দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের ‘বেস্ট এক্সপোর্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেল বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান

দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের ‘বেস্ট এক্সপোর্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেল বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান

http://lokaloy24.com/

করোনা মহামারির মধ্যেও চ্যালেঞ্জিং ব্যবসার জন্য বাংলাদেশি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ‘খান ট্রেডিং’কে দক্ষিণ কোরিয়া সরকার ‘বেস্ট এক্সপোর্ট অ্যাওয়ার্ড’ দিয়েছে।

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলের কোয়েক্স অডিটরিয়ামে এক অনুষ্ঠানে কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যাসোসিয়েশন (কিটা) এই অ্যাওয়ার্ড দেয়। অনুষ্ঠানে দেশটির প্রেসিডেন্ট মুন জে-ইন উপস্থিত ছিলেন।

ষ্টিল এক্সপোর্ট ব্যবসার জন্য এর আগে ২০১১ সালে প্রথম রপ্তানি অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিল খান ট্রেডিং। প্রতিবছর ৪৪টি ক্যাটাগরিতে এক্সপোর্ট অ্যাওয়ার্ড দিয়ে থাকে কিটা। চলতি বছর ৩ মিলিয়ন ক্যাটাগরিতে এই পুরস্কার পেয়েছে খান ট্রেডিং।

বিশ্বের অনেক দেশ থেকেই কোরিয়াতে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা করছেন বিপুল সংখ্যক মানুষ। কেউ কোন কোরিয়ানের সাথে পার্টনারশীপে, কেউবা নানা উপায়ে কোরিয়ান সিটিজেনশীপ নিয়ে ব্যবসার সাথে জড়িয়ে আছেন। খান ট্রেডং সেক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। বাংলাদেশি সিটিজেনশীপ নিয়েই এককভাবে এই প্রতিষ্ঠান সুনামের সহিত ব্যবসা করছেন।

জানা গেছে, খান ট্রেডিং প্রতিষ্ঠাতা শামিম খান কোরিয়াতে পাড়ি জমিয়েছিলেন ১৯৯১ সালে কন্ট্রাক ভিসায়। কোরিয়া আসার পূর্বে পুরান ঢাকার ইসলামপুরে বাবার সাথে করতেন কাপড়ের ব্যবসা। প্রায় এক দশক কোরিয়ার বিভিন্ন কোম্পানিতে চাকরি করে ২০০০ সাল থেকে ব্যবসা শুরু করেন কোরিয়াতে। হালাল ফুড থেকে শুরু করে চায়নিজ হোম অ্যাপলায়েন্স ইম্পোর্ট, নানা ব্যবসা করে শেষ পর্যন্ত স্থির হন ষ্টিল এক্সপোর্ট ব্যবসায়। ব্যবসায়ী পরিবারে বেড়ে ওঠা শামিম খানের ব্যবসার নানা কৌশল জানা থাকলেও ষ্টিল সম্পর্কে সামান্য ধারনাও ছিল না তখন। ছোট ভাই আকাশ খানের স্কুলবন্ধু বংশালের ষ্টিল ব্যবসায়ী মোস্তাফিজুর রহমানের (স্বতাধিকারি সান স্টার ইন্টাঃ, প্রাক্তন সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ আয়রন অ্যান্ড ষ্টিল ইম্পোর্ট এসোসিয়েশন) সদিচ্ছায় এবং সার্বিক সহযোগিতায় ২০০৩ যাত্রা শুরু হয় খান ট্রেডিংয়ের।

ভিসাগত জটিলতায় ২০০৭ এ মাত্র ৩ মাসের নোটিসে কোরিয়া ছাড়তে হয় শামিম খানকে। কোরিয়া ছাড়ার মাত্র ১৫ দিন পূর্বে ছোট ভাই আল আমিন খানকে কোরিয়া নিয়ে এসে ব্যবসা হস্তান্তর করেন শামিম খান। খান ট্রেডিং তখানো ছোট্ট শিশু, হাটিহাটি পা পা করে এগুচ্ছিল। ২০০৪ সালে কোরিয়াতে টুরিষ্ট ভিসায় একবার ৭ দিন ঘুরে যাওয়াই ছিল আল আমিন খানের কোরিয়ার একমাত্র অভিজ্ঞতা। সম্পুর্ণ অচেনা পরিবেশ, অজানা ভাষায় ব্যবসা নিয়ে সাগর নয় যেন মহাসাগরে পড়েন আল আমিন খান। এখনকার মত ইমু হোয়াটসঅ্যাপ ছিল না তখন। কলিংকার্ড ব্যবহার করে দেশে থাকা বড় ভাই শামিম খানকে ফোন ধরিয়ে দিয়ে কোরিয়ান সাপ্লায়ার, বায়ার, ব্যাংক, ট্যাক্স অফিস এমনকি ট্রাক ড্রাইভারদেরকেও সামলাতে হত আল আমিন খানকে। আল আমিন খানের অক্লান্ত পরিশ্রম আর দৃঢ়তায় নতুন যাত্রা শুরু করে খান ট্রেডিং। ব্যবসা হস্তান্তরিত হওয়ায় খান ট্রেডিং -এর এই ২০০৭ এর নতুন যাত্রার শুরুটাই প্রতিষ্ঠা কাল বলে পরিগণিত হয় কোরিয়াতে।

পরিবার ও ছোট্ট ছেলে মেয়ে দেশে রেখে একা একা কোরিয়াতে হাপিয়ে ওঠেন আল আমিন। ব্যবসা রেখে ছুটিতে দেশে যাবার ও সুযোগ মিলতো না তার। আরেক ছোট ভাই আকাশ খান তখন অষ্ট্রেলিয়া থেকে লেখাপড়া শেষ করে মাত্রই দেশে ফিরেছেন। ডেকে পাঠান আকাশ খানকে কোরিয়ার ব্যবসায় যোগ দিতে। ২০১০ সালে আকাশ খান যোগদেন খান ট্রেডিংয়ে। ২০১১ সালে পেয়ে যান ১ মিলিয়ন ডলার এক্সপোর্ট অ্যাওয়ার্ড। ওদিকে ২০১০ সালেই শামিম খান পাড়ি জমান কানাডা, গড়ে তোলেন ষ্টিল এক্সপোর্টের আরেক প্রতিষ্ঠান পোলার ষ্টিল, কানাডা। আকাশ খান তখন পর্যন্ত বাংলাদেশ কোরিয়া যাওয়া আশা করতেন। বছরে ৩/৪ মাস কোরিয়া বাকি সময় থাকতেন বাংলাদেশ।

২০১৪ সাল থেকে আল আমিন খান পরিবারসহ বাস করতে থাকেন কোরিয়াতে। ২০১৭ তে আকাশ খান ও ফ্যামিলিসহ পারি জমান কোরিয়াতে। দুই ভাইয়ের সম্মিলিত প্রচেষ্টা আর বড় ভাই শামিম খানের উপদেষ্টায় খান ট্রেডিং শুধু বাংলাদেশ ষ্টিল ইম্পোর্টাসদেরই না, কোরিয়ান ষ্টিল ব্যবসায়ীদের কাছে ও একটি সুপরিচিত এবং বিশ্বস্ত নাম। কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যাসোসিয়েশন (কিটা) -এর সম্মাননা প্রাপ্তি বাংলাদেশি হিসেবে সত্যি বিরল এবং গর্বের । এওয়ার্ড পাওয়া খান ট্রেডিং কোরিয়ার বুকে বাংলাদেশকে দিচ্ছে এক নতুন উচ্চতা, এক নব গৌরব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com