গানে ছন্দে ছড়ায় নিরাপদে স্কুলে ফেরার আহ্বান

গানে ছন্দে ছড়ায় নিরাপদে স্কুলে ফেরার আহ্বান

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

‘নিরাপদ স্কুলে ফেরা’ শিরোনামে গতকাল রোববার সন্ধ্যায় সেভ দ্য চিলড্রেন ও প্রথম আলো আয়োজিত ‘মিডিয়া ক্যাফে’ অনুষ্ঠানে গানটির নির্মাণের কথা তুলে ধরেন অভিনয়শিল্পী ও নির্মাতা আফজাল হোসেন এবং ‘জলের গানে’র প্রতিষ্ঠাতা রাহুল আনন্দ। দেড় বছর পর স্কুলে ফেরা শিশুদের প্রতি বন্ধুত্বের হাত বাড়াতে সরকার, সমাজ, পরিবার ও শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানান তাঁরা।

সেভ দ্য চিলড্রেনসহ শিক্ষা নিয়ে কাজ করা ২০টি বেসরকারি সংস্থা শিশুদের স্কুলে নিরাপদে ফেরার লক্ষ্যে গানের পাশাপাশি কার্টুন চলচ্চিত্র, তারকাদের মাধ্যমে তথ্য ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। এর অংশ হিসেবে দরিদ্র পরিবারের শিশুদের শিক্ষা কার্যক্রমে ফিরিয়ে আনা, বাড়ি বাড়ি গিয়ে শিশুদের স্কুলে পাঠানোর জন্য পরিবারের সঙ্গে আলোচনা, স্কুলকে নিরাপদ করতে দায়িত্বশীল ব্যক্তি ও স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির সঙ্গে আলোচনা ও পরামর্শ করার মতো বিভিন্ন কার্যক্রম নেওয়া হয়েছে।

মিডিয়া ক্যাফে অনুষ্ঠানে অভিনয়শিল্পী ও নির্মাতা আফজাল হোসেন বলেন, দুই বছর ধরে করোনা পরিস্থিতির সংকটে রয়েছে সবাই। দীর্ঘ দেড় বছর বন্ধ থাকার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলেছে। কীভাবে সহজে মানুষের কাছে তথ্য পৌঁছানো যাবে, কীভাবে শিশুদের মনে তথ্য গেঁথে দেওয়া যাবে আনন্দের সঙ্গে, সেসব ভেবেই গানটি তৈরি করা হয়েছে। এখানে গানের মধ্য দিয়ে একটি বড় সামাজিক দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করা হয়েছে। গানের দল জলের গান সৃজনশীল কাজ করে। কেরানীগঞ্জের একটি স্কুলের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শিল্পীদের মিলেমিশে কাজটি করার মধ্যে চ্যালেঞ্জ ছিল। শেষ পর্যন্ত সবার অংশগ্রহণে দেখা গেছে চেষ্টা অসম্ভবকে সম্ভব করে।

গানটিতে ছড়ায় ছড়ায় রয়েছে উপদেশমূলক বার্তা। যেমন ‘মাস্ক থাকবে নাকের ওপর সকাল দুপুর/ নিয়ম করে হাতটা ধোব করোনা হবে দূর’। গানে গানে বলা হয়েছে, ‘স্কুলেতে আছে সাবান, পর্যাপ্ত পানি/ হাত ধোব বারবার, নিয়ম সবাই জানি’।

এই প্রচারে যুক্ত হওয়ার প্রস্তাব পেয়ে একবাক্যে রাজি হয়ে যান বলে জানিয়েছেন জলের গানের শিল্পী রাহুল আনন্দ। তিনি বলেন, গানে অংশে নেওয়া শিশুরা শুটিংয়ের সময় শুরুতে দূরে দূরে ছিল। পরে তাদের সঙ্গে বন্ধুর মতো সম্পর্ক হয়ে গিয়েছিল। তিনি বলেন, এই শিশুরা দীর্ঘদিন একটি বদ্ধতার মধ্যে ছিল। তারা হয়তো শিক্ষার অনেক কিছুই ভুলে গেছে। এখন তাদের শুধু স্কুলে ফিরিয়ে আনলেই হবে না। সরকার, সমাজ, পরিবার, শিক্ষক—সবাইকে তাদের প্রতি বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।

সেভ দ্য চিলড্রেনের জ্যেষ্ঠ যোগাযোগ কর্মকর্তা নুসরাত আমীন বলেন, শিশুদের নিরাপদে স্কুলে পাঠানোর জন্য টেলিভিশন, রেডিও, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, এলাকায় এলাকায় মাইকিং কার্যক্রমের মাধ্যমে তথ্য ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শিশুদের নিয়মিত হওয়ার ক্ষেত্রে যার যা কিছু দায়িত্ব রয়েছে, তা তুলে ধরা হয়েছে গান, অ্যানিমেশন এবং তারকাদের বার্তা দেওয়ার মাধ্যমে। শিক্ষক, অভিভাবক থেকে শুরু করে শিক্ষার্থী—সবার মতামত নেওয়া হয়েছে তারা কীভাবে তথ্য চায়, কাদের কাছ থেকে তথ্য চায় এবং কী কী বিষয় প্রচারে গুরুত্ব পেতে হবে।

‘নিরাপদ স্কুলে ফেরা’ শীর্ষক মিডিয়া ক্যাফে অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন মৌসুমী মৌ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com