দৌলতদিয়া ঘাটের পেড়াভিটায় মাদকের হাট

দৌলতদিয়া ঘাটের পেড়াভিটায় মাদকের হাট

দৌলতদিয়া ঘাটের পেড়াভিটায় মাদকের হাট
দৌলতদিয়া ঘাটের পেড়াভিটায় মাদকের হাট

রাজবাড়ি প্রতিনিধি: মাদকের ওপর জিরো টলারেন্সের পর কিছুদিন স্থির ছিল দৌলতদিয়ার মাদকের হাট খ্যাত পরিচিত পুড়াভিটার মাদক ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট। ধীরে ধীরে আবারও স্বকৃয় হয়ে উঠেছে এই মাদকের হাট। আগেরমত প্রকাশ্যে রমরমা মাদক বিক্রি না হলেও গুটি কয়েক মাদক ব্যবসায়ী ও প্রশাসনের সোর্স সিন্ডিকেট করে এ ব্যবসা আবারও চালিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। এই সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত মাদক স¤্রাগ্রী একাধিক মাদক মামলার আসামী সাথী আক্তার প্রশাসনের চোখে ধুলো দিয়ে অনায়াসেই চালিয়ে যাচ্ছে তার মাদক স¤্রাজ্য। তাকে পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করে আসছে স্থানীয় পতিতালয়ের দালাল আজিজ প্রামাণিক।
গোপনসূত্রে জানা যায়, আজিজ প্রামাণিক বছর দু’য়েক আগে মাদক মামলায় জেল-হাজতে যায়। অতপর সে জামিনে বেরিয়ে এসে প্রশাসনের সংবাদদাতা (সোর্স) হিসেবে কাজ শুরু করে। তারপর শুরু হয় তার মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেট। প্রশাসনের নাকের ডগায় বসে সে তার পতিতা প্রেমিকাকে (শাহানাজ বাড়ীওয়ালী) দিয়ে গড়েছে মাদকের এক তুমুল সম্রাজ্য। মাদক অভিযানের সময় পতিতালয়ের সব মদের দোকান বন্ধ থাকলেও কখনই বন্ধ যায় না তার মাদক ব্যবসা। পতিতালয়ে খোঁজ নিয়ে আরও জানা যায়, শুধু মদ-ই নয় ইয়াবা ও ফেন্সিডিলসহ আরও ব্যবসায়ের সাথে জড়িত রয়েছে এই প্রশাসনের সোর্স আজিজ প্রামাণিক। তার মাদক ব্যবসায় প্রতিদ্বন্দী হয়ে কেউ দাড়ালে প্রশাসনকে দিয়েই গ্রেফতার করায় তার প্রতিদ্বন্দী মাদক ব্যবসায়ীকে। তাছাড়া পতিতালয়ে তার রয়েছে একটি বিলাশবহুল বাড়ী যেখানে সে তার প্রেমিকা (শাহানাজ বাড়ীওয়ালী) অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েদের দিয়ে দেহ ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। সে মাদক ব্যবসা করে দৌলতদিয়া পুড়াভিটায় একটি বিলাশ বহুল বোডিং (পদ্মা বোডিং) ও একটি বাড়ি নিমার্ণ করে।পযায়ক্রমে পদ্মা বোডিং-ই হয়ে ওঠে তার অলিখিত থানা ও মাদক সেবনেরআস্তানা। এই পদ্মা বোডিং-এ প্রশাসনের কিছু অসাধু অফিসার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আজিজের মাধ্যমে মাসোয়ারা প্রতিনিয়তই নিয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া পোড়াভিটায় মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রশাসনের ভয়-ভীতি দেখিয়ে আজিজ নিজেও মাসোয়ারা নেয়। তার এ কাজে কেউ বাধা হয়ে দাড়ালে পকেটে ইয়াবাসহ নানা প্রকার মাদক দ্রব্য ঢুকিয়ে পদ্মা বোডিং-য়ে বেধে রেখে প্রশাসনের কাছে ধরিয়ে দেয়। তারই ছত্র-ছায়ায় থেকে তার ভাগিনা কামরুল পোড়াভিটায় দীঘদিন যাবৎ মাদক ব্যবসা করে গেছেন। তাছাড়া তার এই সিন্ডিকেটে থেকে শাপলা, নূরজাহান, সাথী, বেবী, রিনা, মৌসুমীসহ চিহ্নিত সকল মাদক ব্যবসায়ী দীঘদিন তাদের মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে গেছে। গোপনসূত্রে আরও জানা যায় যে, এই সকল ব্যবসায়ীদের যে মাদক প্রয়োজন হতো তাও এই আজিজ-ই পাইকারী সরবরাহ করত। কিন্তু, সরকারের মাদক বিরোধী অভিযানে একে-একে সকল মাদক ব্যবসায়ী ধরা খেলেও প্রশাসনের ছত্রছায়ায় থাকার কারণে ধরা-ছোয়ার বাইরেই থেকে যায় এই আজিজ। অভিযানের পর সকল মাদক ব্যবসায়ী গা ঢাকা দেয়, বন্ধ হয়ে যায় পোড়াভিটার মাদক সিন্ডিকেট। স্বস্থি পায় দৌলতদিয়াবাসী। কিন্তু এখন আবার আজিজের নেতৃত্বে স্বকৃয় হয়ে উঠেছে দৌতলদিয়া পোড়াভিটার মাদক সিন্ডিকেট। এখন কিছুটা প্রকাশ্যেই সাথীকে দিয়ে হিরোইনের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে আজিজ প্রামাণিক। তাকে আটকানোর যেন কেউ নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রত্যক্ষদর্শী জানায়, পোড়াভিটায় কিছুদিন মাদক ব্যবসা বন্ধ থাকলেও আবার আজিজ সেটি চালু করেছে। যারা আজিজ ও সাথীর বিরোধিতা করে তারাই কিছুদিন পর মাদক মামলার আসামী হয়ে জেলে যায়। সরেজমীনে গিয়ে জানা যায়, এবার জমে উঠেছে পোড়াভিটার আজিজ-সাথী সিন্ডিকেট। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরও একজন জানায়, আজিজ দৌতলদিয়া ফেরীঘাটের একজন কলা বিক্রেতা (হকার) ছিল। কিন্তুু দৌলতদিয়া পতিতালয় ও পোড়াভিটায় মাদক ব্যবসা করে ১৫টি ড্রাম ট্রাক, ২টি ভেকুসহ অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছে। এখন এলাকাবাসীর আবেদন এদেরমত ভয়ঙ্কর মাদক ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় আনা হোক এবং কঠোর শাস্তি প্রদান করা হোক যাতে জীবনে তারা আর এইরকম রাষ্ট্রদ্রোহী কাজ না করতে পারে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com