ছিনতাইকারী থেকে হাজার কোটি টাকার মালিক মিশু!

ছিনতাইকারী থেকে হাজার কোটি টাকার মালিক মিশু!

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্ক:শারফুল হাসান ওরফে মিশু হাসান। দেড় যুগ আগের সেই ছিঁচকে ছিনতাইকারীই বনে গেছেন হাজার কোটি টাকার মালিক। তাঁর উত্থানের পরতে পরতে নাটকীয় কাহিনি। ছিনতাই থেকে শুরু করে মাদক কারবার, অনৈতিক কর্মকাণ্ডের আখড়া হিসেবে পরিচিত পার্টির আয়োজন, দেশে-বিদেশে নারী সরবরাহসহ ধনাঢ্য ব্যক্তিদের ব্ল্যাকমেইল এবং অবৈধ গাড়ি আমদানি—হেন অপকর্ম নেই যা করেননি। দুই হাতে টাকা কামিয়ে ফুলে-ফেঁপে উঠেছেন। দেশে-বিদেশে গড়েছেন সম্পদের পাহাড়। সম্প্রতি আলোচিত মডেল পিয়াসা ও মৌ গ্রেপ্তার হলে এই সিন্ডিকেটের পুরোভাগে উঠে আসে মিশুর নাম।

অনুসন্ধান বলছে, ২০০৩ সালে মোহাম্মদপুরে কিশোর গ্যাং গড়ে তুলেছিলেন এই মিশু হাসান। ছিঁচকে ছিনতাইকারী হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি ছিল। সেই মিশুই হাল আমলের অভিনব কায়দার চোরাকারবারি। ডেইরি সান নামের ফার্মে বিদেশি গরু লালন-পালনের আড়ালে চলত মিশুর ইয়াবা বাণিজ্য। বিদেশ থেকে আমদানির সময় গরুর পেটে করে আনা হয় হীরা ও স্বর্ণের চালান। গরুর পেটে করে ইয়াবার চালানও আনা হয়। এ জন্য মাঝে মাঝে টেকনাফ থেকেও গরুর চালান আনা হতো। অবশেষে র্যাবের জালে ধরা পড়েছেন তিনি। বিতর্কিত মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসার পার্টনার হিসেবে নাম আসার পর গত মঙ্গলবার রাতে অভিযান চালিয়ে ১৫ কোটি টাকার ফেরারি ব্র্যান্ডের গাড়ি, বিপুল পরিমাণ মাদক, জাল নোট, অস্ত্র, গুলিসহ তাঁকে আটক করা হয়।

সূত্র জানায়, মিশু লেটেস্ট মডেলের কথা বলে বিদেশ থেকে আমদানি করেন পুরনো মডেলের গাড়ি। তারপর নিজের মালিকানাধীন ইউরো কার ওয়ার্কশপে নিয়ে সেই গাড়িকে মডিফিকেশনের মাধ্যমে নতুন মডেলে রূপান্তর করেন। এভাবে জালিয়াতি করে কম দামের গাড়ি অধিক মূল্যে ধরিয়ে দেন গ্রাহকদের। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মিশুর এই অপকর্ম এখনো অব্যাহত রয়েছে। কারণ, তাঁর গাড়ির ব্যবসা দেখভাল করেন তাঁরই এক অংশীদার আশীষ কুমার ও ছোট ভাই স্যাম। তাঁদের গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে এ বিষয়ে আরো তথ্য মিলতে পারে।

অনুসন্ধান বলছে, ২০১৬ সালে শুল্ক গোয়েন্দা সদস্যরা কমপক্ষে ৭০টি অবৈধ গাড়ির খোঁজ পান। গোয়েন্দা তদন্তে বারবার উঠে আসে মিশু হাসানের নাম। শুল্কগোয়েন্দা বিভাগের একটি সূত্র জানায়, ডিউটি ফ্রি গাড়ি আমদানিসহ বেশি সিসির গাড়িকে কম সিসি দেখিয়ে অভিনব ব্যবসা শুরু করেন মিশু। মূলত কারনেটের মাধ্যমে গাড়ি আমদানি করে সরকারের শুল্ক ফাঁকি দেওয়ার মাধ্যমে মিশু হাতিয়ে নেন কোটি কোটি টাকা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুদর্শন ও স্মার্টনেসের সুযোগ নিয়ে মিশু ২০০৭ সালে সমালোচিত ডিজে জামিল-নাতাশাকে দিয়ে শুরু করেন ডিজে ব্যবসা। এর অন্তরালে শুরু করেন মাদক ও ব্ল্যাকমেইলের রমরমা ব্যবসা। ধনাঢ্য ব্যক্তিদের কাছে নারী সরবরাহ করে শুরু করেন ব্ল্যাকমেইলের মতো ভয়ানক অপরাধ। গুলশানের পিংক সিটির পাশে একটি শিশা বারও খুলেছিলেন।

মিশুর নারী ব্যবসা সামনে থেকে দেখেছেন এমনই এক প্রত্যক্ষদর্শী নাম প্রকাশ না করার শর্তে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মিশু প্রতিদিন একটা করে মেয়ে নিয়ে আসত। মাঝে-মধ্যে নিয়ে আসত হঠাত্ কইরাই। আজকে এই মেয়ে তো কালকে আরেক মেয়ে। আমি জিগাইতাম, মিশু ভাই এটা কে? বলত বান্ধবী।’

গোয়েন্দা তথ্য মতে, কৌশলে ধনাঢ্য ব্যক্তিদের টার্গেট করে সিন্ডিকেট তৈরি করেন। মিশুর অপকর্মের এক প্রত্যক্ষদর্শী নাম প্রকাশ না করার শর্তে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সে সব সময়ই বন্ধুত্ব করত উচ্চবিত্ত পরিবারের ছেলেমেয়েদের সঙ্গে। সম্পর্ক একটু ঘনিষ্ঠ হলেই খুঁজত ব্ল্যাকমেইলিংয়ের পথ। এরই অংশ হিসেবে সবাই মিলে যেত মুভেনপিকের সামনে। তো মিশু ভাই যখন থাকত, কিছু পোলাপান এসে অস্ত্র ঠেক দিয়ে মোবাইলসহ সঙ্গে থাকা আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র নিয়ে যেত। মিশু ভাইও সব কিছু দিয়ে দিত। পরে শুনতাম এটা মিশু ভাইয়ের লোক, মিশু ভাইয়ের নির্দেশনা মোতাবেকই হয়েছে।’

র্যাবও জানিয়েছে, মিশুর এই চক্রে রয়েছে ১০ থেকে ১২ জন। তারা রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত এলাকায় বিশেষ করে গুলশান, বারিধারা, বনানীসহ বিভিন্ন এলাকায় ডিজে পার্টির নামে মাদক সেবনসহ বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের ব্যবস্থা করে থাকে। এসব পার্টিতে অংশগ্রহণকারীদের কৌশলে ব্ল্যাকমেইল করে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিত। এ ছাড়া বিদেশেও প্লেজার ট্রিপের আয়োজন করত। উচ্চবিত্ত প্রবাসীদের জন্য দুবাই, ইউরোপ ও আমেরিকায়ও এ ধরনের পার্টির আয়োজন করা ছিল তাঁদের নিত্যকর্ম।

অনুসন্ধান বলছে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের বিতর্কিত কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীবের (বর্তমানে বরখাস্ত ও জেলবন্দি) সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ছিল মিশুর। এলাকায় গুঞ্জন রয়েছে, রাজীবকে কাউন্সিলর বানানো পর্যন্ত পদে পদে ছিল এই মিশুর ভূমিকা। মূলত মোহাম্মদপুরে বসবাসের সূত্র ধরে মিশুর সঙ্গে রাজীবের পরিচয়। সে সময় দুজন মিলে মোহাম্মদপুরে কিশোর গ্যাং গড়ে তোলার মাধ্যমে ত্রাসের রাজত্ব তৈরি করেন। কিশোর জীবনেই মিশু ও রাজীব দুই বন্ধু মিলে চাঁদাবাজি, ছিনতাই ও ভূমি দখলের মতো ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত হন।

তথ্য মতে, ২০১৯ সালে ভাটারার ৮ নম্বর সড়কের ৪০৪ নম্বরে মিশুর বাসা থেকে কাউন্সিলর রাজীবকে গ্রেপ্তার করে র্যাব। র্যাব সে সময় জানিয়েছিল, মিশুর হাত ধরেই বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে যুক্ত হন রাজীব। ঘনিষ্ঠতার জের ধরেই মিশু তাঁর ভাটারা এলাকার বাসায় রাজীবকে লুকিয়ে রাখেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধানেও বেরিয়ে এসেছিল মিশু-রাজীব ঘনিষ্ঠতার একাধিক প্রমাণ। রাজীবের বিলাসবহুল আটটি গাড়ির বেশির ভাগই জোগান দেন মিশু।

যেভাবে উত্থান মিশুর : মিশুর অতীত অনুসন্ধানে নেমে জানা যায়, রাজধানীর মোহাম্মদপুরের নূরজাহান রোড এলাকায় বেড়ে ওঠেন তিনি। এলাকায় ‘ছোট মিশু’ নামে তাঁর ছিল ব্যাপক পরিচিতি। একসময় টাউনহল ও জেনেভা ক্যাম্প ছিল ওই অঞ্চলের ‘অপরাধ জোন’। ২০০৩ সালের দিকে ওই এলাকায় ছিনতাই করে বেড়ানো ছিল এই গ্যাংয়ের অন্যতম কাজ। তত্কালীন সংসদ সদস্য প্রয়াত মকবুল হোসেনের নাম ভাঙিয়ে তটস্থ রাখতেন এলাকাবাসীকে। ছিনতাইয়ের অভিযোগে ধরা পড়ে একবার জেলও খাটেন মিশু। সরেজমিন ঘুরে এলাকার প্রবীণ বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০০৪ সালে ছাড়া পেয়ে কোনো এক মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান মিশু। তবে বছরখানেকের মধ্যেই তিনি ফিরে আসেন। ফিরে এলেও তাঁকে আর মোহাম্মদপুরের দিকে খুব একটা দেখা যেত না।

অনুসন্ধানে জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে মিশু সখ্য গড়ে তোলেন বিত্তশালী পরিবারের সন্তানদের সঙ্গে। গুলশানের ফ্যান্টাসি বিলিয়ার্ড সেন্টার, মুভেনপিক নামের অভিজাত রেস্তোরাঁসহ ওয়ান্ডারল্যান্ডের আশপাশে আড্ডা দেন। কিছুদিনের মধ্যেই শুরু করেন ডিজে ব্যবসা। ডিজে ব্যবসায় ওই সময়ের পরিচিত নাম ডিজে জামিল ও ডিজে নাতাশাকে নিয়ে বিস্তৃত করেন ব্যবসা। কিন্তু এর আড়ালে তিনি শিশা, ইয়াবাসহ ভয়ংকর সব মাদকের বাণিজ্য শুরু করেন। পাশাপাশি বিভিন্ন ক্লাবসহ দেশে-বিদেশে নারী সরবরাহের সঙ্গেও জড়িয়ে যান তিনি। এই সময় আগের সেই ‘কিশোর গ্যাং’ সদস্যদের পুনরায় সংঘবদ্ধ করেন। সেই চক্রটিকে এবার কৌশলে কাজে লাগান বিত্তশালীদের ব্ল্যাকমেইলিংয়ে। এ কাজে নেপথ্যে থেকে নির্দেশনা দিতেন তিনি নিজেই।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, জামিল ও নাতাশা চক্রের সঙ্গে মিলে গুলশান পিংক সিটির বিপরীতে মিশু গড়ে তুলেছিলেন শিশা বার। কাউন্সিলর রাজীবের (বর্তমানে বরখাস্ত ও জেলবন্দি) সঙ্গে এক হয়ে নিয়ন্ত্রণ করতেন ঢাকার ফুআং ক্লাবের ক্যাসিনো ব্যবসা। ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের পর এসব ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেলে শুরু করেন এয়ারপোর্টে লাগেজ ব্যবসা। অল্প কয়েক দিনেই লাগেজ ব্যবসার বিষয়টি চাউর হয়ে গেলে নামেন চোরাই গাড়ির ব্যবসায়।

সূত্র জানায়, অবৈধ কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন মিশু হাসান। এই অর্থের পরিমাণ হাজার কোটি টাকার কম হবে না। যুক্তরাষ্ট্রে তাঁর বিলাসবহুল বাড়ি রয়েছে। বাড়ি আছে গুলশানেও। বেশ কয়েকটি দামি গাড়ি তো আছেই, যেগুলোর মূল্য শত কোটি টাকার বেশি।

র‍্যাবের হাতে গ্রেপ্তার : গত মঙ্গলবার রাতে অভিযান চালিয়ে মাসুদুল হাসান জিসান নামে এক সহযোগীসহ মিশুকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। এক বিজ্ঞপ্তিতে র্যাব সদর দপ্তর জানায়, তাঁদের কাছ থেকে একটি অস্ত্র, ছয় রাউন্ড গোলাবারুদ, ১৩ হাজার ৩০০টি ইয়াবা, ফেরারি ব্র্যান্ডের একটি গাড়ি, শিশার সরঞ্জাম, দুটি ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন, বিভিন্ন ব্যাংকের চেক বই, বিপুল পরিমাণ এটিএম কার্ড, পাসপোর্ট এবং সাড়ে ৪৯ হাজার রুপির ভারতীয় জাল মুদ্রা উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে মিশু বিভিন্ন জালিয়াতি ও ব্ল্যাকমেইলিংয়ের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। র‍্যাব আরো জানায়, বিলাসবহুল নামি-দামি গাড়ি আমদানির পাশাপাশি মিশু নিজেও দামি গাড়ি ব্যবহার করতেন। তাঁর ব্যক্তিগত দুটি রেঞ্চ রোভার, অ্যাকুয়া, ভক্স ওয়াগন, ফেরারিসহ পাঁচটি গাড়ির সন্ধান মিলেছে। এর আগে বিভিন্ন অভিযোগে তিনবার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন মিশু। তাঁর নামে রয়েছে বেশ কয়েকটি মামলা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com