টাকা-ইয়াবা রেখে আসামিকে রেহাই, ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ

টাকা-ইয়াবা রেখে আসামিকে রেহাই, ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ

টাকা-ইয়াবা রেখে আসামিকে রেহাই, ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ
টাকা-ইয়াবা রেখে আসামিকে রেহাই, ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ

ঢাকা- প্রায় একবছর আগে ৪৯ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় আসামিদের জবানবন্দিতে নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলামের নাম আসায় তাকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

ওই ঘটনায় করা মামলায় আসামি পুলিশ সদস্য আসাদুজ্জামানের জামিন আবেদনের নিষ্পত্তি করে আজ সোমবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি ও নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপারকে নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ওসি কামরুল ইসলামকে প্রত্যাহারের নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে এক মাসের মধ্যে এ মামলার তদন্ত শেষ করতে তদন্ত কর্মকর্তাকে (আইও) নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সহকারি অ্যাটর্নি জেনারেল ইউসুফ মাহমুদ মোর্শেদ। আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন সুজিত চ্যাটার্জি বাপ্পী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ইউসুফ মাহমুদ মোর্শেদ।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৭ মার্চ নারায়ণগঞ্জ ডিবি পুলিশ সদর থানার এএসআই আলম সরোয়ার্দীর বাসা থেকে প্রায় ৫০ হাজার পিস ইয়াবা ও পাঁচ লাখ টাকা উদ্ধার করে। পরে এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়। ওই মামলার আসামি পুলিশ সদস্য আসাদুজ্জামান ও সরওয়ার্দী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে বলেন, এটি তারা নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ওসি কামরুলের নির্দেশে করেছেন। তার নির্দেশেই টাকা ও ইয়াবা রেখে আসামিদের ছেড়ে দেয়া হয়।

জানা যায়, মাদক ব্যবসীদের আটক করে বাসায় নিয়ে যেত এসআই আলম সরোয়ার্দী। পরে দেন-দরবার শেষে ছেড়ে দিত। ঘটনার দিন বিকেলেও ২জনকে হাতকড়া পরা অবস্থায় সে তার ফ্ল্যাটে নিয়ে আসে। পরে রাতে ছেড়ে দেয়। এর মধ্যে এক নারীর কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায় করে সে। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে ঐ রাতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে বন্দরের রূপালী আবাসিক এলাকায় তার ভাড়া ফ্ল্যাটে অভিযান চালায় ডিবি ও বন্দর থানা পুলিশ। এসময় ৪৪ হাজার পিছ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

পরে এএসআই সরোয়র্দীকে সদর মডেল থানায় ডিউটিরত অবস্থায় আটক করা হয়। এসময় তার সঙ্গে থাকা ব্যাগ তল্লাশী করে আরো ৫ হাজার পিছ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ কনস্টেবল আসাদুজ্জামানসহ আরও কয়েকজনকে আটক করা হয়।

আটক হওয়া পুলিশ সদস্য আসাদুজ্জামান, সরোয়ার্দীসহ অনেকের জবানবন্দিতে এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ওসি কামরুল ইসলামের নাম উঠে আসে। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া এবং স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে ওসির নাম উঠে আসার পরও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

এর মধ্যে আসাদুজ্জামান হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন। এ আবেদনের শুনানিতে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বিষয়টি হাইকোর্টের নজরে আসে। তখন ওসিকে কেন এ মামলায় আসামি করা হয়নি তার কারণ ব্যাখ্যা করতে মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব করেন আদালত।

আদালতে নির্দেশে আজ আইও হাজির হলে তার বক্তব্য শুনে নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ওসি কামরুল ইসলামকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com