নবীগঞ্জের স্বপ্নার স্বপ্ন পূরণ হলোনা! নারায়ণগঞ্জ থেকে লাশ হয়ে বাড়িতে ফিরতে হলো

নবীগঞ্জের স্বপ্নার স্বপ্ন পূরণ হলোনা! নারায়ণগঞ্জ থেকে লাশ হয়ে বাড়িতে ফিরতে হলো

বুলবুল আহমদ, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) থেকে: নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জের গৃহবধু স্বপ্না রানী চোখে স্বপ্ন নিয়ে ভাগ্য বদলাতে জীবিকার তাগিদে ৬ মাস পূর্বে ৫ শিশু কন্যা ও দিনমজুর স্বামীকে নিয়ে কাজ করতে গিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জে। সেই স্বপ্ন পূর্ণ হলো না তাদের। লাশ হয়ে ফিরতে হলো নবীগঞ্জের বাড়িতে।

সূত্রে জানাযায়, জীবিকার তাগিদে গত ৮ জুলাই নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতায় সজীব গ্রুপের প্রতিষ্ঠান সেজান জুস কোম্পানির মর্মান্তিক অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এই অগ্নকান্ডের ঘটনার মৃত্যু কত লোকের স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার।

নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের গোলডুবা আদর্শ (ভূমিহীন) গ্রামের জতি নমের স্ত্রী নিহত স্বপ্না রাণী (৩৮) এর স্বপ্ন ভেঙ্গে গেল।

ঘটনার সময় নিহত স্বপ্না রানীর ১৩ বছরের মেয়ে বিশকা রাণী নিচ তলায় ছিল। লোকজনের চিৎকারে দৌড়ে সে বের হয়ে যায়। মা- মেয়ে এক সাথে একই কোম্পানিতে কাজ করতো। বিশকা প্রাণে বেঁচে গেলেও তার মায়ের মৃত্যু কাছ থেকে দেখেছিল সে! তার চোখে মুখে এখনো ভয়ানক সেইদিনের অগ্নিকান্ডের দৃশ্য বারবার ভেসে উঠছে। চোখের সামনে মায়ের মৃত্যু যেন কিছুতেই সে মানতে পারছে না। গর্ভধারণী মা হারিয়ে ৫ বোনের আর্তনাদে এলাকার আকাশ ভারী হয়ে উঠেছে। তাদের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

এ ব্যাপারে স্বপ্না রাণীর মেয়ে বিশ্ব খাঁ রাণী জানায়, গত ৮ জুলাই অগ্নিকান্ডের সময় তার মা জীবন বাঁচাতে এই কোম্পানির ৩য় তলার জানালার কাছ থেকে লাফ দিয়ে মাটিতে লুটে পড়েন। ওই সময় তার পুরো শরীর রক্তমাখা ছিল। সেখানকার লোকজন তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ৯ জুলাই স্বপ্না রাণীর মৃতদেহ নবীগঞ্জ নিয়ে আসা হয়।

এ ব্যাপারে স্বপ্না রাণীর স্বামী জতি নম জানান, পরিবারের অভাব অনটন ও ঋণের বোঝা দূর করতে স্ব- পররিবারে ৬ মাস পূর্বে নারায়ণগঞ্জের একটি ভাড়া বাসায় উঠেন তারা।

বড় মেয়ে ভাসনা রাণী (১৭) কাজ করতেন চায়না ব্যাগ কোম্পানিতে। ২য় মেয়ে বিশ্ব খাঁ রাণী (১৩) মায়ের সাথে একই কোম্পানিতে করতো। এছাড়াও স্বপ্না রাণীর আরো ৩ মেয়ে রয়েছে। তারা হলো, মিনতি রাণী (১০), মৌসুমী রাণী (৮), জবা রাণী (৩)।

জতি নম কান্না জড়িত কন্ঠে আরো বলেন, স্ত্রীকে হারিয়ে আজ আমি আমার মেয়েদের নিয়ে বড় অসহায়। দিশেহারা হয়ে গেছি। কি করবো বুঝে ওঠতে পারছিনা। একদিকে অভাবের সংসার। ঘরে একটা টাকাও নেই। অন্যদিকে মেয়েদের সামলানো।

তিনি সরকার ও বিত্তবানদের সহযোগিতা কামনা করে এ ঘটনার বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে নিহতের পরিবারের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে তাদের সহযোগিতা করা হবে বলে তিনি আশ্বাস দেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com