নবীগঞ্জে রাস্তা ও দেবোত্তর সম্পদ নিয়ে উত্তেজনা

নবীগঞ্জে রাস্তা ও দেবোত্তর সম্পদ নিয়ে উত্তেজনা

নবীগঞ্জে রাস্তা ও দেবোত্তর সম্পদ নিয়ে উত্তেজনা
নবীগঞ্জে রাস্তা ও দেবোত্তর সম্পদ নিয়ে উত্তেজনা

বিগত ১৭ই সেপ্টেম্বর রোজ মঙ্গলবার ২০১৯ইং দৈনিক মানব জমিন পত্রিকার ১৫নং পৃষ্ঠায় নবীগঞ্জের রাস্তা ও দেবোত্তর সম্পদ নিয়ে উত্তেজনা এছাড়াও সিলেট থেকে প্রকাশিত দৈনিক একাত্তরের কথা পত্রিকার ৩য় পৃষ্ঠায় দেবোত্তর সম্পত্তি দখল নিয়ে সংঘর্ষের আশংকা শিরোনামীয় সংবাদ সহ দৈনিক হবিগঞ্জ সময়, দৈনিক হবিগঞ্জের মুখ, দৈনিক প্রভাকর ও দৈনিক লোকালয় বার্তা সহ বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় ভিন্ন ভিন্ন শিরোনামীয় সংবাদ গুলো আমাদের দৃষ্টি গোচর হয়ছে। তাহা আদৌ সত্য নহে। তাই উক্ত মিথ্যা বানোয়াট ও কাল্পনীক সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। সংশ্লিষ্ট সংবাদ কর্মীদের ভূল তথ্য দিয়ে এসব অপপ্রচার করা হয়েছে। এতে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য প্রশাসন সহ পাঠকদের নিকট অনুরোধ জানাচ্ছি।
প্রকৃতপক্ষে: আমি আকল মিয়া পেশায় একজন কৃষক, নিরীহ শান্তি প্রিয় ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল বটে। আমার বড় বোন চন্দ্রবান বিবির মালিকানাধীন মৌজপুর মৌজার জে.এল. নং- ৩৫, আর.এস দাগ নং- ৬১৮, মোয়াজী , দাগ নং- ৬২০, ২ শতক, বিগত ১৯৯৬ সনে খরিদ করেন। এবং ভোগ দখল করিয়া আসছেন। পরবর্তীতে ১৯৯৮ইং তারিখে আর.এস ৬২৩ দাগের ৩ শতক ভূমির মৌরশী সত্ত্বেও মালিক মৃত অতুল মনি দেবনাথের কাছ থেকে মৌখিক ভাবে ক্রয় সূত্রে মালিক হয়ে ভোগদখল করিয়া আসিতেছি। এখানে পুরনো গাছ এবং বাঁশঝাড় আছে ও মাছের একটি ছোট পুকুর আছে। ইদানিং মৃত অতুল দেবনাথের ছেলে সেফুল দেবনাথকে উক্ত ৬২৩ দাগের ভূমি ৩ শতক আমার বোনের নামে রেজিষ্ট্রি করিয়া দিতে বললে, সেফুল দেবনাথ উক্ত দাগের ২ শতক ৮০ পয়েন্ট ভূমি বিগত ৬/০৫/২০১৯ইং তারিখে ২১৫১ নং কবলায় রেজিষ্ট্রি করিয়া দেন এবং বাকী সেফুল দেবনাথের অংশের আর ২০ পয়েন্ট ভূমি দেবস্থানের রাস্তার জন্য রেখে দেন। বিগত কয়েক দিন আগে রাস্তা নিয়ে একটি কুচক্রীমহল সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি করতে চাইলে, দূর্গাপুর গ্রামের মামুন মিয়ার ছেলে মোঃ নুরুল আমিন ও আহমদ পুরের আনোয়ার মিয়ার মাধ্যমে উক্ত দেবস্থানের রাস্তায় গিয়ে আমি আকল মিয়া, বলি যে, বর্তমান রাস্তা প্রয়োজনে আর বড় করব এবং একটি দেয়াল ও একটি গেইট করে দিব। তখন নুরুল আমিন আমাদের ৪নং দীঘলবাক ইউ/পির চেয়ারম্যান জনাব আবু সাঈদ এওলা মিয়ার সাথে যোগাযোগ করেন এবং দেবস্থানের রাস্তাটিকে দেবস্থানের নামে চিরস্থায়ী করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদে শালিশীর তারিখ করেন। আমি তারিখ মোতাবেক ইউনিয়ন পরিষদে গেলে, অরুন নাথ চেয়ারম্যান সাহেবের কাছে শালিশীর পরবর্তী তারিখ চায়। কিন্তু এরপর অরুন নাথ আর কোন তারিখ দেয়নাই, তারিখ না দিয়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকার সাংবাদিকদের ভূল তথ্য দিয়ে হিন্দু-মুসলিমদের মধ্যে দাঙ্গা হাঙ্গামা বাধানোর চেষ্টা করিতেছে। তাই আবারও উক্ত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে এতে বিভ্রান্ত না হওয়ায়র জন্য আহবান জানাই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com