‘খালেদাকে ৪০১ ধারায় বিদেশে পাঠাতে পারে সরকার’

‘খালেদাকে ৪০১ ধারায় বিদেশে পাঠাতে পারে সরকার’

http://lokaloy24.com/

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়টি ফের আলোচনায় এসেছে। আলোচনা চলছে ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারা নিয়েও। এ ধারার অধীনে খালেদার সাজা স্থগিত রেখে শর্তসাপেক্ষে বাড়িতে থাকার অনুমতি দিয়েছে সরকার। আবারো সেই একই ধারার অধীনে খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার সুযোগ চাচ্ছে বিএনপি।

কিন্তু সরকার বলছে, ৪০১ ধারা একবার বিবেচনায় নেয়া হয়েছে, ফলে ওই ধারায় নতুন আবেদন পুনর্বিবেচনার সুযোগ নেই। এমন অবস্থায় সরকার অসুস্থ খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে ৪০১ ধারা মোতাবেক তাকে বিদেশে পাঠাতে পারে বলে জানিয়েছেন বিএনপিপন্থি জ্যেষ্ঠ আইনজীবীরা।

মানবিক কারণে চিকিৎসার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের একটি প্রতিনিধিদল। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বাংলাদেশ সচিবালয়ে আইন মন্ত্রণালয়ে ১৫ জন আইনজীবী আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এই স্মারকলিপি দেন।

প্রতিনিধি দলে ছিলেন— অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন, নিতাই রায় চৌধুরী, আহমেদ আজম খান, ফজলুর রহমান, এ জে মোহাম্মদ আলী, তৈমূর আলম খন্দকার, এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, বদরুদ্দোজা বাদল, রুহুল কুদ্দুস কাজল, আবেদ রেজা, আব্দুল জব্বার ভূইয়া, গাজী কামরুল ইসলাম সজল, মোহাম্মদ আলী ও ওমর ফারুক ফারুকী। এদিকে অসুস্থ খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি চেয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে আরেকটি পৃথক আবেদন করেছেন সুপ্রিম কোর্টের ১০ বিশিষ্ট আইনজীবী। আবেদনে আইনজীবীরা বলেন, মহামান্য রাষ্ট্রপতি, আমরা নিম্ন স্বাক্ষরকারীরা বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের পেশারত আইনজীবী। আমাদের আবেদন, তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া মারাত্মক অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। আপনি দেশের সাংবিধানিক প্রধান অভিভাবক। সাবেক একজন প্রধানমন্ত্রীকে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে বিদেশে উন্নত চিকিৎসা গ্রহণের আদেশ দেয়ার ক্ষমতা আপনার আছে। যে ক্ষমতা সংবিধান আপনাকে দিয়েছে। আমরা দেশের একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রীর জীবন রক্ষায় ওই আবেদনে সংবিধানের ৪৯ অনুচ্ছেদ প্রয়োগ করে বেগম খালেদা জিয়ার সাজা বাতিল করে বিদেশে উন্নত চিকিৎসা গ্রহণ করে বাঁচার সুযোগ দেয়ার আবেদন করছি।

জানা যায়, সংবিধানের ৪৯ অনুচ্ছেদ হলো— ‘ক্ষমা প্রদর্শনের অধিকার- ৪৯। কোনো আদালত, ট্রাইব্যুনাল বা অন্য কোনো কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত যে কোনো দণ্ডের মার্জনা, বিলম্বন ও বিরাম মঞ্জুর করিবার এবং যে কোনো দণ্ড মওকুফ স্থগিত বা হ্রাস করিবার ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির থাকিবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com