জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ যেন আলাদীনের চেরাগ!

জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ যেন আলাদীনের চেরাগ!

জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের দপ্তরটি যেন ঘুষ-দুর্নীতি-লুটপাটের আখড়াস্থল।

সরকারি জায়গা, প্লট লিজ কিংবা বরাদ্দ দেয়ার নামে একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজেদের আখের গুছিয়ে নিচ্ছেন। নিজেরাও স্বনামে বেনামে হাতিয়ে নেন প্লট, জড়িয়ে পড়েন জায়গা কেনাবেচার কাজেও। এভাবে চোখের সামনেই অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী শত শত কোটি টাকার মালিক বনে যাচ্ছেন।

তাদের বিরুদ্ধে কোথাও কোনো অভিযোগ করে কিছুতেই কিছু হয় না। তারা অভিনব পন্থায় দুদক থেকেও দায়মুক্তির সনদ নিয়ে আবারও দুর্নীতি লুটপাটে মগ্ন থাকেন।

সরকারি এ প্রতিষ্ঠানকে পুঁজি করে তৃতীয় শ্রেণীর এক কর্মচারী দেলোয়ার হোসেনের অবিশ্বাস্য উত্থান রীতিমত আলাদীনের আশ্চর্য প্রদীপকেও হার মানিয়ে দিয়েছে। তার পাহাড় সমান সহায় সম্পদ আর কাড়ি কাড়ি টাকা, বিলাসবহুল জীবন যাপন দেখে প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষ কর্মকর্তারা পর্যন্ত হতবাক।

এ প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী পিতার মৃত্যুজনিত কারণে পাম্প অপারেটর হিসেবে চাকরিতে যোগদান করা দেলোয়ার শুধু প্রতারণামূলক কলাকৌশল খাটিয়ে সবার ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে গেছে। তার জাল জালিয়াতি, প্রতারণা, দুর্নীতি-লুটপাটের অসংখ্য অভিযোগ মন্ত্রনালয়ে ধামাচাপা পড়ে থাকে।

দুদকেও তার নিজস্ব লোক থাকায় তার ব্যাপারে অভিযোগ আমলে নেয়া হয় না বলেও গর্ব করে বেড়ায় দেলোয়ার হোসেন। দিন দিনই

বেজায় দাপুটে হয়ে উঠা এই দেলোয়ার সবকিছুই গিলে ফেলেন নির্বিঘ্নে।

তার ব্যাপারে অনুসন্ধান চালিয়ে পাওয়া গেছে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য। জাতীয় অনেক মিডিয়ায় এ নিয়ে সংবাদ হয় একাধিক। কিন্তু ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

জানা যায়, জাতীয় গৃহায়ণের তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী এবং কর্মচারী ইউনিয়নের (সিবিএ) সাধারণ সম্পাদক মো. দেলোয়ার হোসেন ওরফে শাহ পরান বেতন পান ৩০ হাজার টাকা কিন্তু ৬০ হাজার টাকায় ভাড়া বাড়ীতে থাকেন তার সত্যতা পাওয়া গেছে। ব্যবহার করছেন একাধিক দামি গাড়িও। দেলোয়ার হোসেন নামে-বেনামে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে গড়েছেন একাধিক প্লট ও ফ্ল্যাট।

বর্তমানে দেলোয়ার হোসেন রাজধানীর লালমাটিয়ার এ্যাসুরেন্স ডেভোলেপম্যান্ট এর ৪/৫, (২য় তলা) ভাড়া বাসায় থাকেন। প্রতি মাসে তিনি ভাড়া দেন ৬০ হাজার টাকা। তার বাসায় তিন জন গৃহপরিচারিকা তিনি নিয়োগ দিয়েছেন নাম না প্রকাশ করার শর্তে কয়েকজন জানান, ‘দেলোয়ার হোসেন একজন ৩য় শ্রেণীর কর্মচারী হয়ে ৬০ হাজার টাকা মাসিক বাসা ভাড়া দেন, দুর্নীতির মাধ্যমে টাকা ইনকাম ছাড়া এটা কখনোই সম্ভব না। একজন মন্ত্রীর বাসায় যা না আছে দেলোয়ারের বাসার মধ্যে তা আছে।’

ঢাকার মোহাম্মদপুরে বিটিআই ডেভোলেপম্যান্ট কোম্পানীর নিকট ক্রয়কৃত এ ব্লকের ৭/১ প্লটে, ১৭শত স্কয়ার ফিট (চতুর্থ তলা) ফ্ল্যাট রয়েছে যার মূল্য প্রায় ২

কোটি ৪০ লাখ টাকা। মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোডের ১/১৫ ব্লক-ই (তয়

তলা) ৬শত স্কয়ার ফিটের দুটি ফ্ল্যাট-যার মূল্য ৮০-৯০ লাখ টাকা এবং প্লট-এফ-৪, ব্লক-ই (৬ষ্ঠ তলা) ১১শত স্কয়ার‌্য ফিট ফ্ল্যাট রয়েছে যার মূল্য ৩৫-৪০ লাখ টাকা।

মোহাম্মদপুরের লাল মাটিয়ায় হোল্ডিংয়ে ১৭শত স্কয়ার ফিট একটি ফ্ল্যাট রয়েছে যার মূল্য প্রায় আড়াই কোটি টাকা। এছাড়াও স্ত্রী নুসরাত জাহান পপির নামেও কুষ্টিয়া, খুলনা ও ঢাকায় প্লট, রেস্টুরেন্ট ও ফ্ল্যাট রয়েছে।

দেলোয়ার হোসেন ওরফে শাহ পরানের গ্রামের বাড়ী কুমিল্লার মুরাদনগর থানার নবীপুর ইউনিয়নের উত্তর ত্রিশ গ্রামে। অনুসন্ধানে আরও জানা যায়- গ্রামের বাড়ীতেও কয়েকটি প্লট ও বাপের ভিটায় প্রায় কোটি টাকা খরচ করে বিল্ডিং নির্মাণ করেছেন। বিল্ডিংয়ের ফ্লোর মার্বেল পাথর দিয়ে খচিত।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে কয়েকজন এলাকাবসী জানান- ‘শাহ পরান বছরে দুই-তিনবার গ্রামে আসে। এখন শাহ পরানতো হাজার কোটি টাকা মালিক।

অভিযোগ আছে, তিনি মোহাম্মদপুরের এক হুন্ডি ব্যবসায়ীর মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ায় তার শ্যালকের কাছে কোটি কোটি কালো টাকা পাচার করে পরে ওই টাকা বৈদেশিক রেমিট্যান্স দেখিয়ে বাংলাদেশে নিয়ে এসে সাদা করেছেন।

তিনি ওই শ্যালকের নামে মোহাম্মদপুরের সলিমুল্লাহ রোডে ২টি প্লটও কিনেছেন।

দেলোয়ার লালমাটিয়া হাউজিং এস্টেটে এক কোটি পঁচাত্তর লাখ টাকায় বেনামীতে কেনেন। লালমাটিয়া প্রাইমারি স্কুলের সামনে সাড়ে ১১ কাঠার ওপর তার আরেকটি জমিতে ফ্ল্যাট নির্মাণের কাজ চলছে। আড়াই কোটি টাকায় মোহাম্মদপুর হাউজিং স্টেটের ই-ব্লকের একটি জমির জন্য বায়না করেছেন তিনি।

জানা যায়, মোহাম্মদপুর, ইকবাল রোডে অভিযাত দোতলা বিশিষ্ট লিগনাইট রেস্টুরেন্ট এ দেলোয়ার ও তার স্ত্রী ৪০ শতাংশের মালিক। গ্রামের বাড়ি কোম্পানীগঞ্জও তিনি সম্পত্তির বিশাল পাহাড় গড়ে তুলেছেন।

১ কোটি টাকা ব্যয়ে মার্বেল টাইলসের বাড়ি নির্মাণ করেছেন। ২০ শতাংশের ওই জামি তিনি ৩ কোটি টাকা মূল্যে ক্রয় করেন। এছাড়াও বেনামীতে বছিলায় ও সাফা সিটিতে, ১০ কাঠা, রিং রোডে ২টি ও আদাবরে ১টি বহুতল ভবন কিনেছেন। অন্যদিকে মোটা অংকের ঘুষের বিনিময়ে বাতিলকৃত প্লটের ফাইলে ছবিবদলে অন্যের নামে করে দেওয়ারও অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। ২০১১ সালের ৮মার্চ গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত আদেশ (স্মারক প্রশা-৬/রাজ-৬৬/৯৮/ ১১৪/১ (১১৩) অনুযায়ী জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একজন একাধিক প্লট নিতে পারেন না।

গৃহিণী স্ত্রী প্লট নিয়েছেন ‘শিল্পী-সাহিত্যিক’ ক্যাটেগরিতে জাগৃকের খুলনা বয়রা এস্টেটের আবাসিক প্লট প্রকল্পথেকে এ ব্লকের ৩ কাঠা আয়তনের একটি প্লট (নং-৪৫) দেলোয়ারের স্ত্রী নুসরাত জাহান পপির নামে বরাদ্দ নেওয়া। প্লট বরাদ্দ পাওয়ার পর ২০১৪ সালের ১৩ নভেম্বর জাগৃকের অনুকূলে একসঙ্গে চার কিস্তির ১৯ লাখ ৯৮ হাজার ৭৫০ টাকা পরিশোধ করা হয়।

জাগৃকের নথি ঘেঁটে দেখা যায়, দেলোয়ারের স্ত্রী গৃহিণী হলেও প্লট নিয়েছেন ‘শিল্পী-সাহিত্যিক’ ক্যাটেগরিতে। ভুয়া কাগজপত্র বানিয়ে অর্ধকোটি টাকা মূল্যের এ প্লটটি হাতিয়ে নেন তারা। নুসরাত জাহান পপির সঙ্গে ৮-৯ বছর আগে বিয়ে হয় দেলোয়ারের। নুসরাতের নামে তখন তেমন কোনো সম্পদ ছিল না। কয়েক বছরের ব্যবধানে তার নামে ঢাকায় একাধিক বাড়ি, প্লট ও ঢাকার বাইরে জাগৃকের প্লট বরাদ্দ নিয়েছেন দেলোয়ার। সরকারিভাবে নেওয়া এসব প্লটের বিপরীতে কয়েক কোটি টাকা কিস্তিও পরিশোধ করা হয়েছে। কুষ্টিয়া, খুলনা এবং ঢাকার মোহাম্মদপুর ও লালমাটিয়া এলাকায় রয়েছে এসব প্লট-ফ্ল্যাট। এছাড়া দেলোয়ার তার শ্বশুর মুহাম্মদ শাহজাহানকে দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরে ‘বিপুল পরিমাণ সম্পদ’ কিনেছেন বলেও জানান জাগৃকের কর্মচারীরা।

তার উত্থান ঘটে যেভাবে :

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়-দেলোয়ার হোসেনের পিতা আব্দুল ওহিদ জাতীয়

গৃহায়ণে ইলেকট্রিশিয়ান (চতুর্থ শ্রেণী) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সে সময় দেলোয়ার হোসেন মোঃপুরে একটি ডিস ব্যবসায়ীর প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন।

সে প্রতিষ্ঠানে বাড়ী বাড়ী গিয়ে প্রতি মাসে ডিস বিল সংগ্রহ করাই ছিল তার মূল কাজ। তাদের সংসারে তখন খুব টানাপোড়েন অবস্থায় ছিলো।

আর্থিক দৈন্যতার কারনে ৯০ দশকে তার পিতা অহিদ মিয়ার মৃত্যুর পরে গৃহায়নের অনেকের আর্থিক সহযোগিতা দাফন কাফন সম্পন্ন করা হয়েছিল। পরবর্তীতে মানবিক কারণে দেলোয়ার হোসেনকে জাতীয় গৃহায়ণের মোহাম্মদপুর হাউজিংয়ে মাস্টার রোলে ভাউচার ভিত্তিক পাম্প অপারেটর হিসাবে (চতুর্থ শ্রেণী) দেলোয়ার হোসেন যোগদান করেন। যদিও সার্টিফিকেট জালিয়াতি এবং বাবার নাম পরিবর্তনের বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য সেই পাম্প অপারেটর হিসেবে কর্মকালীন সাত-আট বছরের ইতিহাস কাগজপত্রাদিসহ তিনি মুছে ফেলেছেন।

বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের নেতাদের ফায়ফরমাশ খাটা এই দেলোয়ার হোসেন পাম্প অপারেটর এর চাকরির পাশাপাশি মোহাম্মদপুর এলাকার ডিস ব্যবসায়ী প্রভাবশালী লোকজনের সুনজরে থাকার কারণে তিনি তৎকালীন সময়ে বেশ প্রভাবশালী হয়ে ওঠেন। যার ফলশ্রুতিতে ২০০৬ সালে হিসাব সহকারি হিসেবে সরাসরি তৃতীয় শ্রেণি পদে নিয়োগ পান। পরবর্তীতে তিনি চট্টগ্রাম হাউজিং অফিসে যোগদান করেন এবং অল্প কিছুদিনের মধ্যেই তিনি সবাইকে ম্যানেজ করে জাতীয়

গৃহায়ন কর্র্তৃপক্ষের ভূমি ও সম্পত্তি ব্যবস্থাপনার মোহাম্মদপুর এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত ডেক্সে বদলী নিয়ে আসেন । সেখান থেকে আজ পর্যন্ত কেউ তাকে সরাতে পারেনি।

২০১০ সালে কর্মচারী ইউনিয়নের নির্বাচনে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর তার দুর্নীতির মাত্রা ভয়ংকর রূপ ধারণ করে।

জানা যায়, ২০১৭ সালে পূর্বের সাধারণ সম্পাদককে অবৈধ পন্থায় সরিয়ে দেলোয়ার সাধারণ সম্পাদক পদে বসেন। শিক্ষা জীবনের ইতিহাসে হত্যাকান্ডের সঙ্গেও তার জড়িত থাকার কথা শোনা যায়। তখন তিনি লালমাটিয়া বয়েজ স্কুলের ছাত্র ছিলেন।

নানা অপকর্মের হোতা এই দেলোয়ার হোসেনকে কেউ কিছু বললে। তিনি বলেন, টাকা হলে দুদক কেন, এর থেকে বড় কেউ এসেও তার কোন কিছু। করতে পারবেনা।

তার নামে দুদকে ৫-৬ বার অভিযোগ হয়েছিল। কিন্তু সুচতর এই কর্মচারী তাদেরকেও ম্যানেজ করেছে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে। গৃহায়নের সিবিএ নেতা দেলোয়ারের বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকরি নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জাগৃকে দাখিল করা দেলোয়ারের দেওয়া কাগজপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, তার দুই সনদে বাবার নাম

ভিন্ন। তার দেওয়া কাগজপত্রে বলা হয়েছে, কুমিল্লার কোম্পানীগঞ্জ বদিউল আলম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসি পাস করেন তিনি। সেখানে তার বাবা হিসেবে মো. আব্দুল ওহিদ উল্লেখ করা। আর এইচএসসির সনদে তার বাবার নাম শিশু মিয়া। জাগৃকের তদন্তে দুই সনদে বাবার নামের ভিন্নতা থাকার বিষয়ে সত্যতা পাওয়া গেলেও দেলোয়ারের কিছুই হয়নি। : সুত্র দেশ রূপান্তর, সারা বাংলা

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com