দুই ডোজ টিকার আওতায় ১৭ শতাংশ মানুষ

দুই ডোজ টিকার আওতায় ১৭ শতাংশ মানুষ

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষা নিশ্চিত করতে দেশের ৮০ ভাগ মানুষকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার। এ ধারাবাহিকতায় মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে ৭০ শতাংশ লোককে টিকার পূর্ণ ডোজ দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এটি বাস্তবায়ন করতে হলে মার্চের মধ্যে ১১ কোটি ৮৩ লাখ ৭৭ হাজার মানুষকে দ্বিতীয় ডোজ পূর্ণ করতে হবে। কিন্তু লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ৯ মাসে মাত্র ১৭ শতাংশ মানুষকে পূর্ণ দুই ডোজ টিকা দিতে পেরেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিস্টিক ২০২০ তথ্য অনুযায়ী দেশের বর্তমান জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৯১ লাখ ১০ হাজার। সে হিসাবে ৮০ শতাংশ জনগোষ্ঠী হিসাবে ১৩ কোটি ৫২ লাখ ৮৮ হাজার মানুষের টিকা পাওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু অতীতে টিকা বিদেশ থেকে প্রাপ্তির নিশ্চয়তা নিয়ে খারাপ নজির রয়েছে। ফলে এত স্বল্প সময়ের মধ্যে ৭০ ভাগ মানুষকে দুই ডোজ টিকা দেওয়ার পূর্ব ঘোষণা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

স্বাস্থ্য বিভাগের টিকা প্রয়োগ কর্মসূচির তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, দেশে ফেব্রুয়ারি থেকে দুবার গণটিকা কার্যক্রমসহ শনিবার পর্যন্ত মোট ২ কোটি ৮৬ লাখ ৮৯ হাজার ৯২ পূর্ণ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রার ৭০ ভাগ মানুষের মধ্যে ১৭ দশমিক ৬৩ শতাংশ। মোট জনসংখ্যার ১২ দশমিক ৩৪ শতাংশ। সরকারকে মার্চের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছাতে হলে আরও ৯ কোটি ৭৫ লাখ ৭১ হাজার ৩৪ জনকে (৮২ দশমিক ৩৭ শতাংশ) টিকা দিতে হবে। অথচ দেশে ৯ মাসে লক্ষ্যমাত্রার ১৭ শতাংশ মানুষ পূর্ণ দুই ডোজ টিকা পেয়েছে।

টিকার বর্তমান গতি ও সরবরাহের কারণে মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে এত লোককে টিকা দেওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। বর্তমানে যে হারে টিকা দেয়া হচ্ছে, সে অনুযায়ী ৭০ শতাংশ মানুষকে টিকা দিতে ছয় মাসের (মার্চ-এপ্রিল) বেশি সময় লাগবে।

উদাহরণ হিসাবে বিশেষজ্ঞরা যুগান্তরকে বলছেন, বৃহস্পতিবার টিকার বিশেষ ক্যাম্পেইনে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া মানুষের সংখ্যা কম দেখা গেছে। ২৮ সেপ্টেম্বর প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন ৬৬ লাখ ২৫ হাজার মানুষ। সেখানে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার দিন কেন্দ্রে এসেছেন ৫৪ লাখ ৪৪ হাজার মানুষ। অর্থাৎ সাড়ে ২৩ লাখ মানুষ দ্বিতীয় ডোজ নিতে যাননি। বিশেষ ক্যাম্পেইনের অস্থায়ী বুথগুলো চালু না থাকায় এখন তাদের উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র, জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মাধ্যমে টিকা দিতে হচ্ছে। সেখানে পর্যাপ্ত টিকা মজুত না থাকা ও অব্যবস্থাপনায় ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। এদিকে সম্প্রতি ভাইরাসটির প্রকোপ কমতে শুরু করছে। ফলে প্রচার-প্রচারণা না বাড়ালে মানুষের মধ্যে টিকা নেওয়ার আগ্রহ কমবে। এমনটা চলতে থাকলে মার্চের মধ্যে ৭০ শতাংশ মানুষকে টিকাদান লক্ষ্যমাত্রা পূরণ কঠিন হয়ে যাবে।

এ ব্যাপারে জনস্বাস্থ্যবিদ আবু জামিল ফয়সাল যুগান্তরকে বলেন, দেশে করোনা প্রতিরোধে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে টিকা দেওয়া শুরু হওয়ার পর টিকার স্বল্পতার কারণে বারবার ব্যাহত হয় গণটিকাদান কর্মসূচি। একই সঙ্গে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট হঠাৎ করে টিকা সরবরাহ বন্ধ রাখায় নিয়মিত টিকাদান কর্মসূচি প্রায় এক মাসের জন্য স্থগিত হয়ে পড়ে। তবে জুনে চীন থেকে দেড় কোটি ডোজ সিনোফার্ম টিকা কেনার পর টিকাদান কর্মসূচি আবারও কিছুটা গতি পায়। এরপর ধারাবাহিকভাবে টিকাদান কর্মসূচি চলমান রয়েছে। কিন্তু টিকাপ্রাপ্তির শতভাগ নিশ্চয়তা ছাড়াই এত স্বল্প সময়ে (মার্চ-এপ্রিল) সময়ের মধ্যে ৭০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে ৮০ লাখ ৯৩ হাজার ২৩৬ জনকে প্রথম ডোজের টিকা দেওয়া হয়। এই ৮০ লাখ লোককে দ্বিতীয় ডোজের টিকা দেওয়া সম্পন্ন হলে প্রায় ৩ কোটি মানুষ পূর্ণ দুই ডোজ টিকার আওতায় আসবে। এর মাধ্যমে দেশের ১৭ শতাংশ মানুষ পূর্ণ দুই ডোজ টিকা পাচ্ছেন। এই ১৭ শতাংশ মানুষকে দ্বিতীয় ডোজের আওতায় আসতে ৯ মাস সময় লাগছে। অন্যদিকে পরিকল্পনা ৭০ শতাংশ মানুষকে দ্বিতীয় ডোজ টিকার আওতায় আনতে সরকার হাতে সময় পাচ্ছে ছয় মাস। টিকাদানের পরিসর না বাড়লে এটি বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আগামী মার্চের মধ্যে ১১ কোটি ৮৩ লাখ ৭৭ হাজার কোটি মানুষকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার চিন্তা সরকারের। কিন্তু টিকার বর্তমান গতি ও সরবরাহের কারণে মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে এত লোককে টিকা দেয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। এমনকি বর্তমানে সরকার যে হারে টিকা দেয়া হচ্ছে, সে অনুযায়ী ৭০ শতাংশ মানুষকে টিকা দিতে সরকারের আরও বেশি সময় লাগবে।

করোনা টিকা সংগ্রহ ও ব্যবস্থাপনা টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য সচিব এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের টিকা কর্মসূচির পরিচালক ডা. শামসুল হক বলেন, দ্রুত সময়ে বিপুলসংখ্যক মানুষের টিকার আওতায় আনতে টিকাদানের পরিসর বাড়ানোর পরিকল্পনার অংশ হিসাবে বিশেষ ক্যাম্পেইন চালানো হচ্ছে। বিশেষ ক্যাম্পেইনের বাইরে দৈনিক ৫ থেকে ৬ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হচ্ছে। আগামীতে দৈনিক ১০ লাখের বেশি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে। এছাড়া ১ নভেম্বর থেকে স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া শুরু হচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে অধিক মানুষকে টিকাদান কর্মসূচির আওতায় আনতে চায় সরকার।

এ ব্যাপারে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, টিকার প্রাপ্যতার ওপর টিকাদানের গতি নির্ভর করে। বাংলাদেশ গণটিকার আদলে যে পরিমাণ টিকা দিয়েছে, তার তিনগুণ টিকা দেওয়ার সক্ষমতা স্বাস্থ্য বিভাগের রয়েছে। সরকার যথেষ্ট পরিমাণ টিকা পাচ্ছে না। তাই দিতে পারছে না। যে কারণে শঙ্কা থেকেই যায়। অন্যদিকে প্রথম ডোজ টিকা নিয়ে দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় আছেন প্রায় দেড় কোটি মানুষ। একইভাবে নিবন্ধন করে টিকার অপেক্ষায় আছেন ১ কোটি ৭০ লাখের মতো। এমন প্রেক্ষাপটে টিকা হাতে না পেয়ে পরিকল্পনা ঘোষণা করলেও তা ব্যাহত হতে পারে। তাতে আস্থা কমবে।

এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছিলেন, ‘চুক্তি অনুযায়ী বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা একটি দেশের জনসংখ্যার ২০ শতাংশ টিকা দিয়ে থাকে। তবে আমাদের আশ্বস্ত করেছে, জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়া হবে। এমনকি তারা টিকা উৎপাদনের জন্য কাঁচামাল দেয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আমাদের যে টিকা পাওয়ার তালিকা দিয়েছে, সেই তালিকা দেওয়া হয়েছে। শিডিউল অনুযায়ী টিকা পেলে ডিসেম্বর মধ্যে ৮ কোটি ও মার্চের মধ্যে ১২ কোটি মানুষকে দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া হবে। ১২ কোটি মানুষকে মার্চের মধ্যে টিকা দিতে পারলে ৭০ শতাংশের বেশি মানুষকে টিকা দেওয়া হয়ে যাবে।’

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com