সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
টিকা নিচ্ছেন এক সনদে আরেক

টিকা নিচ্ছেন এক সনদে আরেক

http://lokaloy24.com/

মাহফুজুল হক বাবু, পেশায় ব্যবসায়ী। মধ্যবয়স্ক বাবু বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে গত ৮ সেপ্টেম্বর করোনার টিকা অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ নেন। দুইমাস পর চলতি ৮ নভেম্বর দ্বিতীয় ডোজ নেন। সব কিছু ছিলো ঠিক।

সম্প্রতি মাহফুজুল হকের মোবাইলে টিকা দুই ডোজ সম্পন্ন হওয়া মেসেজ এলে তিনি টিকার সনদ তুলতে গিয়ে দেখেন— অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিয়েও সনদ এসেছে সিনোফার্মের টিকার। ততক্ষণে চক্ষু চড়কগাছ। টিকা দিলেন অ্যাস্ট্রাজেনেকার আর সার্টিফিকেট পেলেন সিনোফার্মার— এ কেমন প্রযুক্তির খেলা! তা বুঝে উঠতে পারছেন না ব্যবসায়ী তিনি।

টিকা কার্ডে অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ প্রয়োগের পর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা টিকার নাম সম্বলিত সিল ও স্বাক্ষর দিয়েছেন। কিন্তু দ্বিতীয় ডোজের পর স্বাক্ষর করলেও কোন টিকা দিয়েছেন সেটি উল্লেখ করেননি। মিক্সড ডোজের আতঙ্কে তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন।

এ নিয়ে প্রতিকার চেয়ে দুপচাঁচিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগাযোগ করলেও তারা তাকে কোনো সহায়তা করেননি। উল্টো কর্তব্যরত চিকিৎসক ও তার কর্মকর্তারা বিষয়টি নিয়ে তাকে জেরার মুখে ফেলেছেন। চিকিৎসক উল্টো প্রশ্ন করে বলেন, আপনি কি বিদেশ যাবেন? টিকা সার্টিফিকেট যেটা এসেছে সেটা নিয়েই থাকেন।

এর আগে গত অক্টোবরে একই অভিযোগ করেছিলেন রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা আফরোজ সৌরভ। প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে বিশেষ গণটিকার সময় তিনি আগারগাঁওয়ের একটি অস্থায়ী কেন্দ্র থেকে মডার্নার প্রথম ডোজ নেন। প্রথম ডোজ সম্পন্ন হয়েছে মর্মে এসএমএস পাওয়ার পর তিনি সুরক্ষা ওয়েবসাইট থেকে টিকার সার্টিফিকেট তুলতে গিয়ে দেখেন সেখানে সিনোফার্মের তথ্য আপডেট হয়েছে।

এমন অভিযোগ শুধু মাহফুজুল হক কিংবা আফরোজ সৌরভের নয়, প্রতিনিয়ত স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিভাগের সহায়তা সুরক্ষা ওয়েবসাইট পরিচালনায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কাছে দেশের বিভিন্ন টিকাদান কেন্দ্র থেকে হাজরো অভিযোগ জমা পড়ছে।

ভুক্তভোগীরা বলছেন, টিকাদান সংশ্লিষ্টদের আচরণ এমন যে, দায়সারাভাবে তারা টিকা দিতে পারলেই বাঁচে। কোন টিকা দেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে স্বাস্থ্যকর্মীরা টিকা গ্রহীতাকে অপমান করেন। অথচ টিকা গ্রহণের আগে তথ্য জানা তার অধিকার। দেশের টিকাদান কার্যক্রমে এভাবেই চলছে গণহয়রানি।

ব্যবসায়ী মাহফুজুল হক আমার সংবাদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, ‘আমি ওমরাহ করতে যাবো। এ জন্য অনেকদিন অপেক্ষার পর অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিলাম। এখন আমাকে বলা হচ্ছে— এটি ভুল হয়েছে, এর সমাধান নেই। আবার ডাক্তার বলেন যে, আমি কি বিদেশ যাবো? আমি সমাধান পাইনি।’

তিনি বলেন, ‘দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিলাম। সেখানে কোনো সিল দেয়নি, জানতে চেয়েছি— বলছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার দিয়েছে। এখন আমি কিভাবে ওমরাহ পালন করতে যাবো। আমি তো সিনোফার্মার টিকা নেইনি, অথচ টিকার সার্টিফিকেটে দেয়া হলো সিনোফার্মা। এদিকে দেশেও তো বুস্টার ডোজ দেয়া হচ্ছে না।’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এরকম অহরহ অভিযোগ তাদের কাছে আসছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে দুপচাঁচিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক এম এ কুদ্দুস বিষয়টি স্বীকার করে আমার সংবাদকে বলেন, ‘আমাদের এখানে দু’-একজনের টিকা মেসেজে সমস্যা দেখা দিয়েছে। বেশির ভাগ টিকা সিনোফার্মের তো, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কম— তাই অনেক সময় হাতের কাছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার সিল নাও থাকতে পারে। এ জন্য হয়তো দুই একটাতে এমন ভুল হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে চিন্তার কিছু নেই। ঢাকা থেকে ঠিক করা যাচ্ছে। ঢাকায় এমআইএসে যোগাযোগ করলে ঠিক করা হয়। এরপরও আমার কেন্দ্রে যদি কারো সমস্য হয় আমার সঙ্গে যোগাযোগ করলে ব্যবস্থা নেবো। যাদের ভুল হয়েছে তারা একটি আবেদনের মাধ্যমে আমাদের কাছে এলে আমরা ঠিক করে দেবো।’

এ বিষয়ে সরকার গঠিত টিকাবিষয়ক বিশেষ কমিটি ন্যাশনাল ইমিউনাইজেশন টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজরি গ্রুপের (নাইট্যাগ) সদস্য ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. বে-নজির আহমদ বলেন, ‘এরকম স্পর্শকাতর কাজে ভুল হওয়া উচিত নয়। তারপরও ব্যাপারটা হয়েছে কি যে, আমাদের এক সাথে অনেক লোককে টিকা দিতে হচ্ছে তো; যার ফলে যারা টিকাদানে যুক্ত হচ্ছে তাদের ওপরেও প্রেসার পড়ে। প্রতি কেন্দ্রে দুই-তিনশ কিংবা ৪০০ জনকে টিকা দিতে হয়। আরেকটি বিষয় হলো— আমাদের গ্রামে যেরকম যে স্বাস্থ্য সহকারীরা দীর্ঘদিন টিকা দেয় তারা এটাতে অভ্যস্ত। কিন্তু প্রথমে টিকা দেয়া হয়েছে নার্সকে দিয়ে। নার্সরা তো এই কাজটা করেন না। এটা তো তাদের জন্য নতুন কাজ। যার ফলে এসব কিছু ভুল হয়েছে। যিনি অভ্যস্ত না তাকে দিয়ে যদি কাজ করান তার ভুলত্রুটি হতেই পারে। এখানেও তাই হচ্ছে। যাদের এমন ভুল হবে তাদের জন্য পরামর্শ তারা যেনো ওখানেই ইপিআইতে একটা দরখাস্ত (অভিযোগ) করেন। তারপর ওরা একটা তদন্ত করে যেনো সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।’

তিনি বলেন, ‘যেখানে সমস্যা হচ্ছে সেখানকার ইপিআইতে অভিযোগ করলে ওনারা একটু তদন্ত করে দেখবে, যে সময় উনি টিকা নিয়েছেন সেই সময়ে ওইখানে কোন টিকার সাপ্লাই ছিলো। ওদের কাছে তো এ সংক্রান্ত তথ্য আছে। ওই অনুযায়ী তারপর সিদ্ধান্ত নেবে। যেমন ধরেন কয়েকটা বিষয় আছে, যদি সত্যি প্রথম একটা কোম্পানির টিকা দ্বিতীয়তে আরেকটা কোম্পানির টিকা নিয়ে থাকে সেটাও যোগ্য, অনেক বেশি সমস্যা হবে না।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস বিভাগের পরিচালক ও টিকাদান কার্যক্রম সংশ্লিষ্ট কমিটির সদস্য অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান বলেন, কিছু তথ্য মিস্টেক হচ্ছে, সেই খবর আমরাও পাচ্ছি। এ জন্য আমরা আইসিটি বিভাগ থেকে ওই পাসওয়ার্ডও নিয়ে রেখেছিলাম। কিন্তু কিছুদিন পর দেখা গেলো যে, মানুষের উপকার করতে গেলে ধান্ধাবাজের অভাব নেই। কিছু মানুষ এটার মিস ইউজ করছিল। তখন আমরা এই সংশোধন ব্যবস্থা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হলাম। এখন আবার চালু করার প্রক্রিয়া চলছে। কিছুদিন পর আবার চালু করা হবে। তখন আবার কেউ আবেদন করলে যথাযথভাবে সংশোধন করতে পারবে।’

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com