নোয়াখালীতে গণধর্ষণে আওয়ামী লীগ নেতাসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

নোয়াখালীতে গণধর্ষণে আওয়ামী লীগ নেতাসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

নোয়াখালীতে গণধর্ষণে আওয়ামী লীগ নেতাসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ
নোয়াখালীতে গণধর্ষণে আওয়ামী লীগ নেতাসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

লোকালয় ডেস্ক: নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গৃহবধূকে গণধর্ষণের মূলহোতা স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য ও সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিনসহ দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার রাতে জেলা সদরের একটি হাঁস-মুরগীর খামার থেকে রুহুল আমিনকে আর সেনবাগের একটি ইটভাটা থেকে মামলার আসামি বেচুকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এর আগে ধর্ষণের শিকার ওই চল্লিশোর্ধ নারী অভিযোগ করেছিলেন, রোববার রুহুল আমিনের লোকজন বাড়িতে গিয়ে স্বামী-সন্তানকে বেঁধে রেখে তাকে ধর্ষণ করে।

বুধবার পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুকের কাছে অভিযোগ করে ওই নারী বলেন, চরজব্বার থানা পুলিশ মামলার এজাহার থেকে রুহুল আমিনের নাম বাদ দিয়েছে। তখন তার এ অভিযোগ খতিয়ে দেখার প্রতিশ্রুতি দেন ডিআইজি গোলাম ফারুক। অভিযোগের পরপরই গভীর রাতে ওই গণধর্ষণের ঘটনায় রুহুল আমীন ও বেচুকে গ্রেফতার করা হয়।

এ নিয়ে এই মামলায় মোট পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

উল্লেখ্য যে,
নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরজুবলী ইউনিয়নের বাগ্যা গ্রামে এক গৃহবধূকে (৩২) গণধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূর স্বামী সোমবার রাতে বাদী হয়ে ৯ জনের বিরুদ্ধে চরজব্বার থানায় মামলা করেন। পুলিশ রাতেই মামলাটি নথিভুক্ত করে এবং অভিযান চালিয়ে বাদশাহ আলম ওরফে কুরাইল্যা বাদশাহ নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। বাদশাহ মধ্য বাগ্যা গ্রামের তোফায়েল আহমেদের ছেলে। তবে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত মূলহোতা সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিনকে তখন গ্রেফতার করা হয়নি।

ওই গৃহবধূ জানান, রোববার রাত ১২টার দিকে স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য ও সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মো. রুহুল আমিনের নেতৃত্বে স্থানীয় সন্ত্রাসী সোহেল, চৌধুরী, সোহেল, বেচু, হেঞ্জু, সোহগসহ ১০/১৫ জন তাদের ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। এ সময় তার স্বামীকে মারধর ও ছেলেমেয়েদের বেঁধে রেখে তাকে উঠানে নিয়ে যায়। পরে তারা কাপড় দিয়ে গৃহবধূর মুখ বেঁধে সবাই পালাক্রমে ওই নারীর ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। সোমবার দুপুরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ধর্ষিতা নারী ।

মামলার বাদী ওই নারীর স্বামী অভিযোগ করেন, রোববার দুপুরের দিকে তার স্ত্রী স্থানীয় ভোটকেন্দ্র চরজুবলীর ১৪ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট দিতে যান। ধানের শীষে ভোট দিয়ে ফেরার পথে স্থানীয় রুহুল আমিন নামে এক ব্যক্তি তাকে অনুসরণ ও উত্ত্যক্ত করে। তার স্ত্রী এর প্রতিবাদ জানিয়ে দ্রুত বাড়ি ফিরে আসেন। এ অবস্থায় রুহুল আমিন ও তার লোকজন স্ত্রীর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।

রোববার গভীর রাতে রুহুল আমিনের নেতৃত্বে ১২-১৫ জনের একদল সন্ত্রাসী দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে চলে যায়। এতে তার স্ত্রী অচেতন হয়ে পড়েন। সন্ত্রাসীরা চলে যাওয়ার পর পরিবারের অন্য সদস্যদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাদের উদ্ধার করেন। এ সময় স্থানীয় এক গ্রাম্য চিকিৎসককে ডেকে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। কিন্তু গৃহবধূর রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়ায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

তবে রুহুল আমিনকে কেন মামলায় আসামি করা হয়নি- সে বিষয়ে বাদী বলেন, ‘আমি অশিক্ষিত মানুষ; থানায় গিয়ে ঘটনা খুলে বলেছি। পুলিশকে বলেছি সব লিখে নিতে। তারা কেন রুহুল আমিনের নাম লেখে নাই, বলতে পারি না।’

রুহুল আমিনকে আসামি না করার বিষয়ে চরজব্বার থানার ওসি মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘বাদী যার যার নাম উল্লেখ করেছে, তাদেরই আসামি করা হয়েছে। এখানে পুলিশের কিছুই করার নেই।’

নোয়াখালী জেলা পুলিশ সুপার মো. ইলিয়াস শরিফ বিপিএম-পিপিএম (সেবা) বলেন, গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পুলিশ এক আসামিকে গ্রেফতার করেছে। বাকিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলমান। আসামিরা এলাকা থেকে পালিয়ে যাওয়ায় তাদের ধরতে দেরি হচ্ছে। খুব দ্রুতই তারা পুলিশের হাতে ধরা পড়বে বলে পুলিশ সুপারের দাবি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com