ঠাকুরগাঁওয়ে আখানগর ইউপি নির্বাচনী মাঠে বাজছে-রোমানের জয়ধ্বনী

ঠাকুরগাঁওয়ে আখানগর ইউপি নির্বাচনী মাঠে বাজছে-রোমানের জয়ধ্বনী

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,,ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফফিল ঘোষণার পর থেকেই গরম নির্বাচনী মাঠ। চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নানা জল্পনা কল্পণা অবসানের পর আ.লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন আখানগর ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি রোমান বাদশাহ্ । তিনি মনোনয়ন পাওয়ার পর থেকেই ঐ ইউনিয়নের নির্বাচনী মাঠে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে রোমানের জয়ধ্বনী। ২৩ নভেম্বর
মঙ্গলবার আখানগর ইউনিয়নে সরজমিনে গিয়ে জানা গেছে, দলমত নির্বিশেষে অধিকাংশ মানুষ সাবেক এই চেয়ারম্যানকে সমর্থণ করছে । কারন হিসেবে ইউনিয়নবাসী জানান, এই ইউনিয়নটি ছিলো বিএনপি-জামাতের দ্বারা নির্যাতিত একটি ইউনিয়ন। রোমান বাদশাহ্ আওয়ামীলীগে যোগদানের পর এই ইউনিয়নে নতুন করে আ.লীগ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সেই সাথে এককভাবে জনপ্রিয়তার শির্ষে অবস্থান করছেন এই সাহসী, প্রতিবাদী সাবেক চেয়ারম্যান রোমান বাদশাহ্ । ইউনিয়নবাসী স্কুল শিক্ষক গোলাম রব্বানী বলেন, চেয়ারম্যান হিসেবে রোমান বাদশাহ্ সার্বিকভাবে একজন যোগ্য ব্যক্তি। সরকার দলীয় প্রধান একজন যোগ্য ব্যক্তিকেই শনাক্ত করেছেন। রোমান বাদশাহ্ একজন মানুষ হিসেবে ইউনিয়নের জন্য, দলের জন্য যা করেছে তা অস্বীকার করার কোন অবকাশ নেই। গরীব মেহনতি মানুষের সাথে তার বন্ধু সূলভ আচরণ, নারীদের প্রতি অসীম সম্মান, ছোটদের প্রতি ভালোবাসা আর দলের প্রতি তার আনুগ্যত তাকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে নিয়ে গেছে। এবার ভোটের বিপ্লব ঘটিয়ে জনগণ নৌকার বিজয় নিশ্চিত করবে বলে আমি বিশ্বাস করি। স্থানীয় কৃষক সলেমান আলী বলেন, রোমান বাদশাহ্ ধনী গরিব কাউকে ভাগ করেনা। যে কেউ বিপদে পড়লে তাকে খবর দিয়ে আনতে হয়না। সে শোনা মাত্রই দ্রুত ছুঁটে আসে। আমি কৃষক মানুষ সব সময় ঘরে অর্থ থাকেনা । করোনার সময় তো আরও অবস্থা খারাপ ছিল । রোমান বাবাজি রাতের বেলা আমার বাসায় এসে আমাকে ভরসা দিয়েছিল। আমাকে সহযোগিতা করেছিল। আমি সেদিন রাতে অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। এমন মানুষ প্রতিটি গ্রামে থাকলে আর বেশি সংখ্যা হলে গরীব মানুষরা নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারতো। বিধবা নারী শাহিনা খাতুন বলেন, রোমান আমার ছেলের মতো। আমাকে কখনো মা ছাড়া ডাকেনি। শুধু আমাকে না। সে ছোটবড় নারীদের মা বোন ছাড়া কাউকে নাম ধরে ডাকেনি। ওর শাসনের কারনে নারীরা নিরাপত্তার সাথে চলেফেরা করতে পারে। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ জানান, আখানগর ইউনিয়নের কান্ডারাী হওয়ার পর এখানকার আওয়ামীলীগের রাজনীতি শক্তিশালী হচ্ছে। দল তরান্বিত করতে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করছেন রোমান বাদশাহ্ । এবারে তিনি নির্বাচিত হলে ইউনিয়নের নকশা উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে যাবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। আমরা যারা আ:লীগের কর্মী আছি তারা সবটুকু উজার করে তার জন্য কাজ করবো। এ বিষয়ে রোমান বাদশাহ্ বলেন, আমি সৌভাগ্যবান যে, আমার ইউনিয়নবাসী আমাকে খুব ভালোবাসে। তাদের সুখে দু:খে যেমন আমি থাকি তেমনি তারাও আমার সুখে দুখে সব সময় পাশে থেকেছে। আমি মূলত তাদের আবদার রাখতে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি। বঙ্গবন্ধুর রাজনীতিক জীবনের ইতিহাস উপলব্ধি করে আওয়ামীলীগে যোগদান করেছি। তারপর জনগণের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করেছি। আমি কতটুকু পেরেছি জানিনা। তবে ইউনিয়নবাসী আমাকে ডিমের ভেতর কুসুমের মত করে আগলে রেখেছে সমর্থন করছে। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভরসা রাখতে চাই আমার ইউনিয়ন বাসীকে সঙ্গে নিয়ে। কারন আমরা সবাই দেশের উন্নয়নের স্বার্থকে দেখবো। নৌকা সরকারের উন্নয়নের প্রতীক আর জনগণ উন্নয়ন চায়। নির্বাচন নির্ভর করে জনগণের কাছে। আমার জয় পরাজয় ঠিক করবে ইউনিয়নবাসী। যেহেতু তারা আমাকে ভালোবাসে সম্মান করে আমি চেষ্টা করবো আমৃত্যু পর্যন্ত তাদের পাশে থাকার। জীবনের শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত হলেও তাদের অধিকার নিশ্চিত করতে লড়ে যাবো।
উল্লেখ্য যে, ঐ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেব একজন নির্বাচন অংশ গ্রহণ করবে বলে জানা গেছে। প্রতীক বরাদ্দ হলে জানান যাবে। এছাড়াও ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলার চতুর্থধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামি ২৩ ডিসেম্বর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com