নবীগঞ্জে ভূমি কর্মকর্তার ঘুষ চাওয়ার অভিযোগে বরখাস্তের নির্দেশ দিলেন-অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক

নবীগঞ্জে ভূমি কর্মকর্তার ঘুষ চাওয়ার অভিযোগে বরখাস্তের নির্দেশ দিলেন-অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক

নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি॥ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ভূমি অফিসের উপ- সহকারী কর্মকর্তা মোঃ আবিদ আলীর বিরুদ্ধে এক প্রবাসীর কাছে ৫০ লাখ টাকা ঘুষ দাবীর অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার বিষয়ে ওই কর্মকর্তা সন্তোষজনক কোন জবাব না দেয়ায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগনামার বিবরণী প্রেরনের জন্য গত ২২ জুন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি)কে নির্দেশ দিয়েছেন, হবিগঞ্জ জেলার রিভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর প্রতীক মন্ডল।

অনুসন্ধানে আরো জানাযায়, ঐ ভুমি কর্মকর্তা আবিদ আলী’র বিরুদ্ধে ঘুষ কেলেংকারীর অভিযোগের শেষ নেই! কিন্তু কথা আছে না- চোরের দশ দিন আর সাউদের (গিরস্তের) একদিন। এর মধ্যে আরও ৫০ হাজার টাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগ তদন্তে প্রমানিত হওয়ায় বিভাগীয় ভাবে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সুপারিশ করেছেন সদ্য বিদায়ী সহকারী কমিশনার (ভুমি) সুমাইয়া মমিন। এছাড়াও তার বিরোদ্ধে একাধিক অভিযোগের তদন্ত চলছে বলেও জানা গেছে।

সুত্রে আরো জানাযায়, নবীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের ভুমি অফিসের উপ- সহকারী ভুমি কর্মকর্তা মোঃ আবিদ আলী তার কর্মস্থলে যোগদানের পর থেকেই তার বিভিন্ন নানান অনিয়ম, দুর্নীতি ও ঘুষ কেলেংকারীর অভিযোগ উঠে। নবীগঞ্জে যোগদানের পূর্বে তার কর্মস্থল চুনারুঘাটে ছিল। সেখানেও তার নানান অনিয়মের অভিযোগে সে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছিলেন। এখন নবীগঞ্জে যোগদানের পর ৫০ লাখ টাকা ঘুষ চাওয়ার অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় গত ৬ মে ঐ উপ-সহকারী কর্মকর্তার বরখাস্তের আদেশ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পৌঁছায়। এতে উক্ত ভুমি কর্মকর্তা আবিদ আলী যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক বরাবরে কারন দর্শানোর জবাব প্রেরন করেন। কিন্তু এতে সন্তোষজনক কোন জবাব না পাওয়ায় হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) প্রতীক মন্ডল ঐ ভুমি কর্মকর্তা আবিদ আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগনামা ও অভিযোগ বিবরণী গঠনক্রম প্রেরনের জন্য উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি)কে নির্দেশ প্রদান করেন।

উল্লেখ্য যে, নবীগঞ্জ শহরে একটি টাওয়ার নির্মাণের কাজ করতে মালিকপক্ষ ২/৩ হাতের মতো সরকারী জমি ব্যবহার করেছে। এ জমিটি আপাতত কোনো কাজে না আসায় প্রাথমিকভাবে ভবনটি না ভাঙ্গার সিদ্ধান্ত নেন কর্তৃপক্ষ। এতে এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে উপ- সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মোঃ আবিদ আলী ভবন মালিককে ভাবনটি রক্ষার কথা বলে ৫০ লাখ টাকা দাবি করেন। এসময় বিপণি বিতানের মালিকপক্ষ আবিদ আলী’র সকল কথাবার্তা মুঠোফোনে রেকর্ড করেন। পরে এ বিষয়ে মালিকপক্ষ অভিযোগ দিলে তদন্তে তা প্রমানিত হয়। এরই প্রেক্ষিতে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক গত ২২ এপ্রিল তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেন।
এ ঘুষ দূর্নীতির নানান খবরে ঐ ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও চুল-ছেড়া বিশ্লেষন চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com