সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে মিরাজ জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে শুক্রবার ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে আরটিপিসিআর ল্যাব বসানোর অনুমোদন ৭ প্রতিষ্ঠানকে
চাইলেই দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়া যায়

চাইলেই দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়া যায়

ইরানার (ছদ্মনাম) আজকাল অফিস থেকে ফিরতে প্রায়ই দেরি হচ্ছে। কিন্তু কী করবে সে, দায়িত্ববোধ বলেও তো একটা ব্যাপার আছে। তাই তো ইচ্ছে করলেই সেই কাজ শেষ না করে বের হতে পারে না। এ নিয়ে স্বামীর সঙ্গে মনোমালিন্য দিন দিন বেড়েই চলেছে। হয়তো ফয়সাল (ছদ্মনাম) মুখ ফুটে কিছু বলছে না, তবে তার আচরণগত পার্থক্য খুব সহজেই চোখে পড়ছে ইরানার। একদিন তো ফয়সাল বলেই বসল, রোজ রোজ এত দেরি হয় কেন তোমার? চাকরি তো আমিও করি, নাকি! তাহলে কি অন্য পেশার কাউকে বিয়ে করা, এই সিদ্ধান্তটা ভুল ছিল ইরানার?

সত্যি বলতে একই পেশার সুবিধা অনেক। আর তা যদি হয় একই অফিসে, তাহলে তো কথাই নেই! সময় পেলেই দুজনে মিলে টুকটাক কথা বলা যায়। প্রচণ্ড পেশাগত চাপের মধ্যে থেকেও সময়টাকে উপভোগ করা যায়। একজনের কর্মপরিবেশ সম্পর্কে অন্যজনকে কোনো জবাবদিহি করতে হয় না। একই পেশার হলে হয়তো এই ছোট বিষয়ে কোনো বাড়তি কথা বলার প্রয়োজনই হয় না। একজন নারী চিকিৎসক যখন রাত তিনটায় রোগীর অবস্থা খারাপ জেনে হন্তদন্ত হয়ে হাসপাতালে ছুটে যান, তখন স্বভাবতই একজন চিকিৎসক স্বামী এই সমস্যা সহজেই বুঝতে পারেন।

পেশাগত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত অনেক বেশি দক্ষতার সঙ্গে নেওয়া যায়। সে ক্ষেত্রে ঝুঁকিটা অনেক কম থাকে। অন্য পেশার কেউ আপনার নিজ পেশার ঝুঁকি সম্পর্কে এতটা ভালো জানবেন না, এটাই স্বাভাবিক। ডেইলি টেলিগ্রাফ–এ প্রকাশিত একই পেশাগত জীবন নিয়ে এক জরিপে দেখা গেছে, একই পেশার চেয়ে ভিন্ন পেশার স্বামী স্ত্রীদের বৈবাহিক জীবন অনেক বেশি বৈচিত্র্যপূর্ণ, ঝামেলাহীন। কিন্তু কেন?

একই পেশার সবচেয়ে বড় অসুবিধা হলো রুটিনমাফিক যান্ত্রিক জীবন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কয়েক বছর পর একঘেয়েমি চলে আসে। মন তো সব সময় যান্ত্রিকতা পছন্দ করে না। নিয়মের বাইরেও মন ছুটে যেতে চায়, অফিসের চার দেয়ালের বাইরের জগতে হানা দিতে। সবচেয়ে ভয়ংকর ব্যাপার হয় তখনই, যখন কর্মক্ষেত্রে স্ত্রী স্বামীর চেয়ে অধিক দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে বা পদোন্নতি পেয়ে স্বামীর চেয়ে ওপরের অবস্থানে চলে যায়। আমাদের পুরুষতান্ত্রিক সমাজে এই মারাত্মক সত্যিটাকে মেনে নেওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। অনেক সময় বিবাহবিচ্ছেদ পর্যন্তও গড়ায়। একজন অন্যজনের প্রতিযোগী হিসেবে গণ্য হয়। পেশাগত জীবন আর ব্যক্তিগত জীবন একাকার হয়ে ভয়ংকর রূপ ধারণ করে।

অন্যদিকে ভিন্ন পেশার স্বামী–স্ত্রী অফিসটাকে অফিসেই রেখে আসেন। প্রতিদিন একঘেয়ে অযথা তর্কের চেয়ে নিত্যনতুন বিষয় নিয়ে তাঁরা কথা বলতে পারেন। দুজনের ভিন্ন কর্মপরিবেশ এবং শিক্ষার ভিন্নতার দরুন তাঁরা পরস্পরের কাছ থেকে কিছু না কিছু শিখতে পারেন। তাই পেশাগত জীবনের অনর্থক দ্বন্দ্ব আর প্রতিযোগিতার চেয়ে তাঁদের জীবনের বিচিত্রতা বাড়ে। আর মাঝে মাঝে তাঁরা যখন স্বামী বা স্ত্রীর অফিশিয়াল পার্টিতে অংশ নেন কিংবা কোথাও বেড়াতে যান, তখন নতুন পরিবেশে নতুন মানুষজনের সঙ্গে মেশার সুযোগ পান। এটা পরীক্ষিত সত্য, মানুষ যত বেশি ভিন্ন ভিন্ন পেশার মানুষের সঙ্গে মিশবে, তত বেশি নম্র, ভদ্র আর সামাজিকবোধ সম্পন্ন হবে। পাশাপাশি নিজের দোষত্রুটিগুলো ধরতে পারার ক্ষমতা জন্মাবে আর মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ বাড়বে, যা তাদের অনেক বেশি মানসিক প্রশান্তি দেবে।

সঙ্গী নির্বাচনের ক্ষেত্রে পেশা একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিঃসন্দেহে, তাই বলে সবকিছু নয়। একই পেশায় থেকেও চরম অসুখী জীবনযাপনের ঘটনা আমাদের সমাজে খুব একটা বিরল নয়। পেশাটা এখানে মুখ্য বিষয় নয়। স্বামী–স্ত্রী একই পেশার হলে ভালো কিন্তু তিনি যদি আপনার ক্যারিয়ারের ব্যাপারে সহযোগিতা না করেন, তাহলে আপনি সংসারের শান্তি বজায় রেখে খুব বেশি দূর অগ্রসর হতে পারবেন না। পারিবারিক বিভিন্ন সমস্যা বিশেষ করে সন্তানাদি পালনের ক্ষেত্রে স্বামী–স্ত্রীর পারস্পরিক বোঝাপড়া ভালো না হলে ভয়াবহ সমস্যায় পড়তে হয়।

যে মানুষকে আপনি বেছে নিচ্ছেন, তাঁর আপনার প্রতি ভালোবাসা, পারস্পরিক সহযোগিতার মনোভাব আর আপনার কাজের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ কেমন, তা বিচার করতে পারা। পেশা যা–ই হোক, দিন শেষে ক্লান্তশ্রান্ত আপনি যখন বাড়ির পথে পা বাড়াবেন, তখন যদি দেখেন স্বামী অফিসের সামনে আপনার জন্যই দাঁড়িয়ে অথবা স্বামীর সঙ্গে গল্প করতে করতে বাড়ি ফিরছেন। অফিসের ফাঁকে চা-কফি পান করতে একটু বের হলেও দোষ কী। তখন মনে হবে জীবনটা তো মন্দ নয়!

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com