সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে মিরাজ জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে শুক্রবার ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে আরটিপিসিআর ল্যাব বসানোর অনুমোদন ৭ প্রতিষ্ঠানকে
‘ইস্পাহানি গ্রুপ’র বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রয়াত পরিচালকের পরিবারের

‘ইস্পাহানি গ্রুপ’র বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রয়াত পরিচালকের পরিবারের

ভাঙার আগে এমনই ছিল রমনার ইস্পাহানি কলোনিতে সৈয়দ ‍মুজিবুল হকের বাড়িটি

বাংলাদেশের অন্যতম পুরোনো ও খ্যাতনামা শিল্প পরিবারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেছেন রমনায় ইস্পাহানি কলোনিতে ৪৩ বছর ধরে বসবাসকারী পরিচালক সৈয়দ ‍মুজিবুল হকের পরিবারের সদস্যরা।

তারা বলছেন, গত ১৬ ডিসেম্বর উচ্ছেদের পরদিন ‘অনেক গড়িমসির পর’ পুলিশ মামলা নিলেও এখন পর্যন্ত তার কোনো অগ্রগতি নেই।

রমনা থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম  জিজ্ঞাসায় রোববার বলেছেন, তারা অভিযোগের ‘সত্যতা’ পেয়েছেন।

“এখন তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত শেষ হলে প্রতিবেদন দেওয়া হবে,” বলেন তিনি।

এই অভিযোগ নিয়ে এমএম ইস্পাহানি লিমিটেডে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কারও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মুজিবুল হকের স্ত্রী হাবিবা হকের করা মামলায় এম এম ইস্পাহানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান মির্জা সালমান ইস্পাহানি, পরিচালক ইমাদ ইস্পাহানি ও মির্জা সাজিদ ইস্পা​হানি এবং এবিসি ডেভেলপার কোম্পানির চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও একজন পরিচালকসহ অজ্ঞাতনামা ৪০-৪৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মুজিবুল হকের পরিবারের সদস্যরা জানান, স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে এমএম ইস্পাহানি লিমিটেডের সম্পত্তি জাতীয়করণের সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ সরকার; সে সময়ে পরিত্যক্ত সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা বোর্ডের সদস্য মুজিবুল হককে কোম্পানির শেয়ার-হোল্ডার পরিচালক হওয়ার প্রস্তাব দেন কোম্পানির তৎকালীন কর্ণধার মির্জা আহমেদ ইস্পাহানি।

সেই প্রস্তাবে সাড়া দেওয়ার পর ১৯৭৪ সালে মুজিবুল হক কোম্পানির পরিচালক হিসাবে বসবাসের জন্য মগবাজারে ইস্পাহানি কলোনির ১২ নম্বর বাড়িটি পান।

পরিচালক থাকাবস্থায় স্ত্রী হাবিবা হক ও সন্তানদের উত্তরাধিকার হিসাবে রেখে ২০০৬ সালে মারা যান মুজিবুল হক। তার সঙ্গে ওই বাড়িতে থাকতেন তাদের মেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাজমীন হকও।

তাদের অন্য সন্তানদের মধ্যে মেয়ে ড. শারমিন হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক, ইয়াসমিন হক ইউনেস্কোর সাবেক প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট এবং ফারজিন হক লন্ডনে সেন্ট জর্জেস হাসপাতালের চিকিৎসা মনোবিজ্ঞানী।

একমাত্র ছেলে অধ্যাপক এজাজ হক অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির রাদারফোর্ড ল্যাবরেটরির ন্যানো টেকনোলজি সাবেক গবেষণা প্রধান; এখন সেখানে নিজের একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান চালান তিনি।

এজাজ হক বলেন, “বাবা মারা যাওয়ার পর ইস্পাহানির তখনকার চেয়ারম্যান প্রয়াত বেহরুজ ইস্পাহানি মায়ের জীবদ্দশায় কলোনির এই বাড়িতে আমরা থাকতে পারব বলে জানান।”

বেহরুজ ইস্পাহানির লেখা চিঠিতে কোম্পানির ১০ শতাংশ শেয়ার মুজিবুল হকের পরিবারকে দেওয়ার কথাও উল্লেখ রয়েছে বলে জানান তিনি।

এজাজ বলেন, “এক বিঘার মতো জায়গায় এক তলা ওই বাড়ি ছাড়লে সমপরিমাণ জায়গার বাড়িতে স্থানান্তরের কথাও দেন তিনি।”

২০১১ সালে শেয়ার সংক্রান্ত বিরোধ মীমাংসার জন্য কোম্পানির সঙ্গে আলোচনা হয় মুজিবুল হকের উত্তরাধিকারদের।

এজাজ বলেন, “তারা শেয়ার ছাড়ার হস্তান্তরের বিষয়ে আলোচনায় আসে এবং বিভিন্ন রকম হুমকি-ধমকিও দেয়। এক পর্যায়ে আমরা শেয়ার ছাড়তে রাজি হলেও ‘বিনামূল্যে’ (অ্যাট নো কস্ট) শেয়ার হস্তান্তর হয়েছে এমন শর্ত চুক্তিনামায় সংযুক্ত করতে বলি।

“কিন্তু তারা সেটাতে রাজি না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত আলোচনা বন্ধ হয়ে যায়। মীমাংসা না হওয়া অবস্থায় আমরা ওই বাড়িতে বসবাস করতে থাকি।”

২০১৩ সালে ইস্পাহানির সম্পত্তি দেখভালকারী প্রতিষ্ঠান ‘ফ্রি স্কুল স্ট্রিট প্রোপার্টি লিমিটেড’ মুজিবুল হকের পরিবারকে উচ্ছেদের জন্য মামলা করে বলে জানান এজাজ। তাতে মূল ইস্পাহানি কোম্পানি ও তার মা হাবিবা হককে বিবাদী করা হয়।

এজাজ জানান, ২০১৬ সালে ফ্রি স্কুল স্ট্রিট প্রোপার্টি অন্য প্রতিষ্ঠান এবিসি ডেভেলমেন্ট কোম্পানির সঙ্গে মিলে ইস্পাহানি কলোনিতে আবাসিক কমপ্লেক্স তৈরিতে উদ্যোগী হয়।

“আগের মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া এবং আদালতের বাইরের মীমাংসার উদ্যোগ ব্যর্থ হওয়ায় আমরা ২০১৭ সালের নভেম্বরে এসে কোনো ধরনের উচ্ছেদে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করি।”

মামলার শুনানির তারিখ চলতি মাসে নির্ধারণের পর গত ১৬ ডিসেম্বর ‘অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত লোক দিয়ে জোর করে’ তাদের বাড়ি থেকে উচ্ছেদের পর বাড়িটি গুঁড়িয়ে দেওয়া বলে এজাজের অভিযোগ।

ওই ঘটনার পর হাবিবা হকের করা মামলার এজাহারে বলা হয়, নামোল্লেখ করা ছয়জনসহ অজ্ঞাতনামা ৩০/৩৫ জন পুরুষ ও ১০/১২ জন নারী বাড়িতে ‘অবৈধভাবে অনধিকারে অনুপ্রবেশ’ করে এবং তিনি ও তার এক আত্মীয়সহ মোট ছয়জনকে একটি কক্ষে আটকে রেখে ৪-৫টি ট্রাকে মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

চার মেয়ে ও এক ছেলে বউয়ের ২০০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, তিনটি ফ্রিজ, তিনটি টেলিভিশন, তিনটি এসি, ১০ লাখ টাকা মূল্যের আসবাবপত্র, বাড়ির জমির দলিল, বিভিন্ন নথিপত্র, কাপড়-চোপড়, নগদ ১০ লাখ টাকাসহ মোট ১ কোটি ৪১ লাখ মূল্যের সম্পত্তি লুট করে বলে অভিযোগ করা হয় মামলায়।

এজাহারে ৮৬ বছর বয়সী হাবিবা লেখেন, “যাওয়ার সময় বাড়ি-ঘরসহ আমার বাসার মধ্যে থাকা মালামাল বুলডোজার দিয়া ভাঙিয়া দেয়। আমার বাসার মালামাল ভাঙিয়া প্রায় ৩০ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন করে।”

পরিবারের সদস্যরা জানান, মার সঙ্গে বসবাস করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নাজমীন হক হামলার দিন সকালে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ায় বাড়িতে পরিবারের সদস্য বলতে কেবল অশীতিপর হাবিবাই ছিলেন।

উচ্ছেদকারীরা মালামাল হাবিবা হকের বড় মেয়ে শারমিন হকের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাসায় পৌঁছে দেবে জানালেও সেটা করা হয়নি বলে জানান নাজমীন।

নাজমীন বলেন, “বাড়ির পেছন দিয়ে তার ভেতরে প্রবেশ করে মাসহ ছয়জনকে একটি কক্ষে আটকে রাখে। তার সেখানে থাকাবস্থায় ভাংচুর চালায় আর বাসার ভেতরেই বিভিন্ন দলিলপত্র পুড়িয়ে দেয়।

“তাকে (হাবিবা) গাড়ি দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পাঠানোর সময় গাড়ির ভেতরে আটকে রেখে অস্ত্রের মুখে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়। বলা হয়, আপনার পেছন পেছন মালামালগুলো যাবে, কিন্তু সেটা আর আসেনি।”

তিনি বলেন, “মামলা নিষ্পত্তি হওয়ার সময়ও তারা নেয়নি। বারবার আশ্বাস দিয়েছিল, এখানে আবাসিক এলাকা গড়ে তোলা হলে আমাদের বাড়ির কিছু হবে না। কিন্তু আমি দেশের বাইরে চলে যাওয়ার পর বৃদ্ধ মাকে আটকে রেখে তারা এই কাণ্ড ঘটাল।”

তার পিএইচডি থিসিসও ‘ধ্বংস করা’ দলিলপত্রের মধ্যে ছিল উল্লেখ করে নাজমীন বলেন, “তারা চেয়েছিল, এর মাধ্যমে সমস্ত দলিলপত্র নষ্ট করে ফেলবে, যাতে আমরা আমাদের সম্পত্তির অধিকার দাবি করতে না পারি।”

সহকর্মী নাজমীনের বাড়ি ধ্বংস করার ঘটনায় নিন্দা জানানোর পাশাপাশি এই ঘটনার বিচার চেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের একাডেমিক কমিটি।

এজাজ বলেন, “এ ঘটনার পরপরই মামলা করতে চাইলেও পুলিশ গড়িমসি করে। অনেক মাধ্যমে যোগাযোগের পর পরদিন মামলা নেয়। এরপর তিন সপ্তাহ পার হলেও বাদীর সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেনি।”

গড়িমসির অভিযোগের বিষয়ে রমনা থানার ওসি মাইনুল বলেন, “২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মামলা হয়েছে। আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছি। থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আলী হোসেন নিজেই তদন্ত করছেন।”

চেষ্টায়ও মেলেনি ইস্পাহানির বক্তব্য

মুজিবুল হকের পরিবারের অভিযোগ পাওয়ার পর রোববার থেকে ইস্পাহানি গ্রুপের বক্তব্য পেতে চেষ্টা চালানো হলেও তা পাওয়া যায়নি।

গ্রুপের পরিচালক ইমাদ ইস্পাহানির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কোম্পানির মুখপাত্র হিসেবে একজন যোগাযোগ করে এই বিষয়ে বক্তব্য জানাবেন।

এজন্য প্রতিবেদকের নাম, মোবাইল নম্বরও তিনি নিয়েছিলেন।

সোমবার দুপুর পর্যন্ত কেউ যোগাযোগ না করার পর আবার ফোন করা হলে ইমাদ ইস্পাহানি বলেন, “যোগাযোগ করবে।”

কিন্তু সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদকসহ কারও সঙ্গে ইস্পাহানি গ্রুপের কেউ যোগাযোগ করেনি।

তাহলে কার সঙ্গে কথা হয়েছে- জানতে চাইলে ইমাদ ইস্পাহানি বলেন, “কার সঙ্গে কথা হয়েছে, আমি সেটা জানি না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com