ব্রাম্মণবাড়িয়ায় মর্মান্তিক ট্রেন দূর্ঘটনায় হবিগঞ্জের ৮জন সহ নিহত ১৬

ব্রাম্মণবাড়িয়ায় মর্মান্তিক ট্রেন দূর্ঘটনায় হবিগঞ্জের ৮জন সহ নিহত ১৬

ব্রাম্মণবাড়িয়ায় মর্মান্তিক ট্রেন দূর্ঘটনায় হবিগঞ্জের ৮জন সহ নিহত ১৬
ব্রাম্মণবাড়িয়ায় মর্মান্তিক ট্রেন দূর্ঘটনায় হবিগঞ্জের ৮জন সহ নিহত ১৬

এম সজলুঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় যাত্রীবাহী দুই ট্রেনের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনায়  হবিগঞ্জের ৮ জনসহ  ১৬ জন নিহত।

সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের ক্রসিংয়ে আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ও তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের মধ্যে ওই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি আনোয়ারপুরের হাসান মিয়ার ছেলে আলী মোঃ ইউসুফ(৩৫),

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলা গ্রামের আলমগীর আলমের ছেলে ইয়াছিন আলম (১২), সদর উপজেলার রিপন মিয়া (২৫)

হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মদন মুরত গ্রামের আইয়ুব হোসেনের ছেলে আল-আমিন (২৮),

বড়বাজার এলাকার সোহেল মিয়ার  মেয়ে আদিবা আক্তার (৩)

চুনারুঘাট উপজেলার উলুকান্দি গ্রামের ফটিক মিয়া তালুকদারের ছেলে রুবেল মিয়া তালুকদার (২২),

পীরেরগাঁও গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে আশিকুর রহমান সুজন (২৪), আহম্মাদাবাদ গ্রামের আব্দুস ছালামের স্ত্রী পেয়ারা বেগম (৩২)।

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার মুসলিম মিয়ার স্ত্রী জাহেদা খাতুন (৩০), ব্রাম্মণবাড়িয়া সদরের সোহামনি (৩),

চাঁদপুর জেলার হাজিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম রাজারগাও গ্রামের মুজিবুর রহমান (৫০) তার স্ত্রী কুলসুমা (৪২), চাদপুর সদর উপজেলার উত্তর বালিয়া গ্রামের বিলাল ব্যাপারির মেয়ে ফারজানা আক্তার (১৮), হাইমচর কাকলী এলাকার মরিয়ম (৪), ফারজানা (১৫), নোয়াখালী মাইজদীর রবি হরিজন (২৩)

মঙ্গলবার সকালে নিহতদের বাড়িতে খোজ নিয়ে জানা যায়, আত্বীস্বজনদের কান্নায় এলাকার বাতাস ভারি হয়ে ওঠছে। নিহত রুবেল প্রাণ কোম্পানীতে চাকুরি করতো। ৪ বন্ধুকে নিয়ে কক্সবাজারে উদ্দেশ্য রওনা হয় সে। প্রতিমধ্য মর্মান্তিক দূর্ঘটনায় রুবেল ও সুজন নিহত হয়। অপর দুই বন্ধু চুনারুঘাটের বনগাও গ্রামের ফ্রান্সপ্রবাসী জনি মিয়া (২৮), পাইকপাড়া গ্রামের ফরিদ মিয়ার ছেলে রাজন মিয়া (৩০) ঢাকা ও সিলেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

শহরতলী বহুলা গ্রামের আলমগীর আলম তার শিশু ছেলে ইয়াছিন আলমকে নিয়ে চট্রগ্রাম মাইজভান্ডার দরবার শরীফে একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠাবে যোগ দিতে রওনা দিয়েছিলেন। দূর্ঘটনায় ছেলে ইয়াছিন নিহত হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় আলমগীর আলম ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। একমাত্র ছেলে ইয়াছিনের মৃত্যুতে তার পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

শহরতলীর আনোয়ারপুরের আলী মোঃ ইউসুফের স্ত্রী চট্টগ্রামের একটি হাসপাতালে সেবিকা হিসাবে কাজ করে। স্ত্রী ও সন্তানকে আনতে  তিনি সেখানে যাচ্ছিলেন।

সোহেল মিয়া কর্মস্থলে যোগদানের জন্য স্ত্রী নাজমা বেগম, কন্যা আদিবা আক্তার সোহা ও ছেলে সোহাগকে নিয়ে চট্টগ্রামে যাচ্ছিলেন ।  দূর্ঘটনায় তার স্ত্রী-পুত্র বেঁচে গেলেও নিহত হয় শিশু আদিবা।

মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার জাকির হোসেন চৌধুরী বলেন, সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনটি এক নম্বর লাইনে ঢুকছিল। এ সময় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তুর্ণা নিশীথাকে আউটারে থাকার সিগনাল দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই সিগনাল অমান্য করে মূল লাইনে ঢুকে পড়ার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com