দুই বছর পর পশ্চিমবঙ্গ থেকে মুক্তি পেল বাংলাদেশি কিশোর

দুই বছর পর পশ্চিমবঙ্গ থেকে মুক্তি পেল বাংলাদেশি কিশোর

দুই বছর আগে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে প্রবেশের অভিযোগে পুলিশের হাতে আটক হয় ছোট্ট রফি। এরপরই তার জায়গা হয় পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট সরকারি হোম ‘শুভায়ন’এ। অবশেষে নানা-নানি সহ স্বজনদের কাছে ফিরে গেল পিতৃহারা ওই বাংলাদেশি কিশোর রফি শেখ (১৪)।

মঙ্গলবার সকাল ১১ টার দিকে পশ্চিমবঙ্গের হিলি আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট দিয়ে ওই কিশোরকে বিজিবি’এর হাতে তুলে দেওয়া হয়। এরআগে এসকর্ট করে রফি-কে হিলি সীমান্তে নিয়ে আসা হয়। এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন হিলি ইন্টিগ্রেটেড চেক পোাস্ট (আইসিপি) ওসি বিকাশ চন্দ্র মন্ডল, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা ‘চাইল্ড লাইন’এর সেন্টার কোঅর্ডিনেটর সুরজ দাস, শুভায়ন হোমের কর্মকর্তা পরেশ হাজরা, বাংলাদেশ ইমিগ্রেশনের ওসি আখতাব হোসেন, বিএসএফ ও বিজিবি’র কর্মকর্তারা।

দক্ষিণ দিনাজপুর চাইল্ড লাইনের পক্ষ থেকে জানা গেছে, গত ছয় বছর আগে বাংলাদেশের খুলনা জেলার দৌলতপুরের বাসিন্দা রফি’র বাবা ফেরদৌস শেখ মারা যাওয়ার কিছুদিন পরই তার মা অন্য এক বাংলাদেশি নারীর প্রলোভনে পা দিয়ে ভারতের পুণেতে চলে আসে। সেখানেই পাচার চক্রের সাথে জড়িয়ে পড়েন ওই বাংলাদেশি নারী। পরে এক ভারতীয় পুরুষকে বিয়ে করে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকেন এবং নিজের প্রকৃত নাম পরিবর্তন করে রূপা সরকার নামে ভারতীয় পাসপোর্টও বের করেন। দুই বছর আগে ২০১৬ সালের মার্চ-এপ্রিল মাসে রফি’র মা রূপা সরকার বাংলাদেশে যায়, সেসময় তাঁর সঙ্গী হয় আরও কয়েকজন। এরপর সঙ্গীদের সহায়তায় রূপা নিজের নাবালক ছেলে ও দুই মেয়েকে ভারতে নিয়ে আসার চেষ্টা করেন। শুধু তাই নয় অভিযোগ নিজের ছেলে-মেয়ের সাথে কয়েকজন বাংলাদেশি কিশোরীকে কাজের লোভ দেখিয়ে পুণেতে নিয়ে আসার চেষ্টা করে রূপা। এজন্য হিলি সীমান্ত দিয়ে পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশের পরই তাদের আটক করে বালুরঘাট জেলা পুলিশ।

দক্ষিণ দিনাজপুর চাইল্ড লাইনের পক্ষে সুরজ দাস জানান ‘২০১৬ সালের ২০ মে বিশেষ অভিযান চালিয়ে বালুরঘাট ট্যাংক মোড় এলাকা থেকে রফি শেখ, তার মা রূপা ও দুই বোন এবং আরও তিন বাংলাদেশিকে আটক করে বালুরঘাট থানার পুলিশ। এদের মধ্যে রফিসহ চারজনই ছিল অপ্রাপ্তবয়স্ক। প্রাথমিকভাবে ওই চার জনের সুরক্ষা ও তাদের সঠিক কাউন্সেলিং’এর জন্য বালুরঘাট থানা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা ‘চাইল্ড লাইন’এর সেন্টারের হাতে তুলে দেয়। কিন্তু ওই চারজনের মধ্যে তিন জন কিশোরী থাকার কারণে তাদের পরবর্তীতে মালদা চিলড্রেন হোমে ঠাঁই হয় এবং রফিকে রাখা হয় ‘শুভায়ন’ হোমে। সেই থেকে এই হোমেই ছিল রফি। বাকী দুই বাংলাদেশি নারীকে রাখা হয় বালুরঘাট সংশোধনাগারে। কিন্তু রফি’র মা রূপা সহ কয়েকজনের ভারতীয় পার্সপোট থাকার কারণে সেসময় ছাড়া পায়।

সুরজ দাস আরও জানান ‘ওইসব নাবালক শিশুদের অসৎ উদ্দেশে মহারাষ্ট্রের পুণেতে নিয়ে যাবার চেষ্টা করা হচ্ছিল। কিন্তু বালুরঘাট থানার তৎপরতায় তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com