ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর

ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর
ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর

আজ ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর। ১৯৭৫ সালের এই দিনে সংঘটিত হয়েছিল সিপাহী-জনতার এক ঐতিহাসিক বিপ্লব। এদিন এক অস্থিতিশীল পরিস্থিতির মধ্যে সিপাহী-জনতার বিপ্লব ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে নিয়ে আসে তৎকালীন সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমানকে। বিএনপি এবং ডানপন্থী কিছুদল দিনটি বিপ্লব ও সংহতি দিবস হিসেবে পালন করে। তাদের সরকারের সময়ে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস হিসেবে এ দিনটিতে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়। অন্য দিকে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে ছুটি বাতিল করে। তারা দিনটি পালন করে মুক্তিযোদ্ধা হত্যা ও সৈনিক হত্যা দিবস হিসেবে। বিপ্ল­বে তিনজন খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা মারা যান। তারা হলেন, খালেদ মোশাররফ বীরউত্তম, কে এন হুদা বীরউত্তম এবং এ টি এম হায়দার বীরবিক্রম। আর জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ও সমমনা দলগুলো প্রতি বছর এ দিবসটি সিপাহী-জনতার অভ্যুত্থান দিবস হিসেবে পালন করে থাকে।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে এ দিনটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। সিপাহী-জনতার বিপ্ল­ব দেশের তৎকালীন রাজনীতির গতিধারা পাল্টে দিয়ে দেশ ও জাতিকে নতুন পরিচয়ে সিক্ত করেছিল। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট-পরবর্তী সেনা অভ্যুত্থান, পাল্টা সেনা অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে দেশে যখন চরম নৈরাজ্যজনক পরিস্থিতি বিরাজ করছিল, তখন সিপাহী-জনতার ঐক্যের অভ্যুত্থান দেশ ও জাতিকে অনাকাক্সিক্ষত শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি থেকে মুক্তি দিয়েছিল। অভূতপূর্ব সেই বিপ্লব-অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে সাময়িক বন্দিদশা থেকে মুক্ত হন তৎকালীন সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের হত্যাকা- ও ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে জাতীয় চার নেতা হত্যাকা-ের ধারাবাহিকতায় ওই দিনই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উপ-প্রধান ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফ তার অনুসারী সেনাসদস্যদের নিয়ে এক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে বন্দি করেন। আত্মস্বীকৃত পদোন্নতি নিয়ে ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফ মেজর জেনারেলের ব্যাজ ধারণ এবং সেনাপ্রধানের পদ দখল করেন। ৬ নভেম্বর খালেদ মোশাররফ বঙ্গভবনের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট খন্দকার মোশতাক আহমদকে গ্রেফতার করেন। মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ মন্ত্রিসভা বাতিল ও জাতীয় সংসদ ভেঙে দেয়ার ঘোষণা দেন। একই দিনে তিনি প্রধান বিচারপতি আবু সা’দাত মোহাম্মদ সায়েমকে দেশের প্রেসিডেন্টের পদে বসান।

এভাবে চরম উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, অনিশ্চয়তা ও ভীতিকর পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে কেটে যায় চার দিন। একপর্যায়ে ৬ নভেম্বর মধ্য রাতে সেনাবাহিনীর সাধারণ সিপাহীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। সেই অভ্যুত্থানের স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থনে আপামর জনতা রাজপথে নেমে আসে। সিপাহী-জনতার মিলিত সেই বিপ্ল­বে বন্দি অবস্থা থেকে মুক্ত হন সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমান। এই পাল্টা অভ্যুত্থান ঠেকাতে গিয়ে প্রাণ হারান খালেদ মোশাররফ ও তার কিছু অনুসারী। পরদিন ৭ নভেম্বর সর্বস্তরের সৈনিক ও জনতা সম্মিলিতভাবে নেমে আসে ঢাকার রাস্তায়, ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। অভূতপূর্ব এক সংহতির নজির সৃষ্টি হয় দেশের রাজনীতিতে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com