ওয়েস্ট ইন্ডিজের আর্চারকে বিশ্বকাপে খেলানোর বিষয়টা ভাবছে ইংল্যান্ড

ওয়েস্ট ইন্ডিজের আর্চারকে বিশ্বকাপে খেলানোর বিষয়টা ভাবছে ইংল্যান্ড

ওয়েস্ট ইন্ডিজের আর্চারকে বিশ্বকাপে খেলানোর বিষয়টা ভাবছে ইংল্যান্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজের আর্চারকে বিশ্বকাপে খেলানোর বিষয়টা ভাবছে ইংল্যান্ড

ক্রীড়া ডেস্ক : জোফরা আর্চারের জন্ম ওয়েস্ট ইন্ডিজের বার্বাডোজে। কিন্তু তার বাবা একজন ইংলিশ এবং আর্চারের ব্রিটিশ পাসপোর্ট রয়েছে। আগের নিয়ম অনুযায়ী ২০২২ সালের আগে ইংল্যান্ডের হয়ে খেলার সুযোগ পেতেন না তিনি। কিন্তু নতুন নিয়মে কারো বয়স ১৮ হওয়ার পর তিন বছর ইংল্যান্ডে অবস্থান করলে তিনি সে দেশের হয়ে খেলার সুযোগ পাবেন।

আর্চার ২০১৫ সাল থেকে ইংল্যান্ডে আসা-যাওয়া করছেন। এই অলরাউন্ডারকে ২০১৯ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড দলে খেলানোর বিষয়টি নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন ইংল্যান্ডের পুরুষ ক্রিকেটের নতুন ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যাশলে গিলেস। তবে তিনি আর্চারের বিষয়টি নিয়ে অন্যান্যদের সঙ্গেও কথা বলবেন। তবে ইংল্যান্ডের অধিনায়ক ইয়ান মরগান বলেছেন যে দলের কেউ যদি ইনজুরি না পড়ে তাহলে আর্চারকে ইংল্যান্ড দলে খেলানোটা কঠিন হয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে অপেক্ষা করতে হতে পারে বার্বাডোজে জন্ম নেওয়া এই অলরাউন্ডারকে। তবে আর্চারের দক্ষতা ও মেধা নিয়ে কারো কোনো প্রশ্ন নেই।

গিলেস বলেন, ‘সে খুবই প্রতিভাবান একজন ক্রিকেটার। সে ইংল্যান্ড দলের হয়ে খেলার যোগ্য। জোফরা আর্চার যখন ইংল্যান্ডের হয়ে খেলার জন্য উন্মুক্ত হবে তখন বিষয়টা দারুণ হবে। আসলে এমন তরুণ ক্রিকেটার যে ঘণ্টার ৯০ মাইল গতিতে বল করতে পারে সে সবার নজড় কাড়বে। তার দক্ষতা প্রশসংনীয়। আর চলতি বছরটি আমাদের জন্য ওয়ানডের বছর। অনেক ম্যাচ আছে। মার্চের শেষ দিকে আর্চার ইংল্যান্ডের হয়ে খেলার জন্য উন্মুক্ত হবে। তবে তার বিষয় নিয়ে আমাকে নির্বাহী পরিচালকের সঙ্গে কথা বলতে হবে। যদিও ইতিমধ্যে আমরা আর্চারের বিষয় নিয়ে কথা বলেছি। তবু আরো একবার তার সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলব। আসলে আরো কয়েকজনের মতামত নিতে হবে। আমাকে জানতে হবে যে আর্চারের বিষয় নিয়ে কোচ ও অধিনায়করা কী ভাবছেন।’

২৩ এপ্রিল ইংল্যান্ড তাদের বিশ্বকাপের প্রাথমিক স্কোয়াড ঘোষণা করবে। সে পর্যন্ত আর্চারকে অপেক্ষায় থাকতে হবে। এমনকী এই সময়ের মধ্যে তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়েও খেলতে পারবেন না। বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ড একটি ওয়ানডে খেলবে। আর পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলবে পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ।

ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের নতুন রেসিডেন্সি নিয়ম অনুযায়ী ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ইংল্যান্ডের হয়ে খেলতে একজন খেলোয়াড়ের থাকতে হবে- ব্রিটিশ সিটিজেনশিপ (হয় ইংল্যান্ড/ওয়েলসে জন্মসূত্রে অথবা তিন বছর বসবাস করে (বছরে ২১০ দিন, এপ্রিল-মার্চ)। এবং আইসিসির কোনো পূর্ণ সদস্য দেশের হয়ে সবশেষ তিন বছরে কোনো ঘরোয়া কিংবা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না খেলা।

জোফরা আর্চার ২০১৫ সালে সবশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে খেলেছিলেন। এরপর থেকে তিনি ইংল্যান্ডের ক্লাব সাসেক্সের হয়ে খেলেছেন। এখানেই তিনি একজন মেধাবী অলরাউন্ডার হয়ে ওঠেন। যিনি একদিকে লাইন-লেন্থ বজায় রেখে ক্ষিপ্রগতিতে বল করতে পারেনি, তেমনি ব্যাট হাতে ঝড় তুলতে পারেন। সে কারণেই ২০১৮ আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালস তাকে ৮ মিলিয়ন পাউন্ডে তাকে দলে ভিড়িয়েছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com