‘ট্রেনের উচ্চতা দোতলার সমান, বউ বাচ্চা নিয়ে ওঠা বে-ইজ্জতের কারবার’

‘ট্রেনের উচ্চতা দোতলার সমান, বউ বাচ্চা নিয়ে ওঠা বে-ইজ্জতের কারবার’

‘ট্রেনের উচ্চতা দোতলার সমান, বউ বাচ্চা নিয়ে ওঠা বে-ইজ্জতের কারবার’
‘ট্রেনের উচ্চতা দোতলার সমান, বউ বাচ্চা নিয়ে ওঠা বে-ইজ্জতের কারবার’

লোকালয় ডেস্ক- যাত্রাপথে দূরত্বের ক্লান্তি আর দীর্ঘ সময় যানজটে বসে থাকার বিড়ম্বনা থেকে বাঁচতে বাসে না চড়ে ট্রেনকে বিকল্প বাহন হিসেবে গ্রহণ করে দেশবাসী। অন্তত যানজটের কবল থেকে মুক্ত থাকা যায় ট্রেন ভ্রমণে। কিন্তু এই ট্রেনে উঠতে অনেক সময় রীতি মতো যুদ্ধ করতে হয়। স্টেশনে সামান্য সময়ের জন্যই থামে চলন্ত ট্রেন। খুব দ্রুতই আবার ছেড়ে যায় প্লাটফর্ম।

কিন্তু এই দ্রুত সময়ে ট্রেনে উঠতে গিয়ে সবচে বেশি বিপত্তিতে পড়তে হয় নারী, শিশু, বয়স্ক অসুস্থ যাত্রীদের। অধিকাংশ ট্রেন প্লাটফর্ম থেকে অনেকটা উঁচু হয়ে থাকে। ফলে তিন থেকে চার ধাপ সিড়ি বেয়ে ট্রেনে উঠতে হয়। এখানেই নারী, শিশু ও বয়স্কদের জন্য বিড়ম্বনার কারণ।

দ্রুততা, বয়সের কারণে দূর্বলতা, প্রয়োজনীয় মালামালের বোঝা ও ব্যাগপত্রের কারণে ট্রেনে উঠতে গিয়ে অনেক সময় দূর্ঘটনার শিকার হন যাত্রীরা। এসব বিষয় নিয়েই এবার লাইভে এসেছেন বিশিষ্ট আইনজীবি ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

শুক্রবার (৫ জুলাই) রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে ফেসবুকে লাইভে এসে প্ল্যাটফর্ম থেকে ট্রেনে ওঠার সিঁড়ির দূরত্ব দেখিয়ে সুমন বলেন, ‘এই ট্রেনটাকে মিটার গেজ (পরে সংশোধন করে বলেন ব্রডগেজ) বলা হয়। আমার প্রশ্ন হলো-প্ল্যাটফ্রম থেকে দূরত্ব বা উচ্চতা কত? ব্রিটিশ আমলের ট্রেনগুলো ছিল এমন। আপনারা (রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ) নতুন ট্রেন আনলেন কিন্তু প্ল্যাটফর্ম এখনো পুরনো।’

রেলওয়ে স্টেশনে উপস্থিত লোকদের দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘দেখেন সবাই, প্ল্যাটফর্ম থেকে ট্রেনের উচ্চতা দোতলার সমান। কোনো স্টেশনে ট্রেনটি তিন মিনিট থামে। তিন মিনিটে ৫০ জন মানুষ প্রায় দুই তলার সমান উচ্চতায় ওঠা কি সম্ভব?’

রেলমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘রেলমন্ত্রী, ট্রেন আপনি অনেক উঁচু বানিয়ে দিছেন। আর প্ল্যাটফর্ম এখানে বিট্রিশ আমলের। আমি কমলাপুর সেন্ট্রাল স্টেশন থেকে বলছি। আর গ্রামের স্টেশনগুলোর অবস্থা তো আরও খারাপ। সেখানে ট্রেনে উঠতে তো রীতিমতো যুদ্ধ করতে হয়। বউ বাচ্চা নিয়ে ওঠা একটা বে-ইজ্জতের কারবার।’

তিনি আরও বলেন, ‘দুনিয়া এগোচ্ছে, সব কিছু এগোচ্ছে। রাতারাতি পরিবর্তন করতে পারবেন না। তবে ব্রেইনে আনেন পরিবর্তন করার। আপনারা বউ-বাচ্চা লইয়া ট্রেনে যাতায়াত করবেন কি-না জানি না। তবে, এই প্ল্যাটফর্ম ট্রেনের সমান করতে কোটি কোটি টাকার দরকার পড়বে না। আশা করি রেলমন্ত্রীসহ সকলেই এর প্রতি সদয় হবেন।’

এর আগে (৩০ মে) ব্যারিস্টার সুমন স্টেশনের সামনে রেললাইনের ওপর বেড়ে ওঠা ঘাস কেটে পরিচ্ছন্ন করার অনুরোধ জানিয়ে তার নিজের ফেসবুক পেজে লাইভ দেন। এর পরদিনই (শুক্রবার) সেসব ঘাস কেটে পরিষ্কার করে ফেলে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com