চা উৎপাদনে গবেষণায় নজর দিতে হবে-প্রধানমন্ত্রী

চা উৎপাদনে গবেষণায় নজর দিতে হবে-প্রধানমন্ত্রী

লোকালয় নিউজ : চা উৎপাদন বৃদ্ধি ও উন্নত চা উৎপাদনে গবেষণার উপর নজর দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, খরাসহিষ্ণু, বন্যাসহিষ্ণু ধান গবেষণায় ব্যাপক সাফল্য পেয়েছি আমরা। একইভাবে চা উৎপাদনে গবেষণার দিকেও নজর দিতে হবে। তাহলে আরো বেশি বেশি চা উৎপাদন এবং উন্নত মানের চা উৎপাদন সম্ভব হবে।

রোববার সকালে রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন হলে বাংলাদেশ চা প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এসময় চায়ের বহুমুখী করণের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন: দেশের অর্থনীতি মজবুত করতে হলে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে হবে। ১৯৭০ সালে ৩ কোটি কেজি চা উৎপাদন হতো। ২০২৫ সাল নাগাদ ১৪ কোটি কেজি চা উৎপাদনের লক্ষ নিয়ে আমরা এগোচ্ছি। পঞ্চগড়ের দিকে দেখলাম, বাংলাবান্দা বর্ডারের কাছে ভারতের দিকে ওরা চা বাগান করেছে। ওখানে গাড়ি যায় না। হেঁটে গিয়ে আমরা দেখলাম। বললাম, ওদের ওদিকে চা বাগান আছে, আমাদের কেন নেই? একই তো মাটি। ডিজিকে বললাম একটা চারা এনে দেখেন লাগালে গাছ হয় কিনা।

ডিসির বাংলাতেই গাছ লাগানো হলো। পরে গাছও হলো, উনি টবে করে এনে দেখালেন। এখন সেখানে চা উৎপাদন হচ্ছে। ইংল্যান্ডের হ্যারল্ডেও পাওয়া যাচ্ছে চা। এখন তো চায়ের আচারও হচ্ছে। চেয়ারম্যান সাহেব চায়ের আচার বানিয়েও দিয়েছেন। প্রথম খেতে ভালো লাগেনি। কিছুদিন রাখার পরে দু তিনদিন আগে আরেকবার টেস্ট করে দেখলাম ভালোই লাগে। বিশ্বে এখন জনপ্রিয়তা পাচ্ছে টি শ্যাম্পু, টি সোপ ইত্যাদি। এসব আমরা বানাতে পারি।’

বিভিন্ন ধরনের চায়ের কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন: কড়া চা আসামের, হালকা সুগন্ধি দার্জিলিংয়ের চা। শ্রীলঙ্কার একটা চা সর্দি কাশির জন্য খুবই উপকারি। আমি আসামের সঙ্গে দার্জিলিং চা মিশিয়ে খাই। সিলেটের চা দুধ চিনি দিয়ে খেতে ভালোই লাগে। গ্রিন টিও এখন আমাদের এখানে হয়। এত ধরনের চা যখন হয় তখন সেদিকে বিশেষ নজর দিতেই হয়।

তিনি বলেন: অর্গানিক পদ্ধতিতে এখন চা উৎপাদন করা হচ্ছে। নতুন নতুন ভাবে চায়ের মোড়ক তৈরি করা গেলে সবার আরো নজর পড়তো আমাদের চায়ের উপর। প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বিদেশীদের উপহার তালিকায় চা অন্তর্ভূক্ত করেছি। বলতে পারেন আপনাদের অ্যাডভারটাইজমেন্টের কাজ আমি করে দিচ্ছি। চা উৎপাদন যত বৃদ্ধি পাবে মান তত উন্নত হবে। সরকার প্রনোদনা দিচ্ছে, কিন্তু সবাইকেই কাজ করতে হবে। দেশের মানুষের চা খাওয়ার প্রবণতাও বাড়ছে। গ্রামে এখন চায়ের দোকানে ভরে গেছে। আমাদের নিজস্ব বাজার যেমন তৈরি হচ্ছে। যেটা আমাদের বিদেশের বাজারও ধরতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com