সংবাদ শিরোনাম :
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে এগিয়ে নিতে সকলের এক যোগে কাজ করার আহ্বান : আবু জাহির রাজধানীর বস্তি থেকে হবিগঞ্জের শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার পার্কিং করা বাসে ৩০ কেজি গাঁজা, গ্রেফতার ৩ ‘বাবা নির্যাতন সহ্য করতে পারছি না, আমাকে উদ্ধার করো : সৌদি থেকে মেয়ের আকুতি ভারতের ত্রিপুরায় প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ায় খোয়াই নদীর পানি বৃদ্ধি রাস্তায় পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে টেলিফোন বক্স ॥ দেখার যেনো কেউ নেই শায়েস্তানগর হকার মার্কেট দখল করে ব্যবসা ॥ নেয়া হয়েছে অবৈধ বিদ্যুত সংযোগ হবিগঞ্জ শহরে ব্যাটারী চালিত রিকশার বিরুদ্ধে অভিযান বাধা দিলেই খুন করত শুক্কুর আলী-দিদার আগামী ৮ অক্টোবর হবিগঞ্জে শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনে সব গণপরিবহন বন্ধ
এশিয়ায় টিকাদানে পিছিয়ে বাংলাদেশ

এশিয়ায় টিকাদানে পিছিয়ে বাংলাদেশ

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক

করোনা মহামারীতে টিকা কর্মসূচিতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। চলতি বছরের মধ্যে দেশের ৪০ শতাংশ নাগরিককে যে হারে টিকা দেওয়া প্রয়োজন তা থেকে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত ‘টাস্কফোর্স অন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস’ ওয়েবসাইটের তথ্যচিত্রে বিষয়টি উঠে এসেছে।

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে টিকা কর্মসূচি পর্যবেক্ষণে আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত টাস্কফোর্সের তথ্যচিত্রে দেখা গেছে, ২০২২ সালের মধ্যে দেশের ৬০ শতাংশ মানুষকে টিকাদানের ক্ষেত্রেও অনেক পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ।

এ সংক্রান্ত ওয়েবসাইটে গত শুক্রবার দেখা গেছে, বাংলাদেশে সাত দিনের গড়ে দৈনিক টিকাদানের হার শূন্য দশমিক ১১ শতাংশ। এর অর্থ হচ্ছে প্রতি ১০০ জনে টিকা পাচ্ছে শূন্য দশমিক ১১ জন। কিন্তু ভারতে এই হার শূন্য দশমিক ৩১ শতাংশ, পাকিস্তানে শূন্য দশমিক ১৯ শতাংশ, নেপালে শূন্য দশমিক ৩৩ শতাংশ, শ্রীলংকায় ১ দশমিক ৬৩ শতাংশ। এই দেশগুলো টিকাদানে বাংলাদেশ থেকে এগিয়ে আছে। অন্যদিকে বাংলাদেশের চেয়ে টিকাদানের গতি কম ভুটানে (শূন্য দশমিক ০৪ শতাংশ), মালদ্বীপে (শূন্য দশমিক ০৮ শতাংশ), আফগানিস্তানে (শূন্য দশমিক ০৫ শতাংশ)। যদিও ভুটান ও মালদ্বীপ উভয় দেশই তাদের মোট জনসংখ্যার বড় অংশকে টিকাদান সম্পন্ন করেছে।

টাস্কফোর্সের দেখা তথ্য বলছে, চলতি বছরের মধ্যে বাংলাদেশ যদি ৪০ শতাংশ মানুষকে টিকাদান সম্পন্ন করতে হয় তা হলে প্রতিদিন শূন্য দশমিক ৪৯ শতাংশ হারে টিকা দিতে হবে। আর ২০২২ সালের মাঝামাঝিতে ৬০ শতাংশকে টিকা দিতে হলে দিনে শূন্য দশমিক ৩৫ শতাংশ হারে টিকা দিতে হবে।

বাংলাদেশের জনগণ সাড়ে ১৬ কোটি, তাদের মধ্যে ৪০ শতাংশ নাগরিককে টিকা দিতে ১৩ কোটি ১৮ লাখ ডোজ টিকার প্রয়োজন হবে। আর ৬০ শতাংশ মানুষকে টিকার আওয়তায় আনতে অন্তত ২০ কোটি ডোজ টিকা লাগবে। টাস্কফোর্স ধারণা করছে, বাংলাদেশ বর্তমানে যে হারে টিকা দিচ্ছে তাতে এই বছরের শেষ নাগাদ ১৯ দশমিক ৬৪ শতাংশ নাগরিককে টিকা দেওয়া সম্ভব হতে পারে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ সরকার ৮০ শতাংশ নাগরিককে টিকা দেওয়ার লক্ষ্য নিয়ে চলতি বছর ৭ ফেব্রুয়ারি টিকা কর্মসূচি শুরু করে। গত ২৫ জুলাই পর্যন্ত ৭৫ লাখ জন টিকার একটি ডোজগ্রহণ করেছেন, আর দুই ডোজ পেয়েছেন মাত্র ৪৩ লাখ মানুষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com