সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
চোরচক্রের গডফাদার রিপন ও তার সহযোগিকে সনাক্ত করা হয়েছে চীফ জুডিসিয়াল আদালতের সামন থেকে আরও একটি মোটর সাইকেল চুরি

চোরচক্রের গডফাদার রিপন ও তার সহযোগিকে সনাক্ত করা হয়েছে চীফ জুডিসিয়াল আদালতের সামন থেকে আরও একটি মোটর সাইকেল চুরি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহর থেকে একের পর এক মোটর সাইকেল চুরি হয়েই যাচ্ছে। কোনো অবস্থাতেই চোরের দলকে দমন করা যাচ্ছে না। এ যেনো চোর পুলিশ খেলা। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে চোরের দলকে সনাক্ত করা হয়েছে। অভিযানও চলছে। অচিরেই তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। তবে এদের গডফাদার রয়েছে। সে হচ্ছে বহুলা গ্রামের ছোবা মিয়ার পুত্র বহু মোটর সাইকেল চোরের হোতা রিপন মিয়া (২৫)। গতকাল বৃহস্পতিবার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে প্রশাসনের এক সদস্যের মোটর সাইকেল নিমিষেই উধাও হয়ে যায়। এ নিয়ে শহরবাসীর মাঝে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি মোটর সাইকেল আরোহীরা আতংকে রয়েছেন। সাইকেল লক করা থাকলেও মাষ্টার চাবি দিয়ে চোখের পলকে মোটর সাইকেল চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে চোর চক্র। অনুসন্ধানে জানা যায়, রিপন মোটর সাইকেল চোরের গডফাদার। যে কোনো সময় মাষ্টার চাবি দিয়ে মোটর সাইকেল নিয়ে যায়। চুরির কায়দা হলো, সু, ব্লাজার, সানগ্লাসসহ মূল্যবান কাপড়ছোপড় পড়ে মোটর সাইকেলে বসে এবং মোবাইল ফোনে কথা বলে এবং সুযোগ পেলেই নিয়ে যায়। কিন্তু সিসি ফুটেজে তাদের চুরির দৃশ্য ধারণ করা হলেও এখন পর্যন্ত প্রশাসনের সদস্যরা কাউকে গ্রেফতার বা একটি মোটর সাইকেল উদ্ধার করতে পারেনি।
গত ১৩ নভেম্বর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নিচ থেকে প্রেসক্লাবের সভাপতি সমাচার পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক রাসেল চৌধুরীর একটি পালসার মোটর সাইকেল চুরি হয়। সিসিটিভি ফুটেজ দেখেও তা উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। সর্বশেষ গত ২৩ নভেম্বর দুপুর ২টার সময় পুরাতন পৌরসভা সড়কের জহুর আলী হোটেলের পাশ থেকে সাংবাদিক ও শিক্ষানবীশ আইনজীবি কাজী মিজানুর রহমানের একটি এফ জেড মোটর সাইকেল চুরি করে নিয়ে যাবার সময় ওই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজে দেখা হলেও ওই চোরও ধরা পড়েনি। তাছাড়া ইতোপূর্বেও হাসপাতাল, জজকোর্ট, জেলা প্রশাসক অফিসের সামন, চীফ জুডিসিয়াল কোর্ট ও শপিং মল থেকে প্রায় অর্ধশতাধিক মোটর সাইকেল চুরি হয়। তবে মোটর সাইকেল মালিকরা জানিয়েছেন, এসব চুরির সাথে জড়িত রয়েছে কতিপয় নামধারী নেতা, পানি নেতাসহ প্রশাসনের কিছু অসাধু সদস্যরা। যার ফলে এসব বরাবরের মতোই থেকে যায় ধরাছোয়ার বাইরে। মাঝে মধ্যে লোকদেখানো মাত্র এক দুইটি মোটর সাইকেল প্রশাসন উদ্ধার করে। এতে করে অনেকের মধ্যেই এ বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com