এক বছরেও উদঘাটন হয়নি শায়েস্তাগঞ্জে ইতি হত্যার রহস্য

এক বছরেও উদঘাটন হয়নি শায়েস্তাগঞ্জে ইতি হত্যার রহস্য

এক বছরেও উদঘাটন হয়নি শায়েস্তাগঞ্জে ইতি হত্যার রহস্য
এক বছরেও উদঘাটন হয়নি শায়েস্তাগঞ্জে ইতি হত্যার রহস্য

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে ৬ বছরের শিশু ইতি আক্তারকে নির্মমভাবে হত্যা ও পরবর্তীতে বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধারের প্রায় এক বছর দুই দিন অতিবাহিত হলেও এখনও জট খুলেনি মামলার।

ধরাছোয়ার বাহিরে রয়েগেছে হত্যাকান্ডের মুল হোতারা। এমনটাই দাবী করছেন নিহত শিশু ইতি আক্তার এর পরিবার ও স্থানীয় লোকজন। তাই সঠিক তদন্তের দাবী জানিয়ে প্রকৃত হত্যাকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীও জানিয়েছেন তারা। কি দোষে এই শিশু বাচ্চাটিকে হত্যা করা হয়েছে এমন প্রশ্ন ঘুরফাক খাচ্ছে স্থানীয় জনমনে। সে কি কারো পথের কাটা হয়ে দেখা দিয়েছিল না-কি পরিবারের উপর প্রতিশোধ নিতে নিষ্পাপ এই শিশুকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে এরও কোন হিসাব মিলাতে পারছেন না এলাকাবাসী।

ইতি আক্তার শায়েস্তাগঞ্জ পৌর এলাকার বিরামচর গ্রামের চটপটি বিক্রেতা আব্দুস শহীদের কন্যা। জানা যায়, গত বছরের ২৫ জুলাই সকালে বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি মক্তবে পড়তে যায় শিশু ইতি আক্তার। পরে দিন গড়িয়ে রাত হলেও তার কোন সন্ধ্যান পাওয়া যায়নি।

এক পর্যায়ে গত বছরের ২৬ জুলাই সকালে বিরামচর সাহেব বাড়ি মসজিদ মক্তবের পার্শ্ববর্তী একটি ঝোপঝাড় থেকে ইতির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে খবর পেয়ে পুুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ইতির লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

ওই দিনই এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিরামচর সাহেব বাড়ি জামে মসজিদের মোয়াজ্জিন শামীম আহমেদসহ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আটক করে পুলিশ।

শামীম বানিয়াচঙ্গের নন্দীপাড়া ভাদাউড়ি মহল্লার জালাল আহমেদের পুত্র। এক পর্যায়ে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ শেষে শামীম আহমেদসহ কয়েক জনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে।

এদিকে, গতকাল শনিবার (২৭ জুলাই) ঘটনার প্রায় এক বছর দুই দিন পর নিহত শিশু ইতি আক্তারের বাড়িতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় এখনও কান্না থামেনি ওই হতদরিদ্র পরিবারটির। তাদের পরিবারের একমাত্র চঞ্চল শিশুটিকে হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা। নিহত শিশু ইতি আক্তারের একটি ছবি বুকে নিয়ে বার বার মুর্ছা যাচ্ছিলেন ইতির মা আসমা আক্তার ও দাদী কুশবানুসহ পরিবারের সদস্যরা।

আলাপকালে নিহত শিশু ইতি আক্তারের পিতা চটপটি বিক্রেতা আব্দুস শহীদ কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, ‘কি দোষ ছিল আমার শিশু মেয়েটির। কেন তাকে এত নির্মম ভাবে হত্যা করা হল। আমার শিশু মেয়েটিকে যারা নির্মম ভাবে হত্যা করেছে আমি তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চাই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, চটপটি বিক্রেতা আব্দুস শহীদ গ্রামের একজন হতদরিদ্র ও নিরীহ ব্যক্তি। এলাকায় তার কোন শক্রতা নেই। তা হলে কেন তার মেয়েকে এরকম নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছে কেনই বা ঘটনার প্রায় এক বছর দুই দিন পরও মুল হোতারা গ্রেফতার হয়নি এ নিয়ে বিস্মিত তারা। একই সাথে ঘটনার প্রকৃত কারণ তদন্তের মাধ্যমে খুজে বের করে শাস্তি নিশ্চিতের দাবীও জানান তারা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com