সংবাদ শিরোনাম :
নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার চোরচক্রের গডফাদার রিপন ও তার সহযোগিকে সনাক্ত করা হয়েছে চীফ জুডিসিয়াল আদালতের সামন থেকে আরও একটি মোটর সাইকেল চুরি আজমিরীগঞ্জে সিএনজি স্ট্যান্ড দখল নিয়ে দুই দলের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া আজমিরীগঞ্জে গাঁজাসহ টমটম চালক আটক লাখাইয়ে ডাকাতি মামলার আসামি চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার বানিয়াচংয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পাখি শিকার ও পাচারের লিখিত অভিযোগ অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল অর্ধশতাধিক ছাত্রী! হবিগঞ্জে স্কুল মাঠে পুকুর খনন নিয়ে ফেসবুকে উত্তাপ, অবস্থান জানাল প্রশাসন লোকাল জার্সিকে অ্যাডিডাসের বলে বিক্রি করার দায়ে ইজি ফ্যাশনকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা

ঘুমিয়ে আছে হবিগঞ্জের পানি ভবন

lokaloy24.com

সরেজমিনে দেখা কিবরিয়া ব্রীজ সংলগ্ন খোয়াই নদীর বাঁধভাঙ্গার একটি  দৃশ্য। ফাইল ছবি -লোকালয়২৪

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জ শহরবাসীকে বিনিদ্র রজনী কাটাতে হতে পারে আবারও। খোয়াই নদীতে গত বর্ষা মৌসুমে একাধিকবার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল। তখন হুমকীতে ছিল শহর বাসি। হবিগঞ্জের লোকজন রাত জেগে পাহারা দিয়েছিলেন নদীর বাঁধ। অনেকেই খুজে নিয়েছিলেন বিকল্প আশ্রয়। পরে জন সাধারনও প্রশাসনের সর্বাত্বক চেষ্টায় কোন ধরনের বিপদ ছাড়াই বিপদ রেখার নিচে নেমে যায় সেই পানি। এই সময়ে খোয়াই নদীর বাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত সেই বাধ পূর্ন মেরামত করা হয়নি।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন র্বোড থেকে বারবার ট্রেন্ডার আহব্বান করলেও কোন ঠিকাদার সেই কাজে অংশগ্রহন করছেন না। ফলে নির্ধারিত সময়ে বাঁধ মেরামত কাজ শেষ হওয়া অর্নিশ্চিত হয়ে পরেছে। আগামী মৌসুমেও বন্যা আতংকে থাকতে হবে হবিগঞ্জ বাসিকে।

হবিগঞ্জ পানিউন্নয়ন র্বোড সূত্রে জানা যায়, গত বছরের জুন মাসে হঠাৎ করেই ভয়ংকর রুপ নেয় খোয়াই নদীর পানি। বাঁধের ৩০ থেকে ৪০টি পয়েন্টে লিকেজ দেখাদেয়। বাঁধ ভাংগার আশংকায় র্নিঘুম রাত কাটায় হবিগঞ্জ শহরবাসি। এ অবস্থায় নদীর বাধের ৪টি গুরূত্বর্পুন্য স্থানের ৬২০মিটার জায়গা চিন্নিত করে পানিউন্নয়ন র্বোড।

স্থানগুলো হলঃ চুনারুঘাট উপজেলার ঘরগাও, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তেতৈয়া ও রামপুর এবং শতমুখা।

র্মাচ এপ্রিল মাসের মাঝে কাজগুলি সম্পন্ন করতে এই ট্রেন্ডার আহব্বান করা হলেও এখন পর্যন্ত কোন ঠিকাদার সেখানে অংশ গ্রহন করেননি। এর ফলে আরও দুইবার ট্রেন্ডার আহব্বান করা হয় সেখানেও ঠিকাদারদের কোন সাড়া না পেয়ে পুর্ন্যরায় চর্তুথ বারের ন্যায় টেন্ডার আহব্বান করা হয়েছে। এখন পযন্ত সেখানেও কোন ঠিকাদার ট্রেন্ডার দাখিল করেননি। ফলে আগাম বন্যার হুমকীতে থাকবে শহর রক্ষা বাঁধ।

যদি এবারও কোন ঠিকাদার অংশ গ্রহন না করেন তাহলে এই প্রকল্প হয়ে পরবে অনিশ্চিত।

হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের র্নিবাহী প্রকৌশলী তাওহীদুল ইসলাম বলেন, ঠিকাদারগন এ কাজগুলি নিতে চাচ্ছেন না তা বোধগম্য হচ্ছেনা। এখন অনলাইনে যে কোন ঠিকাদার ট্রেন্ডারে অংশ নিতে পারে, কোন ধরনের চাপ নেই। গত বছর খোয়াই নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে শহর রক্ষা বাঁধ মারাত্তক হুমকীর সম্মুখীন হয়ে পরেছিল। শহর বাসি আতংকে রাত কাটিয়েছিল। গত সমন্নয় সভায় এ বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত রাজস্ব খাতে কোন প্রকার বরাদ্দ পাইনি। যেখানে এক একটি পয়েন্টে মেরামত কাজে প্রয়োজন হবে ১ থেকে দেড় কোটি টাকা সেখানে পুরো জেলায় বরাদ্দ আছে মাত্র ৪২ লাক টাকা।

তিনি আরো বলেন, আমরা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একটি উন্নয়ন প্রকল্পের তালিখা প্রেরণ করে ছিলাম। এখনো তা অনুমোদন করা হয়নি তবে বিষয়টি প্রক্রিয়াদিন রয়েছে। সেটি অনুমোদন হলে কোন সমস্যা থাকবেনা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোহন লাল সৈকত জানান, খোয়াই নদীর ৪টি স্থানের জন্য আমরা অনুমোদন পাওয়া সাপেক্ষে ডিসেম্বরের ১ম সপ্তাহে ট্রেন্ডার আহব্বান করেছিলাম। আমাদের উদ্দেশ্য ছিল আমরা জানুয়ারীর মাঝামাঝি ঠিকাদার নিয়োগের মাধ্যমে কাজ শুরু করতে পারব। কিন্তু এখানে যে বিষয়টা হচ্ছে আমরা একেকটি ট্রেন্ডারে ৩-৪ বার করে ট্রেন্ডার আহব্বান করতে হচ্ছে কিন্তু ঠিকাদাররা অংশ গ্রহন করছেন না। আমরা ঠিকাদার পাচ্ছিনা। তাদের দরপত্র এখানে ড্রপ করতে চায়নি। এ মাসের প্রথম দিকে তেতৈয়াতে একজন ঠিকাদার পেয়েছি। ইতিমধ্যে উনাকে নিয়া পরির্দশন করেছি। উনিযদি গ্রহন করেন আশাকরি খুব শ্রীঘ্রীই কাজ শুরু হবে।

তিনি বলেন আমাদের টার্গেট ঠিকাদার নিয়োগের মাধ্যমে আগাম বন্যা আসার পুর্বে অর্থ্যাত মে মাসের আগে আমরা যেন কাজটা শেষ করতে পারি।

বাংলাদেশ পরিবেশ অন্দোলন ‘বাপার’ জেলা সাধারন সম্পাদক খোয়াই রিভার ওয়াটার কিপার তোফাজ্জল সোহেল জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ড যে সব কথা বলছে সেটা আসলে ধোঁকা। পানি উন্নয়ন বোর্ড যুগের পর যুগ কাটাচ্ছে তারা বলছে ঠিকাদার পায়না, এতদিন কিভাবে ঠিকাদার পেল। তারা আসলে নিজেদের সুবিধা ভোগ করার জন্যই একথা বলছেন। তা ছারাও তাহাদের বিষেশ কিছু সুবিধা দেওয়ার মত মনোনিত ঠিকাদার রয়েছে বলে জনান। মুলত খোয়াই নদীর বাঁধের বর্তমান যে ভয়াবহ অবস্থা এবং বাংলাদেশের ঠিকাদাররা তারা অবশ্যই কাজ করতে আগ্রহী হবেন।

সোহেল বলেন, পানি উন্নয়ন র্বোড কোন নতুন ব্যবসার সাথে যুক্ত হয়েছে আমার মনে হয়, আর এজন্যই তারা এ কতা বলছে ঠিকাদার পাচ্ছে না। ঠিকাদার যদি পাওয়া না যায় তাহলে এদেশের এত ঠিকাদার করে কি? এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড কতৃপক্ষকে আরো সহনশীল হওয়া দরকার বলে আমি মনে করি। তাদেরকে এ ব্যাপারে আরো উদ্যোগী হতে হবে। কারন নদীর ব্যাপারে তারা দায়ীত্ত্বশীল। কিন্তু ব্যাবস্থাপনার ব্যাপারে তারা যদি ভাল ভাবে যুক্ত হতে না পারে তাহলে তা হবে আমাদের জন্য তথা পুরো নাগরিক সমাজের জন্য দুঃখজনক।

ঠিকাদার আদ্দুল্লাহ আল-মামুন লোকলয়২৪ এ প্রতিবেদককে জানান , উক্ত প্রকল্পের অর্থ বরাদ্দ না থাকায় কোন ঠিকাদার ঐ প্রকল্পের ট্রেন্ডারে অংশ গ্রহন করেন না। কারণ ঠিকাদার কাজ সমাপ্ত করার পর বছরের পর বছর অপেক্ষা করেও বিলের টাকা পাওয়া যায়না। এতে ঠিকাদারগণ ও সংশ্লিষ্ট লোকবল পুজি হারিয়ে অসহায় জিবন যাপন করেন। যদি সরকারের উচ্চ পর্যায়ের ঐ প্রকল্পের অনুকূলে প্রয়োজনিয় অর্থ বরাদ্ধ দেন তাহলে অবশ্যই ঠিকাদার টেন্ডারে অংশ গ্রহণ করবেন। অন্যতায় লোকাল অফিস বারবার দরপত্র আহ্বান করতে পারেন। কিন্তু বরাদ্ধের নিশ্চয়তা ছাড়া যদিও কোন ঠিকাদার কাজ নেয় বাস্তব অবস্থার প্রেক্ষিতে বরাদ্ধ ছাড়া তিনি কাজ করবেন না। কারণ কাজের সঙ্গে অর্থের সম্পর্ক অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ন।

ঠিকাদার আব্দুর রহমান জানান, দীর্ঘদিন ধরে ঠিকাদারী করে আসছেন তিনি। ঠিকাদাররা দরপত্রে অংশ গ্রহন না করার কারন উল্লেখ করে জানান, বর্তমানে লেবার খরছ অনেক বেশী। প্রাকৃতিক দুর্যোগ এ মৌসুমে ঘন বৃষ্টিপাত হওয়ার আশংঙ্খা বেশী থাকে। বৃষ্টি হলে নদীতে জুয়ার আসবে ফলে চলমান মেরামত কাজ অনেকাংশে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কাজ করতে গিয়ে আগাম বন্যায় অনেক সময় কাজে বিগ্ন ঘটে। পরে এ নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিস জায়-ঝামেলা পাকায় এমনকি মামলাও হয়। এছাড়া টেন্ডারে অংশ নেওয়ার কঠিন শর্ত থাকায় ঠিকাদাররা সেখানে ঝুকি নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী নন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com