নিউইয়র্কে ১৯তম ঢালিউড অ্যাওয়ার্ডের জমকালো আসর

নিউইয়র্কে ১৯তম ঢালিউড অ্যাওয়ার্ডের জমকালো আসর

http://lokaloy24.com/

উত্তর আমেরিকায় সবচেয়ে জনপ্রিয় ‘ঢালিউড ফিল্ম এন্ড মিউজিক অ্যাওয়ার্ডের ১৯তম আসরে প্রবাসীদের তুমুল করতালির মধ্যে ‘আজীবন সম্মাননা’ অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয় উপ-মহাদেশের জনপ্রিয় শিল্পী সাবিনা ইয়াসমীন এবং ‘সেরা অভিনেতা’র অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয় এ সময়ের জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা সাকিব খানকে। ‘সেরা অভিনেত্রী’ হয়েছেন বিদ্যা সিনহা মিম। আর পপুলার চয়েজের সেরা নায়িকা বুবলি এবং সেরা নায়ক হয়েছেন বাপ্পি চৌধুরী। ‘শো টাইমস মিউজিক’র এ জমকালো আয়োজনে আরও কয়েকজনকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে এওয়ার্ড হস্তান্তর করা হয় নাচ আর গানের ফাঁকে।

তারা হলেন- সেরা গায়ক-ইমরান, সেরা গায়িকা-কণা, পপুলার সেরা গায়িকা-কোনাল, সেরা ব্যান্ড-নগর বাউল জেমস, সেরা টিভি অভিনেতা- আনিসুর রহমান মিলন, পপুলার চয়েজ সেরা টিভি অভিনেতা- নিশো, সেরা টিভি অভিনেত্রী-মেহজাবিন, পপুলার টিভি অভিনেত্রী ফারিয়া শাহরিন, সেরা চলচ্চিত্র অভিনেত্রী (সমালোচক) আজমেরী হক বাঁধন, ঢালিউডের স্পেশাল অ্যাওয়ার্ড-আমান রেজা, নাদিম সাদিয়া, সেরা নিউজ প্রেজেন্টার- সিফাত আরা তাবাসসুম ও তাসনুভা অনন। উত্তর আমেরিকায় জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পীদের মধ্যে ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড পেলেন কামরুজ্জামান বকুল, শামীম সিদ্দিকী, চন্দন চৌধুরী, তৃণা হাসান, প্রিয়া ইসলাম। এছাড়াও কণ্ঠশিল্পী মোজাকে স্পেশাল অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়।
তরুণ পরিচালক দেবাশীষ বিশ্বাসের উপস্থাপনায় ৪ ডিসেম্বর শনিবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির জ্যামাইকায় অ্যামাজুরা অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠানের শুরুতে সকলকে স্বাগত জানিয়ে হোস্ট সংগঠনের কর্ণধার আলমগীর খান আলম বলেন, আটলান্টিকের এপারে নানা প্রতিকূলতা স্বত্বেও বাংলা সংস্কৃতির বিকাশে আমাদের অব্যাহত প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে আজকের এই আয়োজন।

আগের মত আপনারা এবারও এই করোনা পরিস্থিতি জয় করতে আমাকে সাপোর্ট দিচ্ছেন- এজন্যে গভীর কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি সকলের প্রতি। এরপরই প্রবাসের জনপ্রিয় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘নৃত্যাঞ্জলি’র শিল্পীরা চোখ ধাঁধানো নৃত্য পরিবেশন করেন। এমন আমেজে নৃত্য-সঙ্গীত ও ফ্যাশন শো-তে অংশ নেন তারকা শিল্পী বুবলী, বিদ্যা সিনহা মিম, ফারিয়া, প্রিয়া প্রমুখ।

পুরস্কার গ্রহণের পর অনুভূতি ব্যক্তকালে সাবিনা ইয়াসমীন বলেন, যে কোন সম্মাননাই আনন্দের। তবে দর্শকদের ভালবাসাই আমার কাছে সবচেয়ে বড়। করোনা থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার পরিক্রমায় এ আয়োজনের গুরুত্ব অপরিসীম বলে উল্লেখ করে সাবিনা সুন্দর আয়োজনের জন্য সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান। এরপর মিলনায়তন ভর্তি দর্শক-শ্রোতার উল্লাসের মধ্যে কয়েকটি নাচ পরিবেশন করেন মিম।

এরপরই সেরা নায়কের পুরস্কার সাকিব খানকে প্রদান করেন রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর নুরুল আজিম। পাশে থাকা আলমগীর খান আলম শাকিব খানকে নিয়ে নিউইয়র্কে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণের ঘোষণা দেন। চিত্রনায়ক শাকিব খানও আসছে রোজার ঈদের আগে একটি ছবি নির্মাণের কথা জানান।

তিনি বলেন, ছবিটি নিউইয়র্কে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি উপলক্ষে রোজার ঈদটি এখানেই করতে চাই। এবং এখানকার দর্শকের সঙ্গে বসে ছবিটি দেখতে চাই। অনুষ্ঠানের মঞ্চে শাকিব খান দর্শকদের উদ্দেশ্যে আরও বলেন, ‘এখানে আমাদের একটি ছবি রিলিজ পেয়েছে আপনারা কী জানেন? ছবিটার নাম মিশন এক্সট্রিম। আমাদের দেশকে আমরা যদি ভালোবাসি, তাহলে বাঙালি হিসেবে সবার এই ছবিটা দেখা উচিত।’ এরপরই করতালিতে মুখর হয়ে ওঠে হলরুম।

টিভি অভিনেত্রী ফারিয়া শাহরিনকে ‘ঢালিউড এওয়ার্ড’ হস্তান্তর করেন বিশ্ববাংলা টোয়েন্টিফোর টিভির সিইও এবং যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের কোষাধ্যক্ষ আলিম খান আকাশ। ঢালিউড এওয়ার্ডের এ পর্বে প্রবাসে বাঙালি সংস্কৃতি পৃষ্ঠপোষকতা ও বিকাশে অবদানের জন্যে বেশ ক’জনকে পুরষ্কার প্রদান করেন নায়ক সাকিব খান।

বাংলাদেশের সেরা শিল্পী-অভিনেতা-অভিনেত্রী-গায়ক-গায়িকা-পরিচালক-প্রযোজক-মডেলদের এনে টানা ১৯ বছর যাবত ‘ঢালিউড এওয়ার্ড’র আয়োজন করায় আলমগীর খান আলমের প্রশংসা এবং সামনের দিনগুলোতে বাঙালি সংস্কৃতির পৃষ্ঠপোষকতা অব্যাহত রাখার অঙ্গিকার করে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ইউএস সুপ্রিম কোর্টের খ্যাতনামা আইনজীবী এবং কুইন্স ডেমোক্র্যাটিক পার্টির ডিসট্রিক্ট লিডার এ্যাট লার্জ এটর্নি মঈন চৌধুরী, ফোবানার সদ্য-বিদায়ী সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরী, মূলধারার রাজনীতিক ও হোমকেয়ারের সিইও গিয়াস আহমেদ, বিশিষ্ট সমাজসেবক রাহাত মুক্তাদির, ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নেতা ফাহাদ সোলায়মান, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সদস্য-সচিব আসেফ বারি টুটুল, হোমকেয়ার এক্সিকিউটিভ শাহনেওয়াজ, এপেক্স ইন্টারন্যাশনালের লাইফ গভর্নর আব্দুর রৌফ খান দিলিপ, হোমকেয়ার এক্সিকিউটিভ হাসিনা মুনমুন, জেবিবিএর সাবেক সেক্রেটারি তারেক হাসান খান প্রমুখ। সাকিব খানের প্রশংসাকালে উপস্থিত সকলকে হাসির ফোয়ারায় ভাসিয়ে নেন ‘ইমিগ্র্যান্ট এ্যাল্ডার হোমকেয়ার’র প্রেসিডেন্ট নূসরাত চৌধুরী নিপা।

আর এভাবেই গভীর রাত অবধি হৃদয়ের উচ্ছ্বাস আর প্রাণের আমেজে ধ্বনিত হয় বাংলাদেশ আর বাঙালি সংস্কৃতির জয়গান। উল্লেখ্য, করোনা ভীতি থেকে কমিউনিটিকে স্বাভাবিক জীবনে ফেরাতে গত এক বছরে বেশ কয়েক ডজন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে এই ‘শো টাইম মিউজিক’। তবে এওয়ার্ড বিতরণের এ আয়োজনটি সবকিছুকে ছাপিয়ে গেছে বলে অনেকে মন্তব্য করেছেন। উল্লেখ্য, আগের মত এ অনুষ্ঠানেরও অন্যতম মিডিয়া পার্টনার ছিল বাংলাদেশ প্রতিদিন, আই-গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি, চ্যানেল আই, বিশ্ববাংলা টোয়েন্টিফোর টিভি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com