উত্তরাঞ্চলে কোনো মঙ্গা নেই

উত্তরাঞ্চলে কোনো মঙ্গা নেই

উত্তরাঞ্চলে কোনো মঙ্গা নেই
উত্তরাঞ্চলে কোনো মঙ্গা নেই

লোকালয় ডেস্কঃ বর্তমানে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে কোনো মঙ্গা নেই উল্লেখ করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, সিআরপি, এমফোরসি, একটি বাড়ি একটি খামারের মতো উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে এই অর্জন সম্ভব হয়েছে।

বুধবার (০৯ মে) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে বগুড়ার পল্লী উন্নয়ন একাডেমি আয়োজিত ‘ন্যাশনাল সেমিনার ফিউচার প্ল্যানিং অব চর ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ সেন্টার (সিডিআরসি)’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব অর্জনের কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) এবং বাংলাদেশের সরকারের সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার আলোকে কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনে করেন দারিদ্র্য বিমোচন ও নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে বাংলাদেশের প্রতিটি বাড়িকে একটি খামার হিসেবে গড়ে তোলা প্রয়োজন। চরাঞ্চলের দরিদ্র মানুষের উন্নয়নের মূল স্রোতধারায় সংযুক্ত করতে না পারলে বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে এগিয়ে যেতে পারবে না। তাই সরকার বিভিন্ন সফল প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে ও আরও প্রকল্পের পরিকল্পনাও নিয়েছে।

খন্দকার মোশাররফ আরো বলেন, দেশের উত্তরাঞ্চলের দারিদ্র্য ও অন্যান্য ঝুঁকি হ্রাসের লক্ষ্যে আরডিসিডি, ডিএফআইডি, এইউএসএআইডি-এর সহযোগিতায় সিএলপি প্রকল্পের মাধ্যমে ২০০৪-২০১৬  মেয়াদে ১০টি জেলার ৩৩টি উপজেলার ১২০টি চর ইউনিয়নে ১ লাখ ৩০ হাজার পরিবারকে সম্পদ হস্তান্তরের মাধ্যমে দারিদ্র্যমুক্ত করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৩ সালে আরডিসিডি,  এসডিসি ও আরডিএ যৌথভাবে সিএলপি প্রকল্পের সম্পদ হস্তান্তরের কার্যক্রমের ফলাফলের ভিত্তিতে এমফোরসি প্রকল্পটি বাস্তবায়ন শুরু করে। যা চরাঞ্চলে উৎপাদিত কৃষি পণ্যের বাজারজাতকরণ, গুণগত কৃষি পণ্যের ব্যবহার ও গুণগত মানসম্পন্ন পণ্য উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। এমফোরসি প্রকল্পের আওতাধীন চরাঞ্চলের টেকসই বাজার ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ১০টি জেলায় ৯০ হাজার দরিদ্র পরিবারের আয় ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা সম্ভব হয়েছে।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সচিব এস এম গোলাম ফারুকের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত রেনে হোলেনস্টিন, সিরডাপের মহাপরিচালক টেভিটা জি বসেওয়াকা টাগিনাভুলাও, পল্লী উন্নয়ন একাডেমি বগুড়ার মহাপরিচালক এম এ মতিন, সুইসকান্টের কান্ট্রি ডিরেক্টর অনির্বাণ ভৌমিক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com