল সরকারি জোট পেরিকাতান ন্যাশনালের সদর দফতরে অনুষ্ঠিত সভায় উক্ত ঘোষণা দেন প্রাধানমন্ত্রী। এমনি তথ্য জানা গেছে মালয়েশিয়ার বিভিন্ন গণমাধ্যমে।

সোমবার মালয়েশিয়ার রাজা আল সুলতান আব্দুল্লাহর বরাবর তিনি পদত্যাগপত্র পেশ করবেন উল্লেখ করেন মন্ত্রী সভার জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী মোহদ রেদজুয়ান মোহাম্মদ ইউসুফ। সোমবার মন্ত্রী সভার বৈঠক শেষে তিনি পদত্যাগপত্র জমা দিবেন বলে তিনি জানান।

মন্ত্রীসভার সদস্য ও নিজের রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে মৌখিকভাবে বিষয়টি বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কেবল মুহিইদ্দিনের টালমাটাল ১৭ মাসের প্রধানমন্ত্রীত্বেরই অবসানই ঘটাবে না, কোভিড-১৯ এর ঊর্ধ্বগতি ও অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলায় লড়তে থাকা মালয়েশিয়াকে আরও অনিশ্চয়তার দিকেও ঠেলে দেবে।

এখন পর্যন্ত অন্য কোনো আইনপ্রণেতার পক্ষে পার্লামেন্টের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সমর্থন না থাকায় পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীকে হবেন, কিংবা দেশটিতে মহামারীর মধ্যেই নতুন নির্বাচন হবে কিনা তাৎক্ষণিকভাবে তা বোঝা যাচ্ছে না বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের পর কী হবে, সেই বিষয়ে দেশটির সাংবিধানিক শাসক রাজা আল-সুলতান আব্দুল্লাহই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

গত বছরের মার্চে দুর্বল সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে প্রধানমন্ত্রী হলেও মুহিইদ্দিন কখনোই ক্ষমতা পুরোপুরি নিজের কব্জায় নিতে পারেননি। ক্ষমতাসীন জোটের সবচেয়ে বড় অংশ ইউনাইটেড মালয়স ন্যাশনাল অর্গানাইজেশনের (ইউএমএনও) কিছু সাংসদ সম্প্রতি সমর্থন উঠিয়ে নিলে তার ওপর চাপ আরও বেড়ে যায়।

মালয়েশীয় এ প্রধানমন্ত্রী গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই পদত্যাগের দাবি অগ্রাহ্য করে আসছিলেন, সেপ্টেম্বরে পার্লামেন্টে আস্থা ভোটের মাধ্যমে নিজের সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দেবেন বলেও দাবি করেছিলেন তিনি।

শুক্রবার তিনি প্রথমবারের মতো তার পক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতার সমর্থন নেই বলে স্বীকার করে নেন। আস্থা ভোটে সমর্থন পেতে রাজনৈতিক ও নির্বাচনী ব্যবস্থায় সংস্কারের প্রস্তাব দিয়ে বিরোধীদের মন জয় করারও চেষ্টা করেছিলেন তিনি, তবে তাতেও শেষরক্ষা হয়নি। তার প্রস্তাব সবাই প্রত্যাখ্যান করে।

মুহিইদ্দিন পদত্যাগ করলে, নির্বাচিত সাংসদদের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশকে নেতৃত্ব দিতে পারবে মনে হওয়া এমন যে কাউকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিতে পারবেন রাজা সুলতান আব্দুল্লাহ। গত বছর মাহাথির মোহাম্মদের আকস্মিক পদত্যাগের পর তিনিই মুহিইদ্দিনকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com