সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে প্রশাসনের উদ্যোগে বিশ্ব নদী দিবসে বর্ণাঢ্য র‍্যালি অনুষ্ঠিত বালু উত্তোলনে অস্তিত্ব সংকটে নদী : খোয়াই, করাঙ্গী, সুতাং ও ইছামতী হুমকির মুখে পঞ্চগড়ে নৌকাডুবিতে মৃত্যু বেড়ে ৩১ : স্বজনদের আহাজারি শহরে অবৈধভাবে প্যাকেটজাত সরিষার তেল ও নকল বিড়ি মজুদের দায়ে ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড ৪২টি চোরাই মোবাইলসহ চোরচক্রের মূলহোতা জগলু নবীগঞ্জে আটক মাধবপুরে বিএনপি নেতা কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ওসিসহ আহত ১০ : আটক ৩ আগামীকাল রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা দখলমুক্তের দাবিতে সাইকেল র‍্যালি ওয়াশিংটন ডিসি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবকের ইশাতের ছবি ব্যবহার করে প্রতারণা আটক করেছে ভোলা জেলা সিআইডি যৌতকের টাকা নিয়ে গৃহবধুকে নির্যাতন: নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন গৃহবধু
টিভি সাক্ষাৎকারে তিনি কেঁদে ফেলেছিলেন

টিভি সাক্ষাৎকারে তিনি কেঁদে ফেলেছিলেন

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে সদ্য প্রয়াত ড. আকবর আলি খানের অংশগ্রহণ ছিল তার প্রত্যয়দীপ্ত জীবনের এক অবিসংবাদিত অধ্যায়। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে ১৯৬৪ সালে সম্মান ও ১৯৬৫ সালে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন, দুটিতেই প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হন। বিভাগে চারটি পদ শূন্য থাকলেও মেধা ও প্রথা অনুযায়ী তিনি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে প্রাপ্য চাকরি না পেয়ে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতায় যোগ দেন। ১৯৬৬ সালে তিনি সিভিল সার্ভিস অব পাকিস্তানভুক্ত হয়ে যোগ দেন সরকারি চাকরিতে।  প্রশিক্ষণ শেষে ১৯৬৯ সালে রাজশাহীতে সহকারী কমিশনার এবং ১৯৭০ সালে হবিগঞ্জ মহুকুমার এসডিও হিসেবে পদস্থ হন। তিনি তার এলাকায় সুষ্ঠুভাবে ১৯৭০-এর নির্বাচন পরিচালনা করেন।

মুক্তিযুদ্ধ শুরুর আগের অসহযোগ আন্দোলনে তিনি সমর্থন দেন। পাকিস্তান বাহিনীর আক্রমণ শুরু হলে প্রতিরোধের জন্য হবিগঞ্জ পুলিশের অস্ত্র মুক্তিকামী সাধারণ মানুষের হাতে তুলে দেন। সে সময় অনেক সরকারি কর্মচারীই লিখিত অনুমতি ছাড়া অস্ত্রের জোগান দিতে অস্বীকৃতি জানান। ওই পরিস্থিতি সম্পর্কে এক স্মৃতিচারণমূলক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান “২৫ মার্চ তারিখ রাতে আমি সিলেট থেকে ডেপুটি কমিশনারের একটি টেলিফোন কল পাই। তিনি আমাকে জানান যে পরদিন সকালে ফজরের নামাজের আগে আমি যেন সিলেটে রওনা হয়ে সোজা তার বাংলোয় গিয়ে উঠি। সেখানে তার সঙ্গে আমার গোপন পরামর্শের প্রয়োজন রয়েছে। ডেপুটি কমিশনারের নির্দেশ অনুসারে পরদিন ফজরের নামাজের সময় আমি হবিগঞ্জ থেকে সিলেটে রওনা হই। ঘণ্টা দু-একের মধ্যে আমি মৌলভীবাজার পার হয়ে শেরপুর ফেরিঘাটে পৌঁছাই। ফেরিঘাটে বেশ কিছু লোকজন দেখতে পাই। তারা আমার গাড়িকে থামিয়ে দিয়ে বলেন যে আমি যেন জিপসহ ফেরিতে যাওয়ার চেষ্টা না করি। পাকিস্তান সেনাবাহিনী সেখানে মেশিনগান উঁচিয়ে বসে আছে এবং কেউ ফেরির দিকে গেলে তাকে গুলি করার হুমকি দিচ্ছে। কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে আমি মৌলভীবাজারের দিকে ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করি, কিন্তু সেখানেও জনগণ বাধা দিল। তারা বলল, মৌলভীবাজার থেকে জাতীয় রাজপথ দখল করে নিয়েছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। মেশিনগানধারী পাকিস্তান বাহিনী সেখানে গেলে গুলি করবে। আমার পক্ষে তখন সিলেটে যাওয়া সম্ভব নয়, আবার যে পথ দিয়ে হবিগঞ্জ থেকে এসেছিলাম, সে পথ দিয়ে ফিরে যাওয়াও সম্ভব নয়। লোকজন আমাকে পরামর্শ দিল, শেরপুর থেকে একটি মাটির রাস্তা নবীগঞ্জ পর্যন্ত গেছে। এ রাস্তা দিয়ে আমি নবীগঞ্জে যেতে পারি। নবীগঞ্জ থেকে হবিগঞ্জে আরেকটি মাটির রাস্তা আছে। এ সময় চেষ্টা করলে জিপ দিয়ে নবীগঞ্জ থেকে হবিগঞ্জে যাওয়া সম্ভব হতে পারে। তবে এর জন্য কোথাও কোথাও স্থানীয় লোকজনের সহায়তার প্রয়োজন হবে। আমি নবীগঞ্জে পৌঁছালে অনেক মানুষের ভিড় হয়। তারা ‘জয় বাংলা’ ধ্বনি দিয়ে আমাকে স্বাগত জানায়। সার্কেল অফিসারের সঙ্গে পরামর্শ করে আমি নবীগঞ্জ থেকে হবিগঞ্জে ফিরে যাওয়ার উদ্যোগ নিই। নবীগঞ্জ থেকে আমি বেলা ২টার দিকে রওনা দিই। হবিগঞ্জে সন্ধ্যা ৭টার দিকে পৌঁছাই। আমার গাড়ি এসডিওর অফিসে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এক বিশাল জনসমাবেশ হয়। এই জনসমাবেশ আমার কাছে তাৎক্ষণিকভাবে অস্ত্র চায়। আমি জনতাকে বোঝাই, অস্ত্র সম্বন্ধে আগামীকাল সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আমি বাসায় ফিরে আসি।

পর দিন (২৭ মার্চ ১৯৭১) বন্দুকের জন্য আবার দরবার শুরু হয়। স্থানীয় লোকজন এসডিপিওর কাছে বন্দুক চায়। তিনি বলে দেন যে এসডিও হুকুম দিলে তিনি বন্দুক দেবেন। অন্যথায় সরকারের বন্দুক রক্ষা করার জন্য তার পুলিশ সব ধরনের ব্যবস্থা নেবে। সুতরাং সবাই আমার আদেশের জন্য উপস্থিত হয়। কিন্তু আমি এই জনতার মধ্যেও উপদল দেখতে পাই। মানিক চৌধুরীর সমর্থকরা বন্দুক নেওয়ার ব্যাপারে সবচেয়ে উদগ্রীব ছিলেন কিন্তু কোনো কোনো আওয়ামী লীগ নেতার মনে মানিক চৌধুরীর সমর্থকদের বন্দুক দেওয়া সঠিক হবে কি না, সে সম্বন্ধে সন্দেহ ছিল। আমি এ সম্পর্কে লেফটেন্যান্ট কর্নেল রবের সঙ্গে পরামর্শ করতে চেয়েছিলাম। তিনি তখন আগরতলা সীমান্তে। তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব ছিল না। আমি তার কাছে একজন বার্তাবাহক পাঠাই। সারা দিনেও রব সাহেবের কাছ থেকে কোনো বার্তা পাইনি। আমি জনতাকে বলি যে আমি আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করছি এবং আগামীকাল এ সম্বন্ধে সিদ্ধান্ত দেব।

পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি, বন্দুকের জন্য দুই দাবিদার আমার বাংলোয় এসে হাজির হয়েছেন। হবিগঞ্জের জনগণের পক্ষ থেকে এসেছেন মেজর সি আর দত্ত। মেজর সি আর দত্তের বাড়ি হবিগঞ্জ মহকুমা শহরে। তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মেজর ছিলেন। ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে তিনি দুই মাসের ছুটি নিয়ে হবিগঞ্জে আসেন। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি হবিগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা নেতা হিসেবে আবির্ভূত হন। অন্যদিকে দাবিদার ছিলেন একজন ক্যাপ্টেন। এই তরুণ অফিসারকে পাঠিয়েছেন মেজর খালেদ মোশাররফ। মেজর খালেদ মোশাররফ দাবি করছেন যে বন্দুকগুলো যদি তাকে দেওয়া হয়, তাহলে তার সদ্ব্যবহার হবে। তবে বন্দুকগুলো যদি স্থানীয় লোকজনকে দেওয়া হয়, তাহলে বন্দুকগুলোর হিসাব রাখা যাবে না। এ সম্পর্কে আমার উপস্থিতিতে ক্যাপ্টেন সাহেব এবং মেজর সাহেব তর্ক শুরু করেন। তর্কের মাধ্যমে সমাধান না হওয়ায় তারা তাদের রিভলবার বের করে একে অপরকে গুলি করার হুমকি দেন। আমি কোনো রকমে তাদের কোনো অপ্রীতিকর কাজ করা থেকে বিরত করি এবং প্রস্তাব করি, অফিসে আমি এ ব্যাপারে সবার সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব। অফিসে যাওয়ার আগেই আমি লেফটেন্যান্ট কর্নেল রবের পরামর্শ পাই।

অফিসে যাওয়ার পর মানিক চৌধুরী একটি রিভলবার নিয়ে আমার অফিসে হাজির হন এবং ধমকের সুরে বলেন, আমি তাকে বন্দুক দেওয়ার আদেশ না দিলে তিনি আমাকে গুলি করবেন। ততক্ষণে কর্নেল রবের কাছ থেকে আমি পরামর্শ পেয়ে গেছি যে স্থানীয় লোকজনকে বন্দুকগুলো দেওয়াই যুক্তিযুক্ত হবে। আমি হেসে একটা কাগজ নিয়ে বন্দুকগুলো আনসারের মহকুমা কমান্ডারের মাধ্যমে দেশ রক্ষার জন্য দেওয়ার আদেশ দিই। কমান্ডার মানিক চৌধুরী এই আদেশ নিয়ে ট্রেজারির রক্ষীদের দেন। ট্রোরির রক্ষীরা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার আদেশ নিয়ে বন্দুকগুলো মানিক চৌধুরীর অনুসারীদের হাতে দেয়। তারা বন্দুকগুলো নিয়ে সোজা সিলেটের দিকে রওনা হয়ে যান।

বন্দুক দেওয়ার আদেশে আমি আমার পদবি নিম্নরূপে বর্ণনা করি। ‘বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে আকবর আলি খান এসডিও হবিগঞ্জ’।” (প্রথম আলো/ মুক্তিযুদ্ধের সূচনা পর্বে/২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২) আকবর আলি খান মুক্তিযোদ্ধাদের খাদ্য জোগান দেওয়ার জন্য গুদামঘর খুলে দেন, স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য তহবিল তৈরি করতে ব্যাংকের ভল্ট থেকে প্রায় তিন কোটি টাকা উঠিয়ে ট্রাকে করে আগরতলায় পৌঁছে দেন। পাকিস্তান বাহিনীর চাপের মুখে তিনি হবিগঞ্জ ছেড়ে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলায় আশ্রয় নেন। আগরতলায় যাওয়ার পর সহযোগীদের নিয়ে তিনি একটি পূর্বাঞ্চলীয় প্রশাসন গড়ে তোলার চেষ্টা করেন, যার লক্ষ্য ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের এবং একই সঙ্গে শরণার্থীদের সহায়তা করা। প্রথমদিকে তাদের প্রচেষ্টা ছিল স্বনির্ভর। মুক্তিযুদ্ধের সূচনার দিকেই তেলিয়াপাড়া চা বাগানে গণপ্রতিনিধি, সামরিক কমান্ডার ও বেসামরিক কর্মকর্তাদের একটি প্রস্তুতিমূলক সভায়ও তিনি যোগ দেন। ওই সভায় তখনকার কর্নেল (অব.) ওসমানী (পরবর্তী সময়ে প্রধান সেনাপতি) উপস্থিত ছিলেন। মে মাসের শেষ সপ্তাহে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী আগরতলা সফরে এলে রাজভবনে বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবীদের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত বৈঠকে মিলিত হন। বৈঠকে যে পাঁচজন বাংলাদেশি বুদ্ধিজীবী যোগ দিয়েছিলেন ড. আকবর আলি খান ছিলেন তাদের একজন।

এপ্রিলে মুজিবনগর সরকার গঠিত হয়। মে মাসে তিনি যোগাযোগ শুরু করেন। জুলাই মাসে তাকে সরকারে যোগ দেওয়ার জন্য কলকাতায় যেতে বলা হয় এবং সেখানে তিনি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে ডেপুটি সেক্রেটারি বা উপসচিব হিসেবে পদস্থ হন। আগস্ট মাসে তাকে উপসচিব হিসেবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে বদলি করা হয়। ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীনতা লাভ অবধি তিনি এই পদেই ছিলেন।

সাক্ষাৎকারে তিনি উল্লেখ করেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য আমরা অত্যন্ত গর্বিত। এ জন্য গর্বিত নয় যে বাংলাদেশ হয়েছে বলে আজ অর্থনৈতিকভাবে উন্নতি করেছি বা আমাদের লোকজন দেশ শাসন করছে। বরং আমি এ কারণে গর্বিত যে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। স্বাধীনতার চেয়ে বড় অর্জন মনে হয় কিছু হতে পারে না। যেহেতু মুক্তিযুদ্ধ আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছে, সেজন্য আমি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য সব সময় গর্ব বোধ করি। তবে মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের মধ্যে বিভিন্ন আন্তঃরাজনীতিক কোন্দল ছিল; অনেক সমস্যা ছিল, যেগুলো আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে অসুবিধা সৃষ্টি করেছে। এসব সত্ত্বেও আমি মনে করি যে বাঙালি জাতির জীবনের সবচেয়ে বড় অধ্যায় বাংলাদেশের স্বাধীনতা।’ (প্রাগুক্ত) মৃত্যুর পর গুলশানের আজাদ মসজিদে জানাজার পর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা লাভ ছাড়া মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের স্বীকৃতিস্বরূপ জীবিতকালে কোনো পদক-পদবি সুযোগ-সুবিধা তিনি পাননি বা নেননি। কোনো এক জাতীয় দিবসে বঙ্গভবনের আঙিনায় রাষ্ট্রপতির সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে একজন মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীর অতিরিক্ত কিছু খাবার সংগ্রহ করার খবর পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এক টিভি সাক্ষাৎকারে বিষয়টির উল্লেখ করে প্রশ্ন করা হলে তিনি কেঁদে ফেলেছিলেন। বলেছিলেন, ‘যে দেশের জন্য আমরা যুদ্ধ করেছি, সেই দেশে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী খাবার টুকিয়ে খাবেন, এটা কোনোভাবে মানতে পারি না। আমি কখনো বঙ্গভবনে যাব না।’

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com