এমন চন্দ্রগ্রহণের দেখা মিলবে না ৬৪৮ বছরেও

এমন চন্দ্রগ্রহণের দেখা মিলবে না ৬৪৮ বছরেও

http://lokaloy24.com/

গতকালের চন্দ্রগ্রহণের মেয়াদ ছিল প্রায় সাড়ে ৩ ঘণ্টা। আর ‘পিনামব্রাল’ পর্যায় আমলে নিলে সব মিলিয়ে ছয় ঘণ্টার গ্রহণ দেখলো বিশ্ববাসী। এত দীর্ঘ চন্দ্রগ্রহণ হাজার বছরে একবার মেলা কঠিন। শেষবার দীর্ঘমেয়াদে চন্দ্রগ্রহণ হয়েছিল ১৪৪০ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি।

এরপর ২৬৬৯ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি এমন গ্রহণ দেখা যাবে। অর্থাৎ এক হাজার ২২৯ বছরের মধ্যে এই একবারই এমন চন্দ্রগ্রহণের দেখা মিললো। সূর্যের আলো চন্দ্রপৃষ্ঠে প্রতিফলিত হয় বলে আমরা চাঁদ দেখতে পাই। তবে চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদ, পৃথিবী এবং সূর্য একই সরলরেখায় আসে, পৃথিবী তখন থাকে চাঁদ ও সূর্যের মাঝামাঝি। এতে পৃথিবীর ছায়া পড়ে চন্দ্রপৃষ্ঠে।

সে ছায়ায় চাঁদের পুরোটা ঢাকা পড়লে বলা হয় পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ, আর অংশবিশেষের ক্ষেত্রে সেটি হয় আংশিক বা খণ্ডগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার তথ্য অনুযায়ী, গতকাল চাঁদের ৯৭ শতাংশ সূর্যের আলো থেকে বঞ্চিত হয়। সে কারণেই একে আংশিক চন্দ্রগ্রহণ বলা হচ্ছে। শুরুতে ক্রমে আঁধারে ঢেকে গেলেও গ্রহণের এক পর্যায়ে লালচে রঙ ধারণ করে চাঁদ।

শেষদিকে আবার ক্রমে আঁধারে ঢেকে যেতে থাকে। বাংলাদেশ সময় গতকাল দুপুর ১২টা ২ মিনিটে শুরু হয় পিনামব্রাল চন্দ্রগ্রহণ। পিনামব্রাল পর্যায়ে পৃথিবীর প্রচ্ছায়ায় না থেকে উপচ্ছায়ায় থাকে চাঁদ। মূল ছায়ার বাইরের অংশটুকুতে যখন চাঁদ থাকে, তখন বলা হয় পিনামব্রাল চন্দ্রগ্রহণ। আর ৩ ঘণ্টা ২৮ মিনিট এবং ২৪ সেকেন্ডের মূল  গ্রহণ বেলা ১টা ১৯ মিনিটে শুরু হয়ে শেষ হয় বিকাল ৪টা ৪৭ মিনিটে।

এরপর পিনামব্রালের পরবর্তী ধাপ শুরু হয়। বাংলাদেশ থেকে দেখা গ্রহণটি এ পর্যায়ের ছিল। এবারের গ্রহণের পুরোটা সবচেয়ে ভালো দেখা যায় উত্তর আমেরিকার দেশগুলো থেকে। চাঁদ ওঠার সময় বুঝে অস্ট্রেলিয়া, পূর্ব এশিয়া, উত্তর ইউরোপ ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলেও তা দৃশ্যমান হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com