সংবাদ শিরোনাম :
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে এগিয়ে নিতে সকলের এক যোগে কাজ করার আহ্বান : আবু জাহির রাজধানীর বস্তি থেকে হবিগঞ্জের শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার পার্কিং করা বাসে ৩০ কেজি গাঁজা, গ্রেফতার ৩ ‘বাবা নির্যাতন সহ্য করতে পারছি না, আমাকে উদ্ধার করো : সৌদি থেকে মেয়ের আকুতি ভারতের ত্রিপুরায় প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ায় খোয়াই নদীর পানি বৃদ্ধি রাস্তায় পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে টেলিফোন বক্স ॥ দেখার যেনো কেউ নেই শায়েস্তানগর হকার মার্কেট দখল করে ব্যবসা ॥ নেয়া হয়েছে অবৈধ বিদ্যুত সংযোগ হবিগঞ্জ শহরে ব্যাটারী চালিত রিকশার বিরুদ্ধে অভিযান বাধা দিলেই খুন করত শুক্কুর আলী-দিদার আগামী ৮ অক্টোবর হবিগঞ্জে শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনে সব গণপরিবহন বন্ধ
ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘জোয়াদ’

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘জোয়াদ’

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

চলতি মাসের শেষ দিকে বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘জোয়াদ’। নভেম্বরের ২২ বা ২৩ তারিখে সুন্দরবন উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে ঘূর্ণিঝড়টি। এতে বঙ্গোপসাগরের উপকূলবর্তী অঞ্চলগুলোতে ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। ভারতীয় আবহাওয়া সংস্থার বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে হিন্দুস্তান টাইমস।

পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ১৩ নভেম্বর থাইল্যান্ড উপসাগর থেকে বঙ্গোপসাগরে প্রবেশ করবে একটি ঘূর্ণাবর্ত। যেটা আন্দামান সাগরে প্রবেশ করে ক্রমশ শক্তি সঞ্চয় করবে। প্রাথমিকভাবে পশ্চিম, উত্তর–পশ্চিম দিকে অগ্রসর হবে ঘূর্ণাবর্তটি। পরে ১৬ নভেম্বরের মধ্যে সেটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিবে। যার নাম ‘জোয়াদ’।

এর একদিন পর অর্থাৎ ১৮ নভেম্বর গতিমুখ পরিবর্তন করে পূর্ব, উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হতে থাকবে ঘূর্ণিঝড়টি। তবে আশার কথা হচ্ছে- উপকূলের যত কাছে আসবে ততই কমতে থাকবে তার গতি। ২২ বা ২৩ নভেম্বর সুন্দরবনে আঘাত হানার মধ্যদিয়ে ভারত–বাংলাদেশের সীমান্ত দিয়ে ভূভাগে প্রবেশ করবে ঘূর্ণিঝড়টি। যার জেরে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ও ভারতের দক্ষিণবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকায় রয়েছে ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা। তবে ভূ-ভাগে প্রবেশের আগে অনেকটাই দুর্বল হয়ে যাবে ঘূর্ণিঝড়টি।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, ভারতের পুরী থেকে বাংলাদেশের বরিশালের মধ্যে যে কোনও জায়গা দিয়ে উপকূলে আঘাত হানতে পারে এ ঝড়টি। তবে ঘূর্ণাবর্তটি বঙ্গোপসাগরে প্রবেশ করার পর এ বিষয়ে আরও নির্দিষ্ট তথ্য দেয়া সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

উল্লেখ্য, এ বছরের মে মাসে আঘাত হেনেছিল ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’। এরপর আঘাত হানে ‘গুলাব’ ও ‘শাহিন’। শেষোক্ত নামটি কাতারের দেয়া। আর আসন্ন ঘূর্ণিঝড় ‘জোয়াদ’ নামটি দিয়েছে সৌদি আরব।

এরপর রয়েছে শ্রীলঙ্কার ‘আসানি’, থাইল্যান্ডের ‘সিতরাং’, সৌদি আরবের দেয়া ‘মান্দোস’ এবং ইয়েমেনের দেয়া ‘মোচা’। এ পর্যন্ত আসলে বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার আঞ্চলিক কমিটিতে থাকা ১৩টি দেশের একটি করে নাম দেয়া হয়ে যাবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের দেয়া নামের তালিকায় প্রথমটি ছিল ‘নিসর্গ’। বাকি ১২টি নাম হল- বিপর্যয়, অর্ণব, উপকূল, বার্সন, রাজানি, নিশীথ, উর্মি, মেঘালা, সমীরণ, প্রতিকূল, সরোবর ও মহানিশা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com