ইসলামে পূর্ণভাবে প্রবেশ করার নির্দেশ

ইসলামে পূর্ণভাবে প্রবেশ করার নির্দেশ

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

আল্লাহর বাণীÑ ‘হে মুমিন সকল! ইসলামে সম্পূর্ণরূপে প্রবেশ করো এবং শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করো না, নিশ্চয়ই সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু’ (সূরা : বাকারা : আয়াত-২০৮)।
উল্লিখিত আয়াতে মুমিনদেরকে সম্পূর্ণরূপে ইসলামে প্রবেশ করতে বলা হয়েছে। তাই কুরআন-সুন্নাহর আলোকে একজন সত্যিকারের মুসলমানের যেসব আমল করা আবশ্যক বা যেসব গুণে গুণান্বিত হওয়া জরুরি এবং যেসব আমল থেকে বেঁচে থাকা আবশ্যক বা যেসব অভ্যাস বর্জন করা জরুরি তার একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা এখানে উল্লেখ করা হলো।
যেসব গুণে গুণান্বিত হওয়া জরুরি
১. পরিপূর্ণ মুমিন হওয়া অর্থাৎ দৃঢ় বিশ্বাস রাখতে হবে আল্লাহ তায়ালার প্রতি, তাঁর ফেরেশতাগণ, কিতাবসমূহ, রাসূলগণ, পরকাল, তাকদির (যা আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে) এবং মৃত্যুর পর পুনরুত্থানের প্রতি।
২. বেশি বেশি আল্লাহ তায়ালার জিকির করা, ইবাদতে লিপ্ত থাকা, তাঁর সাথে অন্য কিছুকে শরিক না করা। ৩. হালাল রুজি অর্জন করা এবং হারাম রুজি বর্জন করা। ৪. যাদের ওপর হজ এবং জাকাত ফরজ হয়েছে, তাদের জন্য তা সঠিকভাবে প্রতিপালন করা। ৫. সদা সত্য কথা বলা ও ন্যায় বিচার করা। ৬. বিতাড়িত শয়তান হতে আল্লাহ তায়ালার আশ্রয় কামনা করা।
৭. সর্বাবস্থায় ধৈর্য ধারণ করা এবং একমাত্র আল্লাহ তায়ালার কাছে সাহায্য চাওয়া। ৮. মানুষ আঘাত বা কষ্ট পেতে পারে এমন কোনো কাজ না করা। অন্যের হক নষ্ট না করা। ৯. ভালো কাজের জন্য আদেশ করা বা উপদেশ দেয়া এবং মন্দ কাজ থেকে নিষেধ করা বা বিরতরিাখা। ১০. এখলাস অর্থাৎ একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে ভালো কাজ ও আমল করে যাওয়া।
১১. পুত্র ও কন্যাসন্তানের প্রতি সাম্যনীতি অবলম্বন করা। ১২. আল্লাহ তায়ালার ওপর পরিপূর্ণ তাওয়াক্কুল (ভরসা) করা। ১৩. মুক্তহস্তে দান-সদকা করা। ১৪. আল্লাহ তায়ালা প্রদত্ত নিয়ামতসমূহ কথা ও কাজে অন্যের কাছে প্রকাশ করা এবং নিয়মিত আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করতে থাকা। ১৫. সব ধরনের বান্দার হক আদায় করা।
১৬. ফেতনা-ফাসাদ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা থেকে নিজেকে বিরত রাখা। ১৭. কুরআন মাজিদ তিলাওয়াত করা, পারলে এর অর্থ ও ব্যাখ্যা অধ্যয়ন করা। ১৮. পিতা-মাতার সাথে সর্বদা সদাচরণ করা, তাদের জন্য মাগফিরাত ও মর্যাদা বৃদ্ধির দোয়া করা এবং নফল ইবাদতের সওয়াব তাদের রূহে পৌঁছে দেয়া। ১৯. রাসূল সা:-এর প্রতি বেশি বেশি দরূদ প্রেরণ করা। ২০. রমজান মাসে ফরজ রোজা এবং বিশেষ বিশেষ সময়ে নফল রোজা রাখা।
যেসব দোষত্রুটি বর্জন করা জরুরি
১. অহঙ্কার করা ও অন্তরে কারো প্রতি হিংসা রাখা। ২. কারো প্রতি অত্যাচার করা। ৩. অশ্লীলতায় নিমজ্জিত হওয়া। ৪. মিথ্যা বলা।
৫. আল্লাহ তায়ালার স্মরণ ও নামাজ থেকে উদাসীন থাকা। ৬. যেকোনো ধরনের অপচয় যথা- খাবার, পানি, সময়, সম্পদ ইত্যাদি করা। ৭. শূকরের মাংস, মৃত প্রাণীর মাংস এবং আরো যেসব মাংস কুরআন-হাদিসের আলোকে হিারাম হওয়ার কথা জানা যায় সেগুলো ভক্ষণ করা।
৮. মদ পান করা, জুয়া খেলা, বাজি ধরা এবং গণকের কাছে যাওয়া ও তার গণনা বিশ্বাস করা। ৯. কারো অনুপস্থিতিতে তার দোষ চর্চা করা। আর কোনো দোষ কারো মধ্যে না থাকা সত্ত্বেও তারব্যিাপারে সেটার দাবি করা। ১০. পুত্রসন্তানকে প্রাধান্য ও কন্যাসন্তানকে অবহেলা করা। ১১. কারো মনে কথা বা কাজ দ্বারা আঘাত দেয়া।
১২. অন্যের ধন-সম্পদ অন্যায়ভাবে আত্মসাৎ করা। ১৩. ধর্মীয় কাজে বাধা দেয়া। ১৪. ভিক্ষুককে তিরস্কার করা বা ধমক দেয়া। ১৫. অবাঞ্ছিত উক্তি বা অসদাচরণ দ্বারা পিতা-মাতাকে কষ্ট দেয়া। ১৬. শয়তানের অনুসরণ করা।
১৭. ওজনে কম দেয়া। ১৮. আল্লাহ তায়ালার রহমত হতে নিরাশ হওয়া। ১৯. অনাহারের ভয়ে সন্তানকে হত্যা করা। ২০. এতিমদের প্রতি নির্মমতা অবলম্বন করা।
হে আমাদের প্রতিপালক আল্লাহ তায়ালা! মেহেরবানি করে আমাদের সবাইকে আপনার নির্দেশিত নিয়মে পরিপূর্ণ মুসলমান হওয়ার তাওফিক দান করুন এবং পরিপূর্ণ মুসলিম হিসেবে গ্রহণ করুন। প্রশংসিত গুণাবলি অর্জন করার এবং খারাপ দোষ-ত্রুটি বর্জন করার তাওফিক দান করুন। আমীন।
লেখক : সাবেক সভাপতি, ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশ ও ম্যানেজিং পার্টনার, আজিজ হালিম খায়ের চৌধুরী, চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস

 

 


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com