নবীগঞ্জে দোকানে আটক রেখে কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষন, থানায় মামলা

নবীগঞ্জে দোকানে আটক রেখে কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষন, থানায় মামলা

নবীগঞ্জে দোকানে আটক রেখে কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষন, থানায় মামলা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি : নবীগঞ্জের পল্লীতে কিশোরীকে দোকান ঘরে ৭ ঘন্টা আটক রেখে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে । এঘটনায় কিশোরীর পিতা গোলজার মিয়া বাদি হয়ে অভিযুক্ত নুরুল ইসলাম নাহিদ (৩০) লম্পটের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সন্ধা রাতে।
এঘটনার পর থেকেই ধর্ষককে গ্রেফতার করতে সোমবার দিবাগত রাত থেকে পুলিশের ষাড়াশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে লম্পট নাহিদ গ্রেফতার এড়াতে গা ঢাকা দিয়েছে।
নির্যাতিতা কিশোরী জানায়, তার বাবা পেশায় একজন দিন মজুর। সে উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের দাউদপুর গ্রামের গোলজার মিয়ার কন্যা।
সোমবার দুপুর ১টার সময় লিমা আক্তার সে তার এক ছোট ভাই নুরুজ্জামান (৬) নামের শিশুকে খেলার মাট থেকে বাড়ীতে আনার জন্য যাওয়ার পথিমধ্যে একই গ্রামের মৃত ওহাব উল্লার পুত্র  নুরুল ইসলাম নাহিদের দোকানের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় নাহিদের ভাবী আংছার মিয়ার স্ত্রী রিনা বেগম তাকে ডেকে নেয় দোকানের পাশে। সেখানে যাওয়ার পরেই তার ভাবী সেখান থেকে চলে যায়। এরপরই  সুচতুর নাহিদ দোকান ঘরের বাহিরে তালা বদ্ধ করে ঘরের ভেতরে কিশোরীকে হাত মুখ বেঁধে রেখে ঝাপটে ধরে। পরে তাকে জোর পূর্বক মুখ বেধে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কয়েক দফা ধর্ষণ করে।
এদিকে ৭ ঘন্টা ধরে কিশোরীকে বাড়িতে না পেয়ে তার মা-বাবা ও আত্মীয় স্বজন পাগলের ন্যায় সাড়া গ্রাম তথা আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে খোজ খবর নিয়েও তার কোন সন্ধান না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েন। অপর দিকে সন্ধ্যা রাত অনুমান ৮টার দিকে ধর্ষিত কিশোরী নাহিদের হাতে পায়ে ধরে জীবন ভিক্ষা চেয়ে ও কৌশলে দৌড়াইয়া পালিয়ে প্রতিবেশী সাংবাদিক এম মুজিবুর রহমানের বাড়ীতে গিয়ে আশ্রয় নেয়। এ ঘটনায় এলাকায় তুলপাড় সৃস্টি হয়েছে।
তাঁর মা ও বোনেরা  তাদের বাড়িতে এসে আশ্রয় নিয়েছে বলে  তাকে মোবাইল ফোনে কল দিয়ে  জানালে মেয়ের বাবা ও স্থানীয় ইউপি সদস্য ফখরুল ইসলাম জুয়েল সহ তাদের আত্মীয় স্বজনকে খবর দেয়া হয়। পরে কিশোরী পিতার কাছে সমজিয়ে দেওয়া হয়। এসময় উপস্থিত গ্রামবাসী সবার সামনে তার ধর্ষণের ঘটনার বিবরন প্রকাশ করে ।
এ বিষয়ে  তাৎক্ষনিক নবীগঞ্জ থানায় অভিযোগ দিলে মেয়েকে একাধিকবার জিজ্ঞাসাবাদের পর প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে থানায় ধর্ষণ মামলা রেকর্ড ভুক্ত করা হয়।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ওসি এস এম আতাউর রহমান জানান, আসামীকে ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (ওসি) সামছুদ্দিন খান জানান, আসামী যতই প্রভাবশালী হোক তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com